আজ ১৫ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৯শে জানুয়ারি, ২০২৩ ইং

জামাত সাজিয়ে প্রশাসনকে প্রভাবিত করে মামলা করতে বাঁধা। বিচারের আশায় দ্বারে দ্বারে ঘুরছে নির্যাতিত ভাই

বিশেষ প্রতিনিধি: পারিবারিক কোন্দলকে কেন্দ্র আপন ৪ ভাইয়ের মধ্যে ৩ ভাই একত্রিত হয়ে স্কুল মাস্টার আরেক ভাইয়ের স্ত্রীকে মারপিট করে গুরুতর আহত করেছে।

এতে ক্ষান্ত হয়নি তারা, যাতে নির্যাতিতরা ন‍্যায় বিচার না পায় সেজন্য উল্লেখিত ৩ ভাই কর্তৃক পুনরায় নির্যাতিত স্কুল মাস্টার ভাইকে জামায়াত কর্মী সাজিয়ে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকে প্রভাবিত করে মামলা দায়ের করতে বাঁধা প্রদান। নিরুপায় হয়ে নির্যাতিত স্কুল মাস্টার বিচারের আশায় সংশ্লিষ্ট প্রশাসনসহ বিভিন্ন মহলের দ্বারে দ্বারে ঘুরছে।

অভিযোগে জানা যায়, গাইবান্ধা জেলার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার পাঁচগাছি শান্তিরাম গ্ৰামের প্রভাবশালী জনৈক ইমান উদ্দিন ৪ পুত্র ও আত্নীয় স্বজন সহ বিশাল ধনসম্পদ রেখে মৃত্যু বরণ করেন। রেখে যাওয়া এই ধনসম্পদ নিয়ে তাদের মধ্যে কোন্দল শুরু হয়। ভাইদের মধ্যে তৈরি হয় গ্ৰুপিং। এর মধ্যে মোহাম্মদ আলী, জয়নাল আবেদীন ও মৃত. আজিজার রহমান (এর সন্তানরা) তিন ভাই এক গ্ৰুপে এবং স্কুল মাস্টার আ: খালেক অন্য গ্ৰুপে।

সুত্র জানায়, জমিজমা ও পারিবারিক বিষয় নিয়ে দীর্ঘদিন থেকে তাদের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। তৈরি হয় ভাই ভাইয়ে গ্ৰুপিং। একত্রিত হওয়া তিন ভাই এর সন্তানাদী বেশি হওয়ায় তাদের দাম্ভিকতাও বেশি এবং সদল বলয়ে বলিয়ান। এমতাবস্থায় একটি তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে উল্লেখিত তিন ভাই এর লোকজন গত ২৩ এপ্রিল/২০২০ ইং সকাল ৯টার দিকে আব্দুল খালেক এর জমিতে ও বাড়িতে অনাধিকার প্রবেশ করে সাধারণ জখম, চুরি, ভাংচুর, টানা-হেচরা করে শ্লীলতাহানি, ভয়ভীতি ও হুকুম দানের অপরাধ সংঘটিত সহ কমপক্ষে তিন লক্ষাধিক টাকা ক্ষয়ক্ষতি করলে আব্দুল খালেক বাদী হয়ে ১৩ জনকে আসামি করে সুন্দরগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। যার নং- ৪, তারিখ- ০২/০৫/২০২০ ইং, ধারা- ১৪৩/৪৪৭/৪৪৮/৩২৩/৩০৭/৩৭৯/৩৮০//৩৫৪/৫০৬//১১৪ দন্ড বিধি এবং আসামিরা হলো- মোহাম্মদ আলী, রশিদুল, আব্দুর রাজ্জাক, রাজু মিয়া, সৌরভ, আশরাফ আলী, আফতাব আলী, জয়নাল আবেদীন, আকবর আলী, শামীম মিয়া, বানু বেগম, শাপলা বেগম ও রোকেয়া বেগম।

এদিকে উল্লেখিত মামলা দায়ের করায় আসামিরা আরো ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। মামলা তুলে নেয়ার জন্য বিভিন্ন ভাবে চাপ প্রয়োগ করে আসার এক পর্যায়ে গত ২ জুন/২০২০ ইং মঙ্গলবার সকাল আনুমানিক ৭টার দিকে আব্দুল খালেক ও তার স্ত্রী মিনারা বেগম তাদের বসত বাড়ির সামনে রাস্তায় ইরি ধানের খড় শুকানোর জন্য গেলে সুযোগ পেয়ে উল্লেখিত আসামি গন দেশীয় তৈরি অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে বেআইনি জনতায় দলবদ্ধ হয়ে পথরোধ করে অতর্কিত ভাবে হামলা করে মোহাম্মদ আলীর হুকুমে লোহার রড দিয়ে মারপিট করে হাড় ভাঙ্গা জখম, পড়নের কাপড় ধরে টানাহেঁচড়া করে শ্লীলতাহানি, ধারালো অস্ত্র দিয়ে ছোট মেরে রক্তাক্ত হাড়কাটা জখম করে এবং যাতে চিকিৎসা সেবা নিতে না পারে সেজন্য তাদেরকে নিজ বাড়িতে মারাত্মক আহত অবস্থায়ই অবরুদ্ধ করে রাখলেও আশ পাশের লোকজনের সহায়তায় পরদিন ৩ জুন/২০২০ ইং আব্দুল খালেক ও তার স্ত্রী মিনারা বেগমকে উদ্ধার করে প্রথমে সুন্দরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এখানে মিনারা বেগমের অবস্থার অবনতি হলে তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। সেখানে দীর্ঘ ৮ দিন চিকিৎসা নিয়ে গত ১১ জুন/২০২০ ইং তারিখে বাড়িতে নিয়ে আসে। বাড়িতে মিনারা বেগমের চিকিৎসা চলছে। উল্লেখ্য- পরিকল্পিত মারপিটে মিনারা বেগমের ৪ হাত-পা ভেঙ্গে যায়।

এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট থানায় মামলা দায়ের করার জন্য অভিযোগ দাখিল করা হয়। কিন্তু সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশ মামলাটি রেকর্ড না করায় এবং আসামিদের ভয়ে উল্লেখিত স্কুল মাস্টার নিজ বাড়িতে অবরুদ্ধ অবস্থায় জীবন যাপন করছে। এই সংবাদ পেয়ে গাইবান্ধার মানবাধিকার কর্মী সহ বেশ কয়েকজন গণমাধ্যম কর্মি  সরেজমিনে গিয়ে ঘটনার সত্যতা পান।

এ ব্যাপারে শান্তিরাম ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মৌলানা সামিউল ইসলাম জানান, ঘটনা সমন্ধে আমি শুনেছি এবং ভিকটিম মিনারা বেগমকেও দেখেছি। এই ঘটনা এতই প্রকট আকার ধারণ করেছে, যা আমার মিমাংসা করে দেয়া সম্ভব নয়। ভিকটিম যাতে ন‍্যায় বিচার পায়, সেজন্য আমিও সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...