আজ ২৬শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৯ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ ইং

মধ্যযুগীয় কায়দায় গাছে বেঁধে নির্যাতন

পাটগ্রাম (লালমনিরহাট) প্রতিনিধি : লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার পাটগ্রাম ইউনিয়নে এক ব্যক্তিকে রশি দিয়ে গাছে বেঁধে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। নির্যাতনের শিকার ব্যক্তিটির নাম মোস্তফা আলী (৩৬)। তিনি উপজেলার পাটগ্রাম ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের সর্দারপাড়া এলাকার আব্দুল গফুরের ছেলে। তিনি পেশায় রং মিস্ত্রি।

এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা হয়েছে। ওই মামলায় পাটগ্রাম থানা পুলিশ ৪ জনকে গ্রেপ্তার করেছে। গত শনিবার (৩ অক্টোবর) সকালে ওই ব্যক্তিকে গাছে বেঁধে নির্যাতন করা হয় এবং তাঁর সঙ্গে থাকা নগদ অর্থ ও মোবাইল ফোন হাতিয়ে নেয় অভিযুক্তরা।

থানা পুলিশ ও এজাহার সূত্র জানা গেছে, উপজেলার পাটগ্রাম ইউনিয়নের সর্দারপাড়া  প্রাণকৃষ্ণ  এলাকার আব্দুল গফুরের ছেলে মোস্তফা আলী রং মিস্ত্রির কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে এবং বাড়িতে গরু পালন করে আসছেন।

গত শনিবার (৩ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ৭টার সময় মোস্তফা আলী নিজ বাড়ি থেকে রং ক্রয় করার জন্য ৫০ হাজার টাকা নিয়ে রংপুরের উদ্দেশ্যে রওনা করে পথে জগতবেড় ইউনিয়নের ডাকুয়াপাড়া এলাকায় পৌঁছালে একই এলাকার হামিদুল ইসলাম (৪৫) ও তাঁর স্ত্রী তাছলিমা বেগম (৩২), মেয়ে হাওয়া খাতুন (১৫), আব্দুল খালেক, নুরুল হক (৬০), মোস্তফা (৪২) ও  ফাতেমা বেগম (৫০) সকলে মিলে দলবদ্ধ হয়ে মোস্তফা আলীর পথরোধ ও আটক করে তাহার নিকট ১২ হাজার টাকা দাবি করে। তিনি টাকা দিতে অস্বীকার করলে তাঁকে এলোপাতাড়িভাবে মারপিট করে এবং তাঁর সঙ্গে থাকা ৫০ হাজার টাকা ও ১টি মোবাইল ফোন কেড়ে নেয়। এরপর আব্দুল খালেকের কাঁঠাল গাছের সঙ্গে মধ্যযুগীয় কায়দায় রশি দিয়ে বেঁধে মারপিট করে। 

অনেকে গাছের সঙ্গে মধ্যযুগীয় কায়দায় রশি দিয়ে বেঁধে নির্যাতনের সময় মোবাইল ফোনে ভিডিও ধারণ করেন। এ ঘটনায় ওইদিনই নির্যাতনের শিকার মোস্তফা আলীর স্ত্রী মহসেনা বেগম পাটগ্রাম থানায় মামলা করেন। শনিবার রাতে পাটগ্রাম থানা পুলিশ অভিযুক্ত হামিদুল ইসলাম (৪৫) ও তাঁর স্ত্রী তাছলিমা বেগম (৩৫), আব্দুল খালেক ও ফাতেমা বেগমকে আটক করে।

নির্যাতনের শিকার মোস্তফা আলী বলেন, ‘প্রায় ৬ মাস আগে আমার ছেলে অসুস্থ হলে আমি পার্শ্ববর্তী থানা কালীগঞ্জ এলাকা থেকে একজন জনৈক কবিরাজ নিয়ে এসে চিকিৎসা করি। হামিদুল ও তাঁর স্ত্রী তাছলিমা বেগমের সঙ্গে আমাদের সাংসারিক বিরোধ থাকার কারণে ওই কবিরাজের নিকট চিকিৎসা গ্রহণ করেন। চিকিৎসা গ্রহণকালে তাদের ১২ হাজার টাকা খরচ হয়। চিকিৎসায় তাদের কাজ না হওয়ায় তাঁরা বিভিন্ন সময় আমার কাছে ওই টাকা ফেরত চায়। আমি টাকা দিতে অস্বীকার করলে তাঁরা আমাকে গাছে বেঁধে নির্যাতন করেন।

এ বিষয়ে পাটগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুমন কুমার মহন্ত বলেন, গাছে বেঁধে নির্যাতনের ঘটনায় নির্যাতনের শিকার মোস্তফা আলীর স্ত্রী বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। এ ঘটনায় পুলিশ চারজনকে আটক করে। তাদের রবিবার লালমনিরহাট আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...