আজ ১৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ৩০শে মে, ২০২৪ ইং

যৌতুকের টাকা না দেয়ায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে স্ত্রীকে হত্যা

বিশেষ প্রতিনিধি: চাকরি দেয়ার কথা বলে প্রেম, পরে ভয় ভীতি দেখিয়ে বিয়ে, শেষে যৌতুকের টাকা না দেয়ায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে হত্যা। এমনি অভিযোগ উঠেছে গাইবান্ধা সদর উপজেলার কুপতলা ইউ পি সদস্য এবং ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা জাহাঙ্গিরের বিরুদ্ধে। তবে স্বজনরা বলছে হত্যা করে আত্নহত্যার নাটক করছে জাহাঙ্গির, সেই সাথে পুলিশও বলছে আত্নহত্যা।

স্থানীয়দের অভিযোগ ইউপি সদস্য হবার সুবাদে চাকরি দেয়ার কথা বলে পরে ভয় ভিতি দেখিয়ে বিয়ে করে শহরের শাপলা মিল এলাকায় একটি বাসা ভাড়া নিয়ে থাকতো জাহিঙ্গির ও শাহিনা।

সেখানেও সময় অসময়ে যৌতুকের টাকার জন্য শারিরিক নির্যাতন করতেন জাহাঙ্গির।

বাধ্য হয়ে শাহীনা তার পিতার বাড়ি থেকে মাঝে মধ্যেই টাকা এনে স্বামীকে সন্তষ্ট করতো। কিন্তু তাতেও সন্তষ্ট ছিলেন না জাহাঙ্গীর মেম্বার । রাত হলেই তার নাকি টাকার দরকার । গত কয়েক দিন ধরে সে মানুষের কাছে নেয়া দেনার টাকা শোধ করতে স্ত্রী শাহীনার কাছে যৌতুকের ৪ লক্ষ টাকা আনতে বলে । এতে সে রাজী না হওয়ায় সে স্ত্রীকে মারপিট করতেন । গত কাল সন্ধ্যায় সে টাকার জন্য স্ত্রীকে চাপ দেয় এবং মারপিট করে। এর পর আবারো গভীর রাতে স্ত্রীকে নির্যাতন করে। স্ত্রী টাকা দিতে না পারায় ব্লেড দিয়ে হাত ও পায়ের রগ কেটে দেয়।

নিহতের ভাই জাফর মিয়া জানায় ,সাজু মিয়ার মেয়ে শাহীনা আকতার। সে রংপুর বেসরকারি প্রাইম নার্স কলেজের শেষ বর্ষের ছাত্রী। গত বছর চাকরি দেয়ার কথা বলে ভুলিয়ে ভালিয়ে তাকে বিয়ে করে একই গ্রামের জাহাঙ্গীর মেম্বার। সে মাদকাসক্ত হিসাবে সবার কাছে পরিচিত। তার শরীরের বিভিন্ন অংশে ব্লেড দিয়ে কেটে দেয় ও হাতে পেরেক লাগিয়ে ফুটো করে দেয়। পরে দরজার চৌকাঠের সাথে শাহীনার রক্তাক্ত দেহ গলায় ওড়না পেচিয়ে ঝুলিয়ে রাখা হয়।এব্যাপারে নিহতের ভাই জাফর মিয়া বাদী হয়ে গাইবান্ধা থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মাসুদ রানা বলেন,  নিহতের শহীরের বিভিন্ন স্থানে ব্লেড দিয়ে কাটা ছেড়া।হাতে পায়ে পেরেক দিয়ে আঘাত করা হয়েছে বলে প্রাথমিক ভাবে ধারনা করা হচ্ছে। জড়িতদের গ্রেফতারের জন্য চেষ্টা করা হচ্ছে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...