আজ ১৫ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৯শে জানুয়ারি, ২০২৩ ইং

গ্রামের করোনা প্রকোপ ঢাকায়!

ডেক্স নিউজ : করোনার ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের ‘হটস্পট’ হয়ে উঠেছে গ্রামাঞ্চল। সেখানে স্বাস্থ্যবিধি না মানা ও অবহেলার কারণে প্রতিদিনই বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃত্যুর মিছিল। স্বাস্থ্য অধিদফতর বলছে, ঢাকার থেকে গ্রামে সংক্রমণ বেশি। এমতাবস্থায় শিল্পকারখানা খুলে দেয়ার পর গাদাগাদি করে ঢাকায় ফেরায় গ্রামের প্রকোপ ঢাকায় ব্যাপকভাবে বিস্তার করবে বলে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন স্বাস্থ্য অধিদফতর ও স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় (রবিবার সকাল ৮টা থেকে সোমবার সকাল ৮টা পর্যন্ত) করোনায় মারা গেছেন ২৪৬ জন। নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ১৫ হাজার ৯৮৯ জন। এর মধ্যে ঢাকা বিভাগে ৭৬ জন, চট্টগ্রামে ৬৪ জন, রাজশাহীতে ২২ জন, খুলনায় ৩০ জন, বরিশালে ১৬ জন, সিলেটে ১৪ জন, রংপুরে ১৪ জন আর ময়মনসিংহে ১০ জন মারা গেছে।

গত দুই সপ্তাহেরও বেশি সময় থেকে দেশের হাসপাতালগুলোতে বেড়েছে রোগীর চাপ। বর্তমানে অন্তত ৩০টি হাসপাতালে নির্ধারিত আসনের থেকে অতিরিক্ত রোগী ভর্তি রয়েছেন। আইসিইউ আর অক্সিজেনের জন্য চলছে হাহাকার। হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রোগীদের বেশিরভাগই গ্রাম থেকে আসা।

করোনার সংক্রমণের লাগাম টেনে ধরতে কঠোরতার বার্তা দিয়ে লকডাউন আরোপ করেছিল সরকার। প্রথমদিকে ছিল ব্যাপক কড়াকড়িও। মানুষকে ঘরে রাখতে জোর টহল ছিল সেনাবাহিনীসহ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর। শিল্পকারখানা খুলে দেয়ার সিদ্ধান্তের পর কঠোর অবস্থান থেকে সরে এসেছে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। গত তিন-চারদিন থেকে তাদের তৎপরতাও খুব একটা চোখে পড়ছে না। যার ফলে রাজধানীসহ সারা দেশের ছোট বড় শহরগুলোতে বেড়েছে জনসমাগম। খুলতে শুরু করেছে দোকানপাটও।

তবে করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯)- এর সংক্রমণ পরিস্থিতি রয়েছে চরম ঊর্ধ্বগতির দিকে। চলমান লকডাউনের মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী ৫ আগস্ট। এরপর লকডাউনের মেয়াদ আরো এক সপ্তাহ বাড়ানো হতে পারে বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র। তবে ক্ষেত্রবিশেষে শিথিল করা হতে পারে বিধিনিষেধ। সীমিত পরিসরে খুলে দেয়া হতে পারে সরকারি-বেসরকারি অফিস। চলার অনুমতি দেয়া হবে গণপরিবহনও।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘করোনা মানুষ থেকে মানুষে সংক্রমিত হয়। বেশি লোক কাছাকাছি থাকলে সংক্রমণ বেড়ে যায়। গত দুই দিনে আমরা দেখেছি যেভাবে গাদাগাদি করে শ্রমিকরা কর্মস্থলে ফিরেছে এবং শিল্পকারখানা খুলে দেয়ায় সংক্রমণ বাড়ার সম্ভাবনা বেশি। সংক্রমণ পরিস্থিতির অবনতি হলে হাসপাতালে চাপ বাড়বে। এই পরিস্থিতি সামাল দিতে হলে চিকিৎসা সক্ষমতা বাড়াতে হবে। দ্রুত অনেকগুলো ফিল্ড হাসপাতাল তৈরি করতে হবে।’

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ও হেলথ অ্যান্ড হোপ হাসপাতালের চেয়ারম্যান ডা. লেলিন চৌধুরী বলেন, ‘একটা সময় ছিল শহরগুলোতে সংক্রমণ ছিল বেশি, গ্রামে ছিল কম। এখন কিন্তু শহর গ্রাম একাকার। বরং শহর থেকে গ্রামে সংক্রমণ বেশি। এই শিল্পকারখানা খুলে দেয়ার পর ব্যাপক জনসমাগম, ভিড় ও গাদাগাদি করে চলার কারণে সংক্রমণ আরো ব্যাপকভাবে বেড়ে যাবে। যার লক্ষণ আমার আজ (সোমবার) দেখতে শুরু করেছি। আগের দিনের তুলনায় গতকাল সংক্রমণ ও মৃত্যু অনেক বেড়েছে। নমুনা পরীক্ষা আরো বেশি হলো শনাক্ত আরো বেশি হতো। শনাক্ত যত বাড়বে হাসপাতালে রোগীর সংখ্যা তত বাড়বে।’

মৃত্যু ২৪৬, শনাক্ত ১৫,৯৮৯: গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন ২৪৬ জন। ১ আগস্ট ছিল ২৩১ জন। তার আগের দিন ৩১ জুলাই ছিল ২১৮ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ২৪৬ জনকে নিয়ে দেশে করোনাতে আক্রান্ত হয়ে মোট মারা গেলেন ২১ হাজার ১৬২ জন। গত ২৮ জুলাই করোনাতে আক্রান্ত হয়ে মোট মৃত্যু ২০ হাজার ছাড়ায়। সে হিসেবে সব শেষ এক হাজার মৃত্যু হলো পাঁচ দিনে।

করোনাতে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ১৫ হাজার ৯৮৯ জন। রবিবার ছিল ১৪ হাজার ৮৪৪ জন, আর তার আগের দিন শনাক্ত হয়েছিলেন ৯ হাজার ৩৬৯ জন। তাদের নিয়ে দেশে করোনাতে সরকারি হিসেবে এখন পর্যন্ত মোট শনাক্ত হলেন ১২ লাখ ৮০ হাজার ৩১৭ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ১৫ হাজার ৪৮২ জন। আর দেশে করোনাতে আক্রান্ত হয়ে মোট সুস্থ হয়েছেন ১১ লাখ আট হাজার ৭৪৮ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার নমুনা সংগৃহীত হয়েছে ৫৫ হাজার ৯৩৭টি আর নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৫৩ হাজার ৪৬২টি।

দেশে এখন পর্যন্ত করোনার মোট নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৭৮ লাখ ৪৩ হাজার ৮৮৫টি। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা হয়েছে ৫৭ লাখ ৭৪ হাজার ৮০২টি আর বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় পরীক্ষা হয়েছে ২০ লাখ ৬৯ হাজার ৮৩টি। নমুনা পরীক্ষার বিবেচনায় শনাক্তের হার ২৯ দশমিক ৯১ শতাংশ আর এখন পর্যন্ত শনাক্তের হার ১৬ দশমিক ৩২ শতাংশ।

শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮৬ দশমিক ৬০ শতাংশ আর শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুহার এক দশমিক ৬৫ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ২৪৬ জনের মধ্যে পুরুষ ১৩৭ জন আর নারী ১০৯ জন। দেশে সরকারি হিসেবে এখন পর্যন্ত করোনাতে আক্রান্ত হয়ে পুরুষ মারা গেলেন ১৪ হাজার ২৭৯ জন আর নারী মারা গেলেন ছয় হাজার ৮৮৩ জন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...