আজ ১৭ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৩১শে জানুয়ারি, ২০২৩ ইং

পরকিয়ার জেরে হত্যাকান্ড, দাফনের তিনদিন পর অভিযোগ দায়ের

লালমনিরহাট প্রতিনিধি :  লালমনিরহাটে ছোট ভাইয়ের মৃত্যুর ৩ দিন পর বড় ভাই অভিযোগ করেছেন তার ভাইয়ের স্বাভাবিক মৃত্যু হয়নি তাকে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

সোমবার (২৬ জুলাই) নিহতের বড় ভাই খুনিয়াগাছ ইুনিয়নের শাহার আলীর ছেলে আব্দুর রশিদ লালমনিরহাট পুলিশ সুপারের কার্যালয় বরাবরে ওই লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, আব্দুর রশিদের ছোট ভাই আব্দুল জলিল গত ২৩ জুলাই ভোর রাতে মারা যান। পরিবারকে না জানিয়ে গোলাম রব্বানী নামে স্থানীয় এক ঔষধ ব্যাবসায়ী তরিঘরি করে লাশ দাফন সম্পন্ন করার চেষ্টা করেন। পরে বড় ভাই আব্দুর রশিদ খবর পেয়ে সেখানে পৌঁছে দেখতে পান তার ভাই আব্দুল জলীলের মরদেহ গোসল করিয়ে দাফনের জন্য রাখা হয়েছে। আব্দুর রশিদ তার অভিযোগে আরো উল্লেখ করেছেন তার ভাইয়ের নাক ও দেহের পিছনের অংশে রক্ত ঝরতে দেখেন।

লিখিত ওই অভিযোগে আরো উল্লেখ রয়েছে, মৃত আব্দুল জলিলের স্ত্রী মমিনা বেগম (২৭) ও শহরের তিন দিঘী মাঝাপাড়া বাজারের ঔষধ ব্যাবসায়ী রমজান আলীর ছেলে গোলাম রব্বানী (২৮) এর মধ্যে পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। আর তারই জেরে বিভিন্ন সময় ঝগড়া বিবাদও হতো জলিল ও মমিনা দম্পতির মাঝে। জলীলের স্ত্রী মমিনা, প্রেমিক রব্বানী ও ভাই আশরাফুল ইসলাম (৪০) গত ২২ জুলাই রাত ১২টা থেকে রাত ২ টার মধ্যে জলিলকে পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করেছে।

সরেজমিন ওই এলাকায় ২৬ জুলাই (সোমবার) দুপুরে গেলে স্থানিয়দের মাঝে ব্যাপক চাঞ্চল্য লক্ষ করা যায়।

 

অভিযুক্ত মমিনা’র কাছে ওই রাতে কি হয়েছিলো জানতে চাইলে তিনি বলেন, রাতে বাড়িতে আশার পর তাকে খাইতে বলি কিন্তু সে না খায়া শুয়ে পরে। তার কাছে কয়েকজন টাকা পাইতো তাই সে খুব চিন্তায় ছিলো। আমি পাশের বিছানায় দুই মেয়েকে সাথে নিয়ে ঘুমাই। ফজরে নামাজ পড়তে উঠে বাইরে থেকে এসে তাকে ডাক দিলে তার কোনো সাড়াশব্দ পাই না। পরে আমি চিল্লানী দিলে আশপাশের লোকজন চলে আশে এবং পরে জানতে পাড়ি তিনি মারা গেছেন। পরকীয়া প্রেমের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি অস্বীকার করে বলেন, তার ভাশুর আব্দুর রশিদ তার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করেছেন।

কথিত ওই পরকীয়া প্রেমিক গোলাম রব্বানীর সাথে কথা বললে তিনি বলেন, তিনি একজন পল্লী চিকিৎসক। মানুষকে সেবা দেওয়াই তার কাজ। তিনি মৃত আব্দুল জলিলের দাফনের আগে গোসল দিয়েছেন। এটাই তার অপরাধ। তাই তার বিরুদ্ধে এই অভিযোগ।

এ ব্যাপারে লালমনিরহাট সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শাহ আলম বলেন, মৃত ব্যাক্তি জলিলের মৃত্যুর ব্যাপারে অনুসন্ধানী মুলক কাজ শুরু হয়েছে। তদন্তের আগে কিছুই বলা যাবে না এটি হত্যা না কি স্বাভাবিক মৃত্যু।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...