আজ ১৭ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৩১শে জানুয়ারি, ২০২৩ ইং

বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে একযোগে কাজ করবে ইউএসএআইডি’র উজ্জীবন প্রকল্প ও আগোরা

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলাদেশে আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন ও মানবাধিকারের অন্যতম প্রধান বাধা হলো বাল্যবিবাহ। বাংলাদেশ সরকার এবং যুক্তরাষ্ট্রের জনস হপকিন্স সেন্টার ফর কমিউনিকেশন প্রোগ্রামস কর্তৃক বাস্তবায়িত ইউএসএআইডি-এর উজ্জীবন এসবিসিসি প্রকল্প যৌথভাবে বাংলাদেশে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে একযোগে কাজ করছে।

কোভিড-১৯ মহামারীর কারণে স্কুল বন্ধ হয়ে যাওয়া এবং শিক্ষার সুযোগ হারানোর ফলে, কিশোরী মেয়েদের বাল্যবিবাহের ঝুঁকি ব্যাপক হারে বেড়েছে। বাল্যবধূরা মাধ্যমিক শিক্ষা বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয়, ব্যাপক স্বাস্থ্যগত ঝুঁকির মুখে পড়ে, এমনকি অল্প বয়সে গর্ভ ধারণের কারণে মৃত্যুর ঝুঁকিতেও পড়ে। এছাড়া স্বামীর কাছে বঞ্চিত হয়, শ্বশুরবাড়িতে পরিত্যাক্ত হয় এবং পারিবারিক সহিংসতার শিকার হয়।

বাংলাদেশের প্রথম সুপারস্টোর হওয়ায় ”আগোরা” সর্বদা পণ্যের সর্বোচ্চ গুণগতমান এবং পরিচালনাগত মান বজায় রেখে দেশের জন্য একটি ভালো বাজার নিশ্চিত করেছে। একটি নৈতিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান হওয়ায়, আগোরা বিকেন্দ্রীকরণে বিশ্বাস করে এবং সারা দেশে তার গ্রাহকদের কাছে স্বাস্থ্যকর পণ্য পৌঁছে দিতে বদ্ধপরিকর।
ফলতঃ ইউএসএআইডি-এর উজ্জীবন এসবিসিসি প্রকল্প বাল্যবিবাহের বিরুদ্ধে প্রচারণাকে আরও জোরদার করতে আগোর‘র সাথে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে কাজের অংশ হিসেবে  গতকাল বৃহস্পতিবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২২ ঢাকায় আগোরা-এর জাপান-গার্ডেন সিটি আউটলেটে এক মিলিয়ন (১০ লাখ) স্বাক্ষর সংগ্রহ করার লক্ষ্যে একটি এমওইউ স্বাক্ষর করে।

এই প্রচারাভিযানের লক্ষ্য হলো জনসচেতনতা ও সহানুভূতি বৃদ্ধি করা এবং বাল্যবিবাহের প্রতি নিন্দা ও পরবর্তী ভয়ঙ্কর পরিণতিগুলি সম্পর্কে বোঝানো। একই সঙ্গে ছেলে-মেয়েদের জন্য তাদের পরিবার ও সমাজে নিরাপদ ও স্বাস্থ্যকর পরিবেশ তৈরি করার লক্ষ্যে লিঙ্গ বৈষম্য সম্পর্কে সমাজ ও জাতিকে শিক্ষিত করা।
অনুষ্ঠানে কেক কেটে বাল্যবিবাহ বিরোধী এই প্রচারাভিযানের উদ্বোধন করা হয়। পরে অতিথিরা নির্ধারিত বইয়ে স্বাক্ষর করে স্বাক্ষর সংগ্রহ কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক সূচনা করেন।
অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন- আগোরোর পরিচালক মুয়াল্লেম এ. চৌধুরী, আগোরোর হেড অফ কমার্শিয়াল খন্দকার নূর-ই বুরহান, হেড অফ প্ল্যানিং এন্ড ইন্টারনাল অডিট খালেদুর রসুল, হেড অফ এইচ. আর. আলেয়া পারভীন, ড. ফয়সাল মাহমুদ, ইউএসএআইডি’র উজ্জীবন প্রকল্পের আউটরিচ ম্যানেজার এ.এফ.এম. ইকবাল, শিল্পী শেউতি ফারিহা শামস শেউতি প্রমুখ।
আগোরার পক্ষ থেকে ঊর্ধতন কর্মকর্তারা বলেন, বাল্যবিবাহ বাংলাদেশে একটি বড় সমস্যা। এই সমস্যা সমাধানে জনস হপকিন্স ইউনিভার্সিটি পরিচালিত ইউএসএআইডি’র উজ্জীবন প্রকল্পের সাথে যৌথভাবে কাজ করতে পেরে তারা অত্যন্ত আনন্দিত। তারা জানান, আগোরো প্রতিমাসে তিন লাখের বেশি কাস্টমারকে সার্ভিস দিয়ে থাকে। ফলত একটি বিশাল জনগোষ্ঠীর মাঝে সহজেই বাল্যবিবাহ বিরোধী বার্তা পৌঁছে দেয়া সম্ভব হবে। তারা বলেন, এতো বড় একটি সামাজিক সমস্যা সরকারের একার পক্ষে সমাধান করা সম্ভব নয়। এই সচেতনতামূলক কার্যক্রমে আরো বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের এগিয়ে আসা উচিত।

উজ্জীবন প্রকল্পের আউটরিচ ম্যানেজার এ.এফ.এম. ইকবাল বলেন, এই সচেতনতামূলক কার্যক্রমে আগোরা খুবই স্বতস্ফূর্তভাবে এগিয়ে এসছে। এ জন্য তিনি আগোরাকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান।

বক্তারা জানান, বাল্যবিবাহ বিরোধী সচেতনতামূলক এই ক্যাম্পেইনে এক মিলিয়ন স্বাক্ষর সংগ্রহ হলে তা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে জমা দেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...