আজ ১৭ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৩১শে জানুয়ারি, ২০২৩ ইং

পলাশবাড়ি উপজেলা  জাতীয় শ্রমিকলীগের যুগ্ন আহবায়কের দায়িত্ব পেলেন শ্রমিক দলের সাবেক যুগ্ন সাধারন সম্পাদক

বিশেষ প্রতিনিধি: জাতীয় শ্রমিকলীগ গাইবান্ধা জেলার সভাপতি খাইরুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক শুধাংশু কুমার রায়ের স্বাক্ষরিত দলীয় পত্রে পলাশবাড়ী উপজেলা শাখার ২১ সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটি অনুমোদন করা হয়েছে।

দলীয় পত্র মতে জানানো হয় সংগঠনটি চলমান কমিটির মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ায় উপজেলা আওয়ামীলীগের সুপারিশক্রমে নবগঠিত কমিটির অনুমোদন করা হয়েছে৷ ১১ এপ্রিল সোমবার এ কমিটি অনুমোদন করেন জেলা কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক।

এ কমিটির আহবায়ক করা হয়েছে কমিটির সাবেক সভাপতি আবুল কালাম আজাদ সাবু এছাড়াও কমিটিতে ৬ জন কে যুগ্ন আহবায়ক ও বাকি ১৪ জন কে সদস্য করা হয়। এ কমিটি ১ নং যুগ্ন আহবায়ক হিসাবে মনোনীত করা হয় সুরুজ হক লিটন কে ।

যিনি গাইবান্ধা জেলা ও পলাশবাড়ী উপজেলা শাখার জাতীয়তাবাদি শ্রমিক দলের সাবেক সক্রিয় সদস্য। যাহার নামে পলাশবাড়ী থানায় একাধিক নাশকতা ও সহিংসতা, পুলিশের উপর হামলার মামলা চলমান রয়েছে। এছাড়া একটি হত্যা মামলার সাজাপ্রাপ্ত আসামী। বিগত সময়ে আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের উপর প্রকাশ্যে হামলা, দলীয় অফিস ভাংচুর, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সফল সভাপতি মরহুম বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব সাকোয়াতজ্জামান বাবু চেয়ারম্যানের উপর হামলাকারীদের সে সময়ের গডফাদারখ্যাত সুরুজ হক লিটন। প্লাবন হত্যা মামলার জেলা দায়রা জজ আদালতের রায়ে যাবজীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামী ও লুপু হত্যা হত্যা মামলার আসামী সে সব মামলা এখনো চলমান।

চতুর এ ব্যক্তি রাজনৈতিক সব আদর্শকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে বর্তমান পলাশবাড়ী উপজেলা জাতীয় শ্রমিকলীগের যুগ্ন আহবায়ক তিনি।

এ বিষয়টি মানতে কষ্ট হওয়া পলাশবাড়ী উপজেলা আওয়ামীলীগের একাধিক সিনিয়র নেতৃবৃন্দ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তারা নব্য আওয়ামীলীগারের অনুপ্রবেশ রোধে ও উক্ত কমিটিকে অবাঞ্চিত ঘোষণা করতে আন্দোলন চালিয়ে যাবেন বলে জানান।

উপজেলা জাতীয় শ্রমিকলীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুজ্জামান প্রান্ত বলেন,বর্তমান কমিটির বিষয়ে জেলা শাখার নেতৃবৃন্দ কোন সমন্বয় করেনি। মনগড়া মতো কমিটি দিয়েছেন।

এবিষয়ে জানতে জাতীয় শ্রমিকলীগের গাইবান্ধা জেলা শাখার সভাপতি খাইরুল ইসলাম  জানান আমাকে উপজেলা থেকে কমিটি দিয়েছে তাই আমি স্বাক্ষর করেছি।  সাধারণ সম্পাদক শুধাংশু কুমার রায় এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তার ব্যবহৃত নাম্বার টি বন্ধ পাওয়া যায়।

এদিকে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি উপাধ্যক্ষ শামিকুল ইসলাম সরকার লিপন চ্যালেঞ্জ করে বলেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে কোন প্রকার সুপারিশপত্র দেওয়া হয়নি। তিনি আরো বলেন, উপজেলা জাতীয় শ্রমিকলীগে যে নব্য অনুপ্রবেশ তা মেনে নেওয়ার মতো নয়। আমরা এর প্রতিবাদ জানাবো এবং উক্ত কমিটির বাতিলের আহবান জানাবো।

উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক তৌহিদুল ইসলাম মন্ডল বলেন, বিষয়টি নিয়ে জেলা আওয়ামীলীগ ও জাতীয় শ্রমিকলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের সাথে আলোচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে জেলা শ্রমিকদলের নেতা কাজী ফকু সাহেবের  সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান  জানান,পলাশবাড়ীর শ্রমিকনেতা সুরুজ হক লিটন জাতীয়তাবাদি শ্রমিকদল গাইবান্ধা জেলা শাখার সহ সাধারণ সম্পাদক পদে ছিলেন। এ ছাড়া পলাশবাড়ীর বিএনপির নেতাকর্মীরা দাবী করেন,তিনি উপজেলা শ্রমিকদলের সদস্য ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...