আজ ২৩শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৬ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ ইং

করোনা আক্রান্ত নার্স দিয়ে চলছে লালমনিরহাট হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা

লালমনিরহাট প্রতিনিধি :  লালমনিরহাট সদর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের অসচেতনতায় করােনা ঝুঁকিতে চিকিৎসা সেবা নিতে আসা রােগী ও তাদের আত্মীয়-স্বজন। লালমনিরহাট ১০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে এই করােনা কালেও কর্তৃপক্ষের নেই কােন সচেতনতা। করােনায় আক্রান্ত নার্স আইসােলেশনে থাকার কথা থাকলেও কর্তৃপক্ষের নির্দ্দেশে পালন করছে ওয়ার্ডের দায়িত্ব। এতে করােনা ঝুকিতে রয়েছে সেবা নিতে আসা রােগী ও তাদের আত্মীয়-স্বজন।
জানা যায়, লালমনিরহাট ১০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডের সিনিয়র সহকারি নার্স শারমিন আফরােজার জ্বর ও কাশি থাকায় গত ২৬ জুলাই করােনা পরিক্ষার জন্য নমুনা দেন। রিপাের্ট না আসা পর্যন্ত কােয়ারান্টাইনে থাকার কথা থাকলেও ডিউটি করছেন শিশু ওয়ার্ডে। এরপর গত ২ আগষ্টে তার রিপাের্ট পজিটিভ আসলে হােম আইসােলেশনে থাকেন তিনি। কিন্তু সুস্থ্য হওয়ার আগেই লালমনিরহাট সদর হাসপাতালের উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষের নির্দ্দেশে করােনায় আক্রান্ত শারমিন আফরােজাকে ৯ আগষ্ট থেকে হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে ডিউটি করতে হচ্ছে। অথচ এ নিয়ে কােন মাথা ব্যথা নেই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের।
শুধু এখানেই শেষ নয়, করােনায় আক্রান্ত রােগীকে যে মেশিন দিয়ে প্রেসার মাপা হয় ঐ একই মেশিন দিয়ে সাধারণ রােগীকেও প্রেসার মাপছেন হাসপাতালের ইমার্জেন্সি বিভাগ। এমনকি হাসপাতালের প্রবেশ পথে সকলের হাত ধােয়ার জন্য নাম মাত্র খালি পানির ড্রাম থাকলেও নেই সেখানে সাবান ও পানির ব্যবস্থা। আর এ সকল বিষয়ে কিছুই জানা নেই বলে দাবি হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাঃ মোঃ সিরাজুল ইসলামের।
হাসপাতাল আসা এক নারী রােগি  জানান, হাসপাতালের সিনিয়র কনসালটেন্ট (কার্ডিওলজি) ডাঃ শংকর কুমার সাহার পরামর্শে হাসপাতালের ইমার্জেন্সি বিভাগে প্রেসার মাপতে জান তিনি। কিন্তু সেখানে গেলে তিনি জানতে পারেন, করােনায় আক্রান্ত রােগিদের প্রেসার মাপার জন্য যে মেশিন ব্যবহার করা হচ্ছে সে মেশিন জীবানু নাশক দিয়ে পরিস্কার না করে আবার ওই মেশিন দিয়ে সাধারণ রােগিদর প্রেসার মাপা হচ্ছে। এতে করে আমার মতো সাধারন আরও অনেক বোগি করোনায় আক্রান্তের শিকার হওয়ার সম্ভাবনা থেকেই যাচ্ছে।
লালমনিরহাট ১০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডের সিনিয়র সহকারি নার্স শারমিন আফরাজা  জানান, তিনি এখনাে পুরােপুরি সুস্থ্য নন হাছি-কাশি লেগেই আছে। তার এ কথা উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে একাধিকবার জানানাে হলেও তাকে ডিউটি দেয়া হয়েছে। তাই তিনি বাধ্য হয়ে ডিউটি করছেন।
লালমনিরহাট ১০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাঃ মােঃ সিরাজুল ইসলাম জানান,  করােনা পজিটিভ এমন কােন নার্স শুধু শিশু ওয়ার্ডে নয়, কােন ওয়ার্ডেই ডিউটি করতে পারবেনা। তবে যদি করোনা পজিটিভ কেউ ডিউটি করে থাকে সে বিষয়টি তার জানা নই।
লালমনিরহাট সিভিল সার্জন ডাঃ নির্মলদু রায়  জানান, করােনার নমুনা দেয়ার পর বা রিপাের্ট পজিটিভ আসার পর যদি কেউ কর্মস্থানে যােগদান করে এটা তাদের অজ্ঞতা। আর কেউ যদি অসুস্থ্য থাকে তাকে কােন ভাবেই ডিউটিতে দেয়া যাবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...