আজ ১৭ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৩১শে জানুয়ারি, ২০২৩ ইং

গোবিন্দগঞ্জে কোনভাবেই থামানো যাচ্ছেনা বালুদস্যুদের দৌরাত্ন।

গোবিন্দগঞ্জ  প্রতিনিধি: গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে কোনভাবেই থামানো যাচ্ছেনা বালুদস্যুদের দৌড়াত্ন। উপজেলার সচেতন মহলের আবেদন-নিবেদন, মানববন্ধন, স্মারকলিপিপেশ সহ উপজেলা প্রশাসনের অভিযান এবং মোবাইল কোটের মাধ্যমে সাজা দেয়া হলেও কোন তোয়াক্কা করছেনা বালুদস্যুরা। উপজেলার বিভিন্নস্থানে অবৈধভাবে ভূগর্ভস্থ বালু উত্তোলন করে অবৈধ বালুদস্যুরা এদিকে যেমন বিপুল অর্থ সম্পদের মালিক হচ্ছে অন্যদিকে পরিবেশ ও ভূমিশ্রেণির দ্রুত পরিবর্তন ঘটছে ।

সরেজমিনে বিভিন্ন এলাকা ঘুরে জানাগেছে, গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার ১৭টি ইউনিয়নের প্রায় শতাধিক পয়েন্টে অবৈধভাবে শ্যালো মেশিনের সাহায্যে দেশের প্রচলিত আইন ও প্রশাসনের তোয়াক্কা না করেই প্রভাবশালী বালুদস্যুরা ভূগর্ভস্থ বালু উত্তোলন করছে। এদের বেশীরভাগ বালুদস্যুর উপরেই রয়েছে কোন না কোন প্রভাবশালীর ছত্রছায়া। এতে একদিকে যেমন আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হচ্ছে বালুদস্যুরা, অন্যদিকে গুরুত্বপূর্ণ হাইওয়ে সহ বিভিন্ন সড়ক ও বড় স্থাপনা হুমকীর সন্মূখীন হয়ে পড়ছে। বহু এলাকায় নির্বিচারে ভূগর্ভস্থ বালু উত্তোলনের ফলে বহু আবাদি জমি ধ্বসে গিয়ে দ্রুত ভূমি শ্রেণির পরিবর্তন ঘটছে।
অনেক সচেতন মানুষের ধারণা, অভিলম্বে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলাকে বিপর্যয়ের হাত থেকে রক্ষায় এসব অবৈধ বালু উত্তোলনকারীদের কঠোভাবে নির্মূল করা জরুরী হয়ে পড়েছে। উপজেলার ১৭টি ইউনিয়নের বিভিন্ন বড় ব্রীজ ও স্থাপনার আশেপাশে স্থাপন করা হয়েছে বালু তোলার মেশিন। প্রতিদিন বিপুল পরিমাণ ভূগর্ভস্থ বালু উত্তোলনের ফলে ঝুকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে অনেক স্থাপনা। উপজেলার কাটাখালী এলাকায় করতোয়া নদীতে ভাসমান মেশিন বসিয়ে বেশ কয়েক বছর থেকে বালু উত্তোলনের ফলে কাটাখালী ব্রীজটি ধ্বসে যাওয়ার ঝুকিতে রয়েছে। পাশর্^বর্তী বড়দহ এলাকায় গোবিন্দগঞ্জ-গাইবান্ধা সড়কের বড়দহ সেতু এলাকায় প্রভাবশালী একব্যক্তির নামভাঙ্গিয়ে দীর্ঘদিন যাবত অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে মোটা টাকা আয় করছে স্থানীয়ভাবে সমাজসেবক পরিচয়দানকারী এক ব্যক্তি।
উপজেলার মহিমাগঞ্জ ইউনিয়নের দেওয়ানতলা ব্রীজ এলাকায় স্থানীয় বোচাদহ গ্রামের কয়েকজন স্বার্থন্বেষী ব্যক্তি বাঙ্গালী নদীতে ভাসমান শ্যালো মেশিন স্থাপন করে বেশ কয়েক বছর যাবত অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে বিক্রি করে আসছে। এই এলাকায় বাঙ্গালী নদীর উপর অবস্থিত একটি বৃহৎ রেলসেতু এবং দুইটি বৃহৎ সড়কসেতুর ভবিষ্যৎ নিয়ে শংকিত হয়ে পড়েছেন স্থানীয় সচেতন মানুষ।
উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বহুবার অভিযান পরিচালনা করে বালু উত্তোলনের মেশিন ও সরঞ্জাম ধ্বংস করা সহ বালু ব্যবসায়ীদের ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে জেল জরিমানা করা হলেও তা থামানো যাচ্ছেনা বালু উত্তোলন। গত বুধবার উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নাজির হোসেনের নেতৃত্বে অভিযান পরিচালনা করে ঢাকা-রংপুর মহাসড়কের হাওয়াখানা নামকস্থানে অভিযান চালিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের দায়ে ৩জনকে আটক করে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে প্রত্যেককে ১ লক্ষ টাকা করে জরিমানা করা হয়। এছাড়াও উপজেলার সমসপাড়া ও তালুককানুপুর গ্রামে অভিযান চালিয়ে ড্রেজার মেশিন সহ বিভিন্ন সরঞ্জাম জব্দ করা হয়। এসময় বালু উত্তোলনের সাথে জড়িতরা পালিয়ে গেলে তাদের নামে গোবিন্দগঞ্জ থানায় পৃথক দুটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার রামকৃষ্ণ বর্মন কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, গত ১০ দিনে বালুদস্যুদের বিরুদ্ধে বেশ কয়েটি অভিযান পরিচালনা করে ৭ লক্ষ টাকা জরিমানা করা হয়েছে এবং প্রায় ৩০টি মেশিন ও অন্যান্য সরঞ্জাম জব্দ ও ধ্বংস করা হয়েছে। ইতিমধ্যে কয়েকটি মামলা হয়েছে এবং আরও কয়েকটি মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। বালুদস্যুরা প্রভাবশালী হওয়ায় প্রশাসনের অভিযানের পরেও তাঁরা নতুন করে পুনরায় বালু উত্তোলন শুরু করায় অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধ করা সম্পূর্ণরূপে বন্ধ করা সম্ভব হয়নি। তবে অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধে ইতোমধ্যে উপজেলার সকল অবৈধ বালু কারবারীদের কাছে বালু উত্তোলন বন্ধের নির্দেশ দেয়া হয়েছে এবং অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধে প্রশাসনের পক্ষ থেকে অভিযান অব্যহত থাকবে বলে তিনি আরও জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...