আজ ১লা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৫ই জুন, ২০২১ ইং

নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে চলছে ইট ভাটা গুলো

গাইবান্ধা জেলায় চলা ইট ভাটার মাঝে  অবৈধ ইটভাটার সংখ্যা অনেক বেশী। এসব ইটভাটা শুধুমাত্র ইউনিয়ন পরিষদ হতে ইটভাটা ব্যবসার লাইন্সেস নিয়েই কিংবা জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে এল আর ফান্ডে নাম মাত্র টাকা জমা দিয়ে দেদারছে  চলছে। আর আয়কর দিয়েই পেয়েছে এই অবৈধ ভাবে গড়ে তোলা প্রতিষ্ঠান গুলোর প্রতারণার ব্যবসার বৈধতা।

 

এসব ইট তৈরীতে নেই যেমন কোন উপাদান মাটি বালু পানি পরিমানের অধিকা ব্যবহার করে পুড়িয়ে হয়ে যাচ্ছে ইট। এসব ইটের মাপেও আছে নানা গড়মিল।

তবুও জেনে শুনে এসব পোড়া মাটির দলা কে ইট হিসাবে ক্রয় করে প্রতারিত হচ্ছে ক্রেতা সাধারণ। এসব ইট তৈরীর মাটি সংগ্রহে যেমন আবাদী জমি কেটে করা হয় তেমনি মাটি পরিবহনের ফলে উপজেলার কাচা রাস্তাঘাট গুলোর বেহালদশায় পরিণত হয়েছে। বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধ গুলো রয়েছে ব্যাপক ঝুঁকিতে।

 

 জেলায় ৩০০ টির   বেশী ইটভাটা থাকলেও অনুমোদন প্রাপ্ত ইটভাটা হাতে গোনা কয়েকটি বাকি ইটভাটা গুলোর পরিবেশ ছাড় পত্র না পাইলেও বীরদর্পে চলছে ইটভাটা গুলো। তেমনি নিত্য নতুন ভাবে আবাসিক এলাকার নিকটে ও আবাদী জমিতে গড়ে উঠছে এসব ইটভাটা।

সরকার প্রধান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বারবার যে ঘোষণা দিচ্ছেন তা এ মানা হচ্ছে না। আবাদী জমি নষ্ট না করতে যেখানে শিল্পকলকারখানা নির্মাণ বন্ধ সেখানে নিত্য নতুন ইটভাটা হয় কি করে।

পলাশবাড়ি উপজেলার মহদীপুর ইউনিয়নের গড়েয়া নামক স্থানে বসতবাড়ীর পাশে আবাদী জমিতে ইটভাটা নির্মাণ করছেন আমিনুল ইসলাম। এর আগে বিভিন্ন স্থানে এসব ইটভাটা বন্ধে দুই একটা অভিযান চালানো হলেও পুর্ণরায় সে সব ইটভাটা অদৃশ্য ইশারায় চালু হয়।

উল্লেখ্য, এভাবে আর কতদিন চলবে আবাদি জমি নষ্ট করে ইটভাটা নির্মাণ ও ইটভাটা গুলোর অবৈধ কার্যক্রম সংশ্লিষ্টদের নিরবতায় প্রমাণ করে ম্যানেজ প্রক্রিয়ায় সব সম্ভব।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...