আজ ৮ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২২শে জুন, ২০২১ ইং

মামলা তুলে নেয়ার জন্য দফায়-দফায় বাদিনীসহ বাদিনীর পরিবারের উপর হামলা

গাইবান্ধার নারী-শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুানালে যৌতুক লোভী নেশাখোর স্বামী মো. সহিদ সরকার (২৫)সহ তিন সহযোগীর বিরুদ্ধে গৃহবধু মোছা. মামুনী বেগম (২৩) গত ১০ অক্টোবর একটি মামলা দায়ের করেছে (যার জিআর নং-২৫৩/২০১৯)। বাদিনী গত ২০০০ সালের নারী-শিশু নির্যাতন দমন (সংশোধিত/২০০৩) আইনের ১১(ক)/১১(গ)/৩০ ধারায় অত্র থানায় একটি মামলা দায়ের করেন (যার মামলা নং-১২, জিআর নং-২৫৩/১৯)। দায়েরকৃত মামলা তুলে নেয়ার জন্য দফায়-দফায় বাদিনীসহ বাদিনীর পরিবারের উপর হামলাসহ রাস্তা পথে একা পেলে তাদের মারপিট, খুন-জখমের হুমকি প্রদর্শন অব্যাহত রেখেছে আসামীপক্ষ। প্রথমে বাদিনীর কোন অভিযোগ থানায় গৃহীত না হলেও পরবর্তীতে সাদুল্লাপুর থানায় একটি জিডি লিপিবদ্ধ হয় (যার নং-১২১৬, তাং- ২৯/১০/১৯)। 

মামলার বিবরণে জানা যায়, ভিকটিম মোছা. মামুনী বেগম সাদুল্লাপুর উপজেলার ইদিলপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ লক্ষ্মীপুর গ্রামের জাহাঙ্গীর আলমের কন্যা। একই গ্রামের বাসিন্দা মো. সাদেক আলীর সরকারের পুত্র শহিদ সরকারের রেজিষ্ট্রিকৃত বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয় ভিকটিম মামুনী বেগম। গত ২০/০৭/১৫ তারিখে দু’লাখ ৫০ হাজার টাকা দেনমোহরে বিবাহ সম্পন্ন হয়। বিবাহের পর তাদের সংসারে একটি কন্যা সন্তানের জন্ম হয়। বৈবাহিক কালে জামাতাকে নগদ এক লাখ টাকার উপঢৌকন ও স্বর্ণালংকারসহ বিভিন্ন দ্রব্য সামগ্রী উপহার দেন কন্যার পিতা। পরবর্তীতে যৌতুক লোভী নেশাখোর স্বামীর চাপে ট্রাক ক্রয়ের জন্য আরো দু’লাখ টাকার ধার হিসেবে দেন কন্যার পিতা। কিন্তু তা পরিশোধ ছাড়াই পর্যায়ক্রমে নেশাখোর স্বামী তার স্ত্রীকে পিতার কাছ থেকে যৌতুক বাবদ অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের চাপ দিলে তা অস্বীকারের জের ধরে ভিকটিম বাদিনীকে একাধিক দফায় অমানবিক নির্যাতন অব্যাহত থাকে।

মামলার বিবরণে আরো উল্লেখ করা হয়েছে মূল আসামী সহিদ সরকার তার নিজ ভাই জাহিদ সরকার ও অপর সহযোগী আসামী জাইদুলের ছেলে লিমন ছাড়াও আরো অন্যান্য সহযোগী নেশাখোর ইয়াবা মাদকসেবী ও মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ আছে। এরা আপন জ্যাঠা ও চাচাতো ভাই বটে। এদের কুপরামর্শক্রমে মাতাল স্বামী গ্রামের বাড়ি ছেড়ে অসামাজিক আখড়া ও চোরাচালানের অন্যতম ঘাটি ধাপেরহাটে বাসা ভাড়ায় বাদিনীকে নিয়ে বসবাস শুরু করে। সেখানেও বাদিনীকে গৃহবন্ধি করে রেখে যৌতুকের দাবিতে খুন-জখমের ভয়ভীতি প্রদর্শনের একপর্যায়ে বেদম প্রহার করায় গত ১০/০৪/১৯ তারিখে গত ১১/০৪/১৯ পর্যন্ত পলাশবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীনে থাকা এবং পরবর্তীতে ২৭/০৯/১৯ তারিখে ২-৩ আসামীর বাড়ীতে নিয়ে গিয়ে ১নং আসামী দু’লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে মারডাংসহ ধারালো চাকু দিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। বাদিনীর চিৎকার ও কান্নাকাটিতে তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে তার গলায় দড়ি পেচিয়ে ১-৩ নং আসামীরা দু’দিক থেকে টানাটানি শুরু করে। একপর্যায়ে গলায় ফাঁসের রক্তাক্ত কাটাক্ষতের সৃষ্টি হলে বাদিনীর আর্তনাদ শব্দে প্রতিবেশীরা ঘটনাস্থলে ছুটে এসে নিশ্চিত মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষা করেন। কিন্তু ঘটনা আড়াল করতে আসামীরা থানায় গিয়ে পুলিশকে ভুল ধারনা দিয়ে গত ২৪/০৯/১৯ তারিখে বাদিনীর বিরুদ্ধে একটি মিথ্যা জিডি করে তাকে স্বামীর বাড়ী থেকে বের করে দেয়ার চেষ্টা করে। স্থানীয় লোকজনের বাধায় পুলিশ এক রাউন্ড ফাঁকা গুলি বর্ষন করেন। এতে লোকজন ছত্রভঙ্গ হয়। বর্তমানে দায়েরকৃত মামলা উঠাইয়া নেয়ার জন্য আসামীপক্ষের দফায়-দফায় হামলার শিকার বাদিনীসহ তার পরিবার নিরাপত্তা হীনতায় ভুকছেন। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...