আজ ৩০শে আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৫ই অক্টোবর, ২০২০ ইং

আওয়ামীলীগ সহ অঙ্গ সংগঠনে দূর্নীতি বিরোধী শুদ্ধি অভিযানের দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল

ফরিদপুর প্রতিনিধি: ফরিদপুর জেলা আওয়ামীলীগে দুর্নীতি বিরোধী শুদ্ধি অভিযানের অংশ হিসাবে জেলা ছাত্রলীগের কমিটি বাতিল হবার পর এবার বাতিল করা হলো জেলা যুবলীগের আহবায়ক কমিটি।

রবিবার রাতে যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারন সম্পাদক আলহাজ্জ মোঃ মাইনুল হোসেন খান নিখিল স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে ফরিদপুর জেলা যুবলীগের কমিটি বাতিল ঘোষনা করা হয়। প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ এর নির্দেশে এবং সাংগঠনিক কার্যক্রম নিস্ক্রিয়তার কারনে ফরিদপুর জেলা যুবলীগের আহবায়ক কমিটি রবিবার বাতিল করা হলো।

জেলা যুবলীগের আহবায়ক হিসাবে ছিলেন সাবেক এলজিআরডি মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন এমপি’র এপিএস ফুয়াদ হোসেন। এর আগে গত শনিবার একই অভিযোগে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নির্দেশে ফরিদপুর জেলা ছাত্রলীগের কমিটি বাতিল ঘোষনা করা হয়।

সম্প্রতি, ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগে দুর্নীতি বিরোধী শুদ্ধি অভিযান এবং জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুবল চন্দ্র সাহার বাড়ীতে হামলার ঘটনায় আটক হন শহর আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন বরকত ও তার ভাই ইমতিয়াজ হাসান রুবেল সহ কয়েক ব্যক্তি। পরে সিআইডি সাজ্জাদ হোসেন বরকত ও ইমতিয়াজ হাসান রুবেলের বিরুদ্ধে কাফরুল থানায় ২ হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচারের অভিযোগ মানি লন্ডারিং আইনে একটি মামলা করে। সেই মামলায় বরকত-রুবেলের দুইজনের স্বীকারোক্তিতে আটক করা হয় শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি খন্দকার নাজমুল হাসান লেভী, জেলা শ্রমিক লীগের অর্থ সম্পাদক বিল্লাল হোসেন, শহর যুবলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক আসিবুর রহমান ফারহানকে। সর্বশেষ গত শুক্রবার মানি লন্ডারিং মামলায় আটক করা হয় জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি নিশান মাহমুদ শামীমকে।

ছাত্রলীগ ও যুবলীগের কমিটি বাতিল হওয়ায় এবার আওয়ামী লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, শ্রমিক লীগ ও শহর আওয়ামী লীগের কমিটি বাতিলের দাবী উঠেছে। মানি লন্ডারিং মামলায় শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক আটক হওয়ার পর তাদের কমিটি থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। ফলে নেতৃত্ব শূণ্যতার সৃষ্টি হয়েছে শহর আওয়ামী লীগে। জেলা আওয়ামী লীগে দুর্নীতি বিরোধী অভিযানের পর অর্ধশতাধিক প্রভাবশালী নেতা বর্তমানে গা ঢাকা দিয়েছে।

দুর্নীতির মাধ্যমে যারা কয়েকশ কোটি টাকার মালিক বনেছেন এবং যারা সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের মাধ্যমে দলকে ক্ষতিগ্রস্থ করেছেন তাদের দ্রুত আইনের আওতায় আনার দাবী বেশ জোরালো হয়ে উঠেছে সাধারন মানুষের মধ্যে। আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশকারী হিসাবে এবং বিভিন্ন দল থেকে আসা ব্যক্তিরা যারা বিতর্কিত কর্মকান্ডের মাধ্যমে সমালোচিত তাদের আটকের দাবীতে সভা ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। ফরিদপুর জেলা আওয়ামীলীগের দুর্নীতি বিরোধী অভিযানকে স্বাগত জানিয়ে এবং ফরিদপুর-২ (নগরকান্দা-সালথা) আসনে অনুরুপভাবে অভিযান পরিচালনার দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে নগরকান্দা উপজেলা আওয়ামী লীগের একাশং।

আজ সোমবার বেলা ১১টার দিকে নগরকান্দা হাসপাতালের সামনে থেকে নেতা-কর্মীরা বিশাল একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিলটি বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিন করে উপজেলা পরিষদের সামনে গিয়ে শেষ হয়। বিক্ষোভ মিছিলে উপস্থিত ছিলেন নগরকান্দা পৌর যুবলীগের সাবেক সভাপতি কামরুজ্জামান মিঠু, থানা শ্রমিক লীগের সভাপতি লিয়াকত হোসেন, পৌর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মোস্তাক হোসেন, পৌর কাউন্সিলর ইউনুস শেখ, আওয়ামী লীগ নেতা তরুন পোদ্দার, ফরিদ মাতুব্বরসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ। বিক্ষোভ মিছিলে অংশ নেওয়া নেতারা বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ফরিদপুর সদর আসনে যেভাবে অনুপ্রবেশকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছেন তাতে দল বেশ উপকৃত হয়েছে। নগরকান্দা ও সালথা উপজেলায় আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পদে এখনো বিতর্কিত নেতারা দুর্নীতি ও সন্ত্রাসের পথ বেঁছে নিয়েছেন। তাদের কারনে দল চরম ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। বিতর্কিত ও দলে অনুপ্রবেশকারী নেতাদের বহিস্কার করে তাদের দ্রুত গ্রেফতারের দাবী জানানো হয়। মিছিলকারীরা আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশকারীদের নাম উচ্চারন করে তাদের বহিস্কারের দাবী তুলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...