আজ ২৪শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৮ই আগস্ট, ২০২২ ইং

হবিগঞ্জে একের পর এক হাওর ডুবছে, কয়েক লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি: হবিগঞ্জে বৃষ্টিপাত কমলেও গতকাল বিকেল থেকে হবিগঞ্জের ৪ টি উপজেলার বন্যা পরিস্থিতি চরম আকার ধারন করেছে৷ বানের পানিতে বাড়িঘর তলিয়ে যাওয়ায় ভানবাসী লোকজনরা ছুটছেন আশ্রয় কেন্দ্রে৷

নবীগঞ্জ,আজমিরিগঞ্জ ও বানিয়াচংয়ে নতুন কমিটি আরো ৫০ টিরও বেশি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে৷ কয়েকদিনের লাগাতার অতিবৃষ্টি এবং উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢল ও সিলেট-সুনামগঞ্জের ভানের পানির ক্রমাগত স্রোতে হবিগঞ্জের একের পর এক হাওর ডুবছে৷ কুশিয়ারা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় নদীর পাড় উপচে ও কৈয়ারঢালার বাধ ও নিকলির বাধ ভেঙ্গে বোনা আমনের জমি তলিয়ে গেছে।

কুশিয়ারা নদীর তীরে বানিয়াচংয়ের ৫ নম্বর দৌলতপুর ইউনিয়নের মাকুর্লি বাজার ইতিমধ্যে তলিয়ে গেছে। ১৩ নম্বর মন্দরী ইউনিয়নের আগুয়া-কাউরাকান্দি রাস্তা ও প্রাথমিক বিদ্যালয় পানিতে তলিয়ে গেছে। শনিবার রাতে খোয়াই নদীর বাঁধ ভেঙ্গে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার লুকড়া ইউনিয়নের নিম্মাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে৷ নবীগঞ্জের ইনাতগঞ্জ ইউনিয়ন, দীঘলবাক,আউশকান্দি ও বড় ভাকৈর ইউনিয়ন এর প্রায় ৫০ টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে৷

নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শেখ মহি উদ্দিন জানান, উপজেলার চার ইউনিয়নের অন্তত ৫০ গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছে কয়েক হাজার মানুষ। ইতোমধ্যে অন্তত এক হাজার মানুষ ১২টি আশ্রয়কেন্দ্রে অবস্থান নিয়েছেন। তাদের জন্য শুকনো খাবারসহ প্রয়োজনীয় ওষুধপত্রের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এছাড়া,কালনি,কুশিয়ারা,খোয়াই,ভেড়ামোহনা ও বছিরা সহ বিভিন্ন নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় জেলার ৪ টি উপজেলার কয়েকলাখ মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়ছেন। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকলে হবিগঞ্জের বানিয়াচং, আজমিরীগঞ্জ ও লাখাইয়ের অধিকাংশ ইউনিয়ন বন্যার পানিতে তলিয়ে যাবে। এদিকে বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠক করছে জেলা প্রশাসন। প্রস্তুত রাখা হয়েছে শুকনো খাবার, ওষুধসহ প্রয়োজনীয় সামগ্রী। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ৪টি উপজেলায় প্রস্তুত করা হয়েছে ৯৩টি আশ্রয় কেন্দ্র। সেই সাথে পর্যাপ্ত পরিমাণ শুখনো খাবার, ওষুধ, বিশুদ্ধ পানি, মোমবাতিসহ প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র মজুদ করে রাখা হয়েছে। ইতোমধ্যেআশ্রয় কেন্দ্রে উঠা কয়েক হাজার পরিাবারের মধ্যে শুকনো খাবার, ওষুধসহ প্রয়োজনীয় জিনিস পৌঁছে দেয়া হয়েছে।

শুক্রবার বিকেলের দিকে কুশিয়ারার পানি বেড়ে বাঁধ ডুবে হাওরে ঢুকতে থাকে পানি। সেই সঙ্গে প্লাবিত হয় নিচু এলাকাগুলো। আজমিরীগঞ্জ-পাহাড়পুর ও আজমিরীগঞ্জ-কাকাইলছেও সড়ক ডুবে যাওয়ায় দুটি ইউনিয়নের সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।
সারা রাত বৃষ্টির কারণে নদীর পানি আরও বাড়তে থাকে। শনিবার সকালে আজমিরীগঞ্জের পাহাড়পুর-মারকুলি সড়কের নিখলির ঢালা এবং পিরোজপুর-বদলপুর সড়কের কৈয়ারঢালায় কুশিয়ারা নদীর বাঁধ ভেঙে যায়। এতে প্রবল বেগে লোকালয়ে পানি প্রবেশ করে। প্লাবিত হতে থাকে হাওরের একের পর এক গ্রাম৷ রবিবার ১৯ জুন দিনভর তেমন বৃষ্টিপাত না হলেও উজানের পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে৷ কুশিয়ারার পানি আজমিরীগঞ্জের উপর দিয়ে বর্তমানে বিপৎসীমার ১৩৩ সে.মি.উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে পানি৷ আর শেরপুর পয়েন্টে এরই মধ্যে বিপৎসীমার ১৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। বালুর বস্তা দিয়ে নদীর বাঁধ রক্ষায় চেষ্টা চালাচ্ছে পানি উন্নয়ন বোর্ড।

পানি উন্নয়ন বোর্ড জানায়, গত দুদিনের টানা বর্ষণ, উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে জেলার কুশিয়ারা, কালনী, ভেড়ামোহনা,বছিরা, খোয়াইসহ বিভিন্ন নদীর পানি ভেড়েই চলেছে৷ কুশিয়ারার পানি আজমিরীগঞ্জ ও নবীগঞ্জ উপজেলার কয়েকটি পয়েন্ট দিয়ে হাওরে প্রবেশ করেছে। এরইমধ্যে আজমিরীগঞ্জ, বানিয়াচং ও নবীগঞ্জের বেশকিছু গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।
শনিবার রাতে খোয়াই নদীর বাঁধ ভেঙ্গে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার লুকড়া ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে৷

আজমিরীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুলতানা সালেহা সুমী জানান- কুশিয়ারার বাধ উপচে বিভিন্ন এলাকায় পানি প্রবেশ অব্যাহত রয়েছে৷ আমরা বন্যা কবলিত মানুষদের নিরাপদে আনার জন্য চেষ্টা করছি৷ অনেক মানুষকে নৌকা দিয়ে নিরাপদে আনা হয়েছে। মনিটরিং সেল গঠন করা হয়েছে। সব ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের বলা হয়েছে কেউ পানি বন্দী হলে তাৎক্ষনিক কাছের স্কুল কলেজে নিরাপদে সরিয়ে আনার জন্য।

আজমিরীগঞ্জ পৌরসভা সহ উপজেলার ৫ ইউনিয়নের ২০/২৫ টি গ্রামের প্রায় অর্ধলক্ষাধিক মানুষ এখন পানিবন্দি হয়ে পড়েছে৷ আজমিরীগঞ্জ পৌর এলাকার জয়নগর, আদর্শগ্রাম, নিজ বাজার, অনুকূল ঠাকুরের আশ্রম এলাকা প্লাবিত হয়েছে। বদলপুরের পাহাড়পুর, পিরোজপুর, কাকাইলছেও, শিবপাশা এবং জলসুখা ইউনিয়নের কয়েকটি এলাকা পানিতে তলিয়ে গেছে। ভানবাসী লোকজনদেরকে আজমিরীগঞ্জ সরকারি কলেজ ও মিয়াধন মিয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়,পাহাড়পুর কলেজ,শিবপাশা উচ্চ বিদ্যালয়,সৌলরী উচ্চ বিদ্যালয়,আজমিরীগঞ্জ সরকারী কলেজ,জলসুখ উচ্চ বিদ্যালয়সহ আরো কয়েকটি আশ্রয় কেন্দ্রে তুলা হয়েছে৷

জেলা প্রশাসক ইশরাত জাহান জানান,হাওরের মানুষদের আশ্রয়কেন্দ্রে নেয়া হয়েছে৷ আশ্রয় কেন্দ্রে পর্যাপ্ত পরিমাণে খাবার ও ঔষধ দেয়া হচ্ছে৷ আজমিরগঞ্জ,বানিয়াচং ও নবীগঞ্জের কয়েক হাজার মানুষকে আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে সরিয়ে নেয়া হয়েছে৷ তিনি আরো জানান, বিভিন্ন উপজেলার বন্যাকবলিতদের জন্য ইতিমধ্যে শুকনো খাবারের প্যাকেট উপজেলা নির্বাহী অফিসারদের মাধ্যমে পৌছে দেয়া হয়েছে।


হবিগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী মিনহাজ আহমেদ শোভন বলেন, ‘অতি বৃষ্টি ও পাহাড়ের ঢলে কুশিয়ারা-কালনী ও খোয়াই নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে । আজমিরীগঞ্জ ও নবীগঞ্জে বাঁধ উপচে পানি হাওরে প্রবেশ করছে। গতকাল থেকে নবীগঞ্জ,বানিয়াচং ও আজমিরিগঞ্জর প্রায় প্রায় ৫০ টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে৷ আজমিরীগঞ্জের দুটি বাধ রাস্তা ভেঙে কয়েকটি গ্রাম তলিয়ে গেছে৷ বৃষ্টিপাত ও পানি বৃদ্ধি যদি অব্যাহত থাকে তাহলে বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করতে পারে বলে তিনি জানান৷

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...