আজ ১৭ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৩১শে জানুয়ারি, ২০২৩ ইং

পারিবারিক কলহে স্ত্রীকে খুন, ঘাতক স্বামী পলাতক

জামালপুর প্রতিনিধি : জামালপুর শহরের কম্পপুর মধ্যপাড়া এলাকায় পারিবারিক কলহের জের ধরে স্ত্রী ফাতেমাকে (৩৫) ধারাল অস্ত্র দিয়ে খুন করে পালিয়েছে ঘাতক মুদি দোকানি স্বামী মো. সাঈদালী। রবিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে নিজেদের ঘরে এ ঘটনা ঘটে। ওই গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে সদর থানা পুলিশ।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, জামালপুর শহরের ২ নম্বর ওয়ার্ডের কম্পপুর মধ্যপাড়া এলাকার মো. সাঈদালী একজন মুদি দোকানি। একই ঘরের সামনের কক্ষে তার মুদি দোকান। পেছনের কক্ষে স্ত্রী ফাতেমা এবং দুই মেয়ে ও এক ছেলেকে নিয়ে বসবাস করেন তিনি। ফাতেমা তার চতুর্থ স্ত্রী। 

পারিবারিক কলহের জের ধরে রবিবার রাত আনুমানিক সাড়ে ৯টার দিকে দোকান বন্ধ করে শোবার কক্ষে গিয়ে ভেতর থেকে দরজা বন্ধ করে দেয় সাঈদালী। এ সময় তিনি তার স্ত্রী ফাতেমার বুকে ধারাল অস্ত্র দিয়ে আঘাত করলে ফাতেমা ঘটনাস্থলেই নিহত হন।

ঘটনার সময় ওই কক্ষে তাদের তিন সন্তানের মধ্যে দ্বিতীয় মেয়ে সাদিয়া ও কনিষ্ঠ ছেলে শাহাদাত বিছানায় ঘুমিয়ে ছিল। তাদের নবম শ্রেণিতে পড়ুয়া বড় মেয়ে সাবিনা ঘরের বাইরে ছিল। সাবিনা কিছু বুঝে উঠার আগেই তার বাবা ঘাতক সাঈদালী ঘরের বাইরে বের হয়ে তার মেয়ে সাবিনাকে বাইরে রেখেই দরজায় তালা দিয়ে দ্রুত বাড়ি থেকে কেটে পড়েন। বাইরে থেকে দরজায় তালা দেওয়ায় সন্দেহ হলে সাবিনা চিৎকার করে প্রতিবেশীদের ডাকাডাকি করে। প্রতিবেশীরা সেখানে গিয়ে ঘরের দরজার তালা ভেঙে ভেতরে গিয়ে ফাতেমাকে ঘরের মেঝেতে রক্তাক্ত মৃত অবস্থায় দেখতে পান।

এ ঘটনার খবর পেয়ে মাঝ রাতে সদর থানার ওসি মো. সালেমুজ্জামান পুলিশ ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। রাতেই ফাতেমার মরদেহ উদ্ধার করে জামালপুর সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। পারিবারিক কলহের জের ধরে সাঈদালী তার স্ত্রী ফাতেমাকে হত্যা করেছে বলে পুলিশ ও প্রতিবেশীরা ধারণা করছেন।

জামালপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সালেমুজ্জামান বলেন, ঘটনার পর পরই মুদি দোকানি সাঈদালী বাড়ি ছেড়ে পালিয়েছেন। তার স্ত্রী ফাতেমার বুকের বাম পাশে ধারাল অস্ত্রের আঘাতে রক্তাক্ত ক্ষত হয়েছে। পারিবারিক কলহের জের ধরে এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন। ময়নাতদন্তের জন্য তার মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। সাঈদালীকে আটক করার চেষ্টা চলছে। এ ব্যাপারে থানায় মামলা দায়ের করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...