আজ ৬ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২০শে জুন, ২০২১ ইং

নিজ প্রতিষ্টানে পরিক্ষা কেন্দ্র, প্রধান শিক্ষক যখন পরিদর্শক

নিজ প্রতিষ্টানে পরিক্ষা কেন্দ্র, হেড স্যার দিচ্ছেন গার্ড, দেখার কেউ নেই, নির্ভয়ে মিলে মিশে দেখে শুনে লেখার এমন চিত্র মিললো গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলার জুমারবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয় পিএসসি পরিক্ষা কেন্দ্রে । এই প্রতিষ্টানের শিক্ষার্থীরা অসৎউপায় অবলম্বেন করলেও দেখান  যেন কেউ নেই । কেন্দ্র সচিব কোন পদক্ষেপ না নেয়ায় স্থানীয় অভিভাবক, বিভিন্ন প্রতিষ্টানের শিক্ষক ও সচেতন মহল ক্ষোভ প্রকাশ করেছে ।

গতকাল  সোমবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সাঘাটা উপজেলার জুমারবাড়ী মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দুটি ভবনসহ জুমারবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয় পিএসসি পরিক্ষা কেন্দ্র । পরিক্ষার ২য় দিন সারাদেশের মতো এখানেও বাংলা পরিক্ষা অনুষ্টিত হয়েছে । জুমারবাড়ী মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পিএসসি পরিক্ষার্থীদের সিট নিজ প্রতিষ্টানে দেয়া হয়েছে ।

 তাও আবার একটি রুমেই ছোট্র ব্রঞ্চে ৩ জন  গাদাগাদি করে যে যার পারে দেখে লিখছে। আবার সেই প্রতিষ্টানের প্রধান শিক্ষক শরিফুল ইসলাম সোহাগ নিজেই পরিক্ষা পরিদর্শক হিসাবে নিয়োজিত আছেন । মাঝে মাঝে  জানালার ফাক দিয়ে হাতে লেখা নকলও দেয়া হচ্ছে । পরিদর্শকের সামনেই একজন আরেক জনের পরিক্ষার খাতা দেখে লেখার এমন চিত্রে বোঝার উপায় নেই এটি পরিক্ষা কেন্দ্র  যেন চলছে লংকা কান্ড ।সাঘাটা উপজেলা প্রাথমিক সহকারী  শিক্ষা অফিসার পরিতোষ চন্দ্র উপস্থিত থাকলেও রহস্যজনক ভাবে নিরব থাকেন এমন অভিযোগ অভিভাবকরা অনেক আগে থেকেই করে আসেন আর সরেজমিনে গিয়ে  এমন অভিযোগের সত্যতার প্রমাণ মেলে ।

পরে সাংবাদিকের উপস্থিততি টের পেয়ে পরিবেশটা সুন্দর করতে তৎপর হয়ে ওঠেন । তৎক্ষনিক  নকল সরবহরাহকারী সন্দেহে এক যুবক আটক করেন । নাম প্রাকাশের অনিচ্ছুন পরিক্ষা পরিদর্শক এক শিক্ষক জানান, আমরা চাইলেও পরিবেশ নিয়ন্ত্রন করতে পারি না । কারন শিক্ষা অফিসার পরিতোষ চন্দ্র  ও প্রধান শিক্ষক শরিফুল ইসলাম সোহাগ বারবার বলেন “যে যার মতো পারে লিখুক আপনারা ডির্স্টাব করবেন না ।

সিট প্লান ও পরিক্ষার পরিবেশ নিয়ে  সাঘাটা উপজেলা প্রাথমিক সহকারী শিক্ষা অফিসার পরিতোষ চন্দ্রের সাথে কথা বললে তিনি বিষয়টি এড়িয়ে চলেন এবং  পরিক্ষা কেন্দ্র সচিবের সাথে যোগাযোগ করতে বলেন । বিষয়টি নিয়ে জুমারবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয় পিএসসি পরিক্ষা কেন্দ্রের সচিব সুজাউদ্দৌলার’র সাথে কথা বললে , তিনি বলেন ভালভাবে পরিক্ষা দেয়ার জন্য সবধরনের ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে । তাই তাদেও পরিক্ষায় ডিষ্টার্ব না করাই ভাল আপনারাও এমন কিছু লিখেন না যেন তাদের ক্ষতি হয় ।

বিষয়টি নিয়ে সাঘাটা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আজিজুল ইসলামের সাথে কথা বলতে তিনি জানান, পরিক্ষার পবিবেশ ও সিট প্লান নিয়ে কেন্দ্র সচিবকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে । নিওমের বাহিরে কোন কাজ হলে আমরা ব্যবস্থা নিব ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...