আজ ৫ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৮ই এপ্রিল, ২০২৪ ইং

নাইটগার্ড মিন্টু এবং শিক্ষিকা কতৃক সরকারী বই বিক্রির শেষ কোথায়!

বিশেষ প্রতিনিধি: একাধিক বার সরকারি বই চুরি করে বিক্রি করার পরও বহাল তবিয়তে নাইটগার্ড মিন্টু এবং দোসর শিক্ষিকাদ্বয় বীরদর্পে   ঘুরছে কতৃপক্ষের নাকের ডগায়।
সকল প্রমানাদি থাকার পরও কেন কোন কারনে ব্যবস্থা গ্রহন করা হচ্ছে না?

গত ২৮ ফেব্রুয়ারি রাতের আধারে স্কুলের নাইট গার্ড মিন্টু স্কুলের বেশ কিছু বই শহরের পৌর পার্ক এলাকায় নিয়ে বিক্রী করে। বিষয়টি নিয়ে পরদিন মিন্টুর সাথে কথা বলতে গেলে প্রথমে অস্বীকার করলেও পরে বিষয়টি স্বীকার করে জানায় যে প্রতিষ্ঠানের আপারা তাকে বিক্রী করতে দিয়েছে। প্রকৃত অর্থে কোন আপার কথা জানালো এই নাইট গার্ড মিন্টু সেটিও খতিয়ে দেখবে সংশ্লিষ্টরা।

পরবর্তিতে বিষয়টি নিয়ে প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষিকার কাছে গেলে অন্য শিক্ষিকারা জানায় তিনি দুদিনের ছুটিতে রংপুরে অবস্থান করছেন।

একই সময়ে প্রতিষ্ঠানের অন্য শিক্ষিকা এবং সভাপতির সামনে বই বিক্রির বিষয় নিয়ে নাইট গার্ড মিন্টুর সাথে কথা হলে একই ভাবে প্রথমে অস্বীকার করলেও পরে স্বীকার করার পাশাপাশি একাধিকবার বই বিক্রীর কথা স্বীকার করে।

বিষয়টি নিয়ে মুঠো ফোনে প্রধান শিক্ষিকা রাজিয়া সুলতানার সাথে কথা বললে তিনি পাল্টা প্রশ্ন করেন যে কি তথ্য প্রমান আছে সাংবাদিকের কাছে বলে ফোন কেটে দেন।

অথচ মজার বিষয় হলো সেই প্রধান শিক্ষিকাই আবার ৫ মার্চ রাতে শিল্পকলা একাডেমিতে সাংবাদিকদের একটি মিটিং চলাকালীন সময় তার ভাই কে নিয়ে সংবাদ কর্মির সাথে স্বাক্ষাত করে তাকে সংবাদটি প্রকাশ না করার তদবীবর করেন। সেই সাথে তিনি আরো মজার তথ্য দেন যে তিনি ছুটিতে থাকাকালীন দায়িত্বরত সহকারি শিক্ষিকা ও নাইট গার্ড মিন্টু কে দ্বারাও নাকি বেশ কিছু বই বিক্রী করেন।

এমন উপযুক্ত তথ্য প্রমান থাকার পরও প্রধান শিক্ষিকা উর্দ্ধতন কতৃপক্ষকে বিষয়টি না জানিয়ে কোন স্বার্থে দফা রফা করেন?

সারা দেশের ন্যায় গাইবান্ধার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কম বেশি বই চুরির ঘটনা ইতিমধ্যে বিভিন্ন টেলিভিশন পত্র পত্রিকায় প্রকাশিত হবার পর সে সব শিক্ষক কর্মচারির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করা হলেও ব্যতিক্রম যেন গাইবান্ধায়।

শিক্ষা অফিসার হারুন অর রশীদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি সংবাদ কর্মিকেই অভিযোগ দিতে বলে কেন জানি বিষয়টি এড়িয়ে যাবার চেষ্টা করেন।
পরে বিষয়টি জেলা প্রশাসক জনাব অলিউর রহমান কে অবগত করলে তিনি তাৎক্ষনিক শিক্ষা অফিসার কে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ প্রদান করলেও জেলা প্রশাসকের নির্দেশ কে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে কোন ব্যবস্থা গ্রহন না করেই বীরদর্পে ঘুরছে সংশ্লিষ্টরা।
(বিস্তারিত আরো আসছে ২ য় পর্বে)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...