আজ ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জুন, ২০২৪ ইং

গাইবান্ধা সদর হাসপাতালের রোগিদের খাবারের বরাদ্দ কমিয়ে চলছে টাকার পাহাড় গড়ার প্রতিযোগিতা

বিশেষ প্রতিনিধি: ২ শত গ্রাম পা,রুটির জায়গায়. ৮৫ গ্রাম আর ৩১ কেজি মাংসের জায়গায় ১৩ কেজি এভাবেই চলছে গাইবান্ধা সদর হাসপাতালের রোগিদের খাবার নিয়ে   তেলেসমতি কারবার!

গাইবান্ধা আধুনিক সদর হাসপাতালে কতৃপক্ষের তথ্য মতে অজকের ভর্তি রোগির সংখ্যা ১৮৫ জন।

সেই তথ্যমতে সরকারি ভাবে রোগির মাথা পিছু মাংসের বরাদ্দ ১৭০ গ্রাম এবং সকালের নাস্তায় পা রুটি থাকার কথা ২০০ গ্রাম। অথচ সরেজমিনে  হাসাপাতালের রান্না ঘরে গিয়ে দেখা যায় প্রতিটি ২ শত গ্রাম পা রুটির জায়গায় পাওয়া যায় মাত্র ৯০ গ্রাম।

এ ছাড়া আজকের ভর্তি ১৮৫ জন রোগি মাথা পিছু ১৭০ গ্রাম সরকারি হিসেবে  মাংস থাকার কথা ৩১ কেজি ৪৫ গ্রাম। অথচ রান্না ঘরে আজকে মাংস পাওয়া যায় মাত্র ১২’কেজি ৭ শত ৪৫ গ্রাম।

রান্না ঘরে উপস্থিত ঠিকাদারের প্রতিনিধি দুলাল নামের ব্যাক্তির সাথে কথা বললে তিনি জানান মাংস ড্রেসিং করার ফলে কিছুটা ওজন কমতেই পারে। হাস্যকর এই কথা কতটা মানান সই যে ৩১ কেজি ৪৫’গ্রাম ড্রেসিং করলে যে তা ১২ কেজি ৪৫ গ্রামে আসবে এটি রঙ্গ রস ব্যাতিত অন্য কি হতে পারে? সেই সাথে এটাকে পুকুর চুরি না ডাকাতি বলা যায় তা বোধ গম্য নয়।

হাসপাতালের রান্না ঘরে কর্মরত বাবুর্চি রুবেলের সাথে কথা বললে তিনিও বিষয়টি স্বীকার করে জানান এটা দৈনন্দিন বিষয়, আমরা নিম্ন শ্রেনির কর্মচারি আমরা কিছু বলতে গেলেই দোষ। এই যে আপনাদের সামনে সত্য কথা বললাম এর জন্য না জানি কত হুমকি ধামকি খেতে হবে।

হাসপাতালের রোগিদের হক মেরে টাকার পাহাড় গড়ার কারিগড়দের এমন বিষয় নিয়ে হাসপাতালের তত্বাবধায়ক মাহবুবুর রহমানের সাথে কথা বললে তিনি বিষয়টির সত্যতা স্বীকার করে বলেন বিষয়টি আমি অবগত হয়েছি এবং ব্যবস্থা গ্রহন করব।

এ বিষয় জেলা প্রশাসক মহোদয়ের সাথে মুঠো ফোনে কথা বললে তিনি বিস্ময় প্রকাশ করে  বলেন এটা কি ভাবে সম্ভব? আমি দ্রুত ব্যবস্থা নিব।

উল্লেখ্য গাইবান্ধা আধুনিক সদর হাসপাতালের অনিয়মের ছরাছরির মাঝে সদ্য গত ২৯ সেপ্টেম্বর এম এস আর এর দরপত্র দাখিলের দিনে স্থানিয় এক ঠিকাদার কে দরপত্র দাখিল করতে না দেয়ার চেষ্ঠায় কতিপয় সন্ত্রাসী কতৃক স্থানীয় সেই ঠিকাদের নমুনা বাক্স ছিনতাইয়ের চেষ্টা চালানো হয়। যা তত্বাবধায়কের কক্ষে রাখা সি সি টি ভি র ২৯ তারিখের ফুটেজ দেখলে প্রতিয়মান হবে। সেই সাথে তারা নিয়ম বহি:ভুত ভাবে দরপত্রের নিয়ম নিতি উপেক্ষা করে প্রকৃত দরপত্র দাতা কে বাতিল করে অনৈতিক সুবিধা আদায়ের অপচেষ্টা চালাচ্ছে একটি মহল।

গাইবান্ধা সদর উপজেলার ৪ লক্ষ ৩৭ হাজার ২ শত ৬৮ জন লোকের চিকিৎসা ব্যবস্থার একমাত্র ভরসাস্থল আধুনিক সদর হাসপাতাল আর সেই হাসপাতালের রোগিদের বরাদ্দের টাকা আত্নসাৎ করে জেলার কোন জনগনের উপকার করছেন তারা?  এমন প্রশ্ন এখন সচেতন মহলের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...