আজ ১০ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৪শে জুন, ২০২১ ইং

হাসপাতালে গাইনী ডাক্তার না থাকায় দূভোর্গ

তেঁতুলিয়া হাসপাতালে তীব্র জনবল সংকট থাকার পরও গত অক্টোবর মাসে ৭০টি নরমাল ডেলিভারী সম্পন্ন হয়েছে। গাইনী ডাক্তার না থাকায় জনসাধারণের দূভোর্গ।
বাংলাদেশ সরকারের ঘোষিত এসডিজি গোল বাস্তবায়নের লক্ষে তেঁতুলিয়া হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ মাতৃমৃত্যু প্রতিরোধে সাতটি ইউনিয়নের নবদম্পত্তিদের এন্টি নেটাল চেকআপ (এএনসি) ডাটাবেজ এর আওতায় এনেছে। এ কাজে সহায়তা করেন হাসপাতালের এফডাব্লিউভি, এফডাব্লিউএ, এইচএ, এসএসএন ও কমিউনিটি হেলথপ্রোভাইডার কর্মীগণ। হাসপাতালের তথ্যানুযায়ী গত অক্টোবর মাসে বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে নবদম্পত্তি অন্তঃস্বত্তা মা সম্ভাবা ৯২ জন রোগী ভর্তি হন। তদ্মধ্যে হাসপাতালে স্বাভাবিক ডেলিভারী হয় ৭০ জন। হাসপাতালে কোন গাইনী মেডিকেল অফিসার না থাকায় উন্নত চিকিৎসার জন্য ৪ জনকে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে রেফার করা হয়। এছাড়া ১৮জন চিকিৎসায় সুস্থ হয়ে বাড়িতে ফিরে যান। উক্ত ডাটা বেজের আওতাভুক্ত নবদম্পত্তিরের হাসপাতালের মিডওয়াইফারী প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত স্টাফ নার্সরা ফ্রি চেকআপ সহ স্বাস্থ্যকর্মীরা মুঠোফোনে নিয়মিত তাদের স্বাস্থ্যের খোঁজ খবর রাখছে।
দেশের মানচিত্রের শুরু তেঁতুলিয়া উপজেলায় প্রায় ৩ লাখ মানুষের চিকিৎসার একমাত্র ভরসাস্থল তেঁতুলিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি ২০১১ সালে ৩১ শর্যা থেকে ৫০ শর্যা উন্নীত হয়। উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প. কর্মকর্তা, মেডিকেল অফিসার, জুনিয়র কনসালটেন্ট ও সহকারী সার্জন সহ ২৮জনের পদ বিদ্যমান। কিন্তু তদস্থলে ৩জন মেডিকেল অফিসার, ১জন জুনিয়র কনসালটেন্ট শিশু এবং উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প. কর্মকর্তা নিয়োজিত আছেন। এছাড়া হাসপাতালের গুরুত্বপুর্ণ ২৩ জন চিকিৎসকের পদ দীর্ঘদিন ধরে শূণ্য। এছাড়া তেঁতুলিয়া হাসপাতালের কার্ডিও গ্রাফার, ল্যাব এটেনডেন্ট, ওটি ক্লিনার সহ আরও কয়েকজন কর্মচারীকে বিভিন্ন সময়ে প্রেষণে আদেশ জারি করে সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। কার্ডিও গ্রাফারের অভাবে তেঁতুলিয়া হাসপাতাল ইসিজি সেবা সম্পুর্ন বন্ধ আছে। একইভাবে তেঁতুলিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এক্সরে মেশিন কয়েক বছর ধরে নষ্ট। আল্টাসনোগ্রাম মেশিন, কাডিওগ্রাফার মেশিন ও অপারেশন থিয়েটার (ওটি) বিভাগ থাকলেও জনবলের অভাবে রোগীরা কাঙ্খিত সেবা পাচ্ছেন না। বিশ্বস্ত সূত্রে মতে হাসপাতালে কোন গাইনি চিকিৎসক না থাকায় বিগত বছরগুলোতে আন্তঃস্বত্তা রোগীদের রেফার করে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে এ্যাম্বুলেন্সে নেওয়ার পথে ঝুঁকিপুর্ন ভাবে প্রায় ১২জন সন্তান প্রসবের ঘটনা ঘটে।
তেঁতুলিয়া হাসপাতাল পরিসংখ্যান বিভাগের তথ্যানুযায়ী, হাসপাতালে বর্হিবিভাগে প্রতিদিন গড়ে প্রায় ২০০ থেকে ৩০০জন রোগী চিকিৎসা নিতে আসেন এবং আন্তঃবিভাগে গড়ে ২০ জন নতুন রোগী ভর্তি হয়ে থাকেন। বিপুল সংখ্যক মেডিকেল অফিসার সহ গুরুত্বপুর্ণ চিকিৎসক সংকট থাকায় হাসপাতালের বহিঃবিভাগ ও জরুরী বিভাগে বেশি ভাগ সময়ে মেডিকেল অফিসার (এমবিবিএস) চিকিৎসক দ্বারা রোগীরা সেবা পাচ্ছে না।
এব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প. কর্মকর্তা ডা. আবু জাফর মোহাঃ আজাদ বলেন, বাংলাদেশ সরকার ঘোষিত এনএসডিজি গোল বাস্তাবায়নের লক্ষে ২০৩০ সালের মধ্যে মাতৃমৃত্যু ও শিশু মৃত্যুর হার ১৭০% থেকে শুধু ৭০% নামিয়ে আনার জন্য তেঁতুলিয়া উপজেলার সাতটি ইউনিয়নের নবদম্পত্তি অন্তঃস্বত্তা মা’র ডাটাবেজ অন্তর্ভুক্ত করে মিডওয়াইফারী প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত স্টাফ নার্সরা নিয়মিত এএনসি সেবা দিচ্ছে। এছাড়া মাতৃ ও শিশু মৃত্যু রোধে বিভিন্ন ইউনিয়নে কিছু স্বাস্থ্যকর্মী অনিরাপদ ডেলিভারী কেন্দ্র গড়ে তুলেছিল তাদের বিরুদ্ধে ইতোমধ্যে থানা পুলিশ সংগে নিয়ে অভিযান করে বন্ধ করা হয়েছে। ফলে হাসপাতালে প্রাতিষ্ঠানিকভাবে নরমাল ডেলিভারী সংখ্যা বেড়েছে। তিনি ভুয়া ও অদক্ষ নামধারী ডাক্তারদের হুশিয়ারি দিয়ে বলেন উপজেলার আনাচে-কানাছে বিভিন্ন বিষয়ে অভিজ্ঞ সাইনবোর্ড লাগিয়ে চিকিৎসা চেম্বার খুলে হরহামেসায় এন্টিবাইয়োটিক লিখে জনসাধারণের সংগে প্রতারণা করছে তাদের বিরুদ্ধে অচিরেই উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ ও প্রশাসন অভিযান পরিচালনা করবে।# 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...