আজ ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৭শে মে, ২০২২ ইং

চেম্বারে চেম্বারে নোটিশ-চিকিৎসা বন্ধ, সুরক্ষা ব্যবস্থা চান ডাক্তরা

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: চট্টগ্রামের পটিয়া থেকে চার বছরের শিশু সায়েমকে নিয়ে অনেক কষ্টে শহরে এসেছেন ওয়াজেদ। ছেলের ভীষণ জ্বর, সাথে বমি। প্রথমে গিয়েছিলেন আন্দরকিল্লা জেনারেল হাসপাতালে। অনেক ঝক্কি ঝামেলা শেষে ওষুধ দিয়ে ডাক্তাররা বলেছে বাসায় চলে যেতে। অসুস্থ ছেলেকে নিয়ে উঠেছেন শহরে চকবাজারে ভাইয়ের বাসায়। কিন্তু তিনদিনেও সায়েমের জ্বর না কমায় তার চাচার বাসায় সবাই তাদের করে রেখেছে একঘরে। ছেলেকে সাথে নিয়েই ওয়াজেদ গত দুইদিন ঘুরেছেন শহরের ডাক্তাদের প্রাইভেট চেম্বারে। সব চেম্বারে গিয়ে দেখেন নোটিশ, আর তাতে লেখা ‘জ্বর, সর্দি, কাশি, বুক ব্যথা নিয়ে চেম্বারে আসবেন না। এখন রোগী দেখা বন্ধ’, আবার সাময়িক এই অসুবিধার জন্য তারা দুঃখ প্রকাশও করেছেন। এইভাবেই ছেলকে নিয়ে তার কষ্টের কথা বর্ণনা করছিলেন ওয়াজেদ। চট্টগ্রাম নগরের প্রায় প্রতিটি প্রাইভেট চেম্বার আর বেসরকারি হাসপাতালের এটাই একমাত্র চিত্র। সেই সাথে ঋতু পরিবর্তনের এই সময়ে জ্বর, সর্দির রোগীও বেড়েছে। কিন্তু করোনার ভয়ে তাদের চিকিৎসা নেই কোথাও। সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে হার্টের রোগীদের। আগের প্রেসকিপশন সাথে না থাকলে হার্ট এটাকের রোগীরা শ্বাস কষ্ট আর বুকে ব্যথা নিয়েও নতুন করে ডাক্তার দেখাতে বা হাসপাতালে ভর্তি হতে পারছেন না। কারণ করোনা রোগের অন্যতম লক্ষণ শ্বাস কষ্ট! এদিকে পিপিই (পারসোনাল প্রটেকটিভ ইকুইপমেন্ট) ছাড়া সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা দিতে গিয়ে ঝুঁকির মধ্যে পড়তে হচ্ছে চিকিৎসক, নার্স ও রোগীর সেবায় জড়িত অন্যান্যদের। পর্যাপ্ত চিকিৎসা না পেয়ে হাসপাতাল ছাড়ছেন সাধারণ রোগীরা। বিভিন্ন হাসপাতালে সর্দি-কাশি নিয়ে আসা রোগীদের চিকিৎসা বন্ধই করে দেওয়া হয়েছে। নগরীর ডাক্তার পাড়াখ্যাত চকবাজার, জামালখান, গোলপাহাড় মোড়ের প্রায় সব প্রাইভেট ক্লিনিক আর চেম্বারের যেন একই চিত্র। কোথাও নেই চিকিৎসক তাই নেই রোগীও! সিএসসিআর, ম্যাক্স, শেভরন, বেলভিউ হাসপাতাল ঘুরে দেখা গেছে শুধু গায়নীর ডাক্তার ছাড়া বেশিরভাগ হাসপাতাল আর চেম্বারে নেই অন্য রোগের ডাক্তাররা। ডাক্তাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, তারা কেউ চিকিৎসা দিতে চান না ব্যাপারটা তেমন নয়। তবে এখনো তাদের কাছে পর্যাপ্ত পরিমাণ স্বাস্থ্য সুরক্ষার কোন সরঞ্জাম বেসরকারি হাসপাতল গুলো বরাদ্দ দেয়নি। বাজারেও যেসব পিপিই পাওয়া যাচ্ছে সেগুলো হু (বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা) নির্দেশিত মানেরও নয়। তাই নিজেদের ঝুঁকি নিয়ে চিকিৎসা তারা করলেও বিপদ রোগীদের আরো বেশি। কারণ কোনো করোনা রোগী যদি তাদের কাছে আসে তাহলে সেই ভাইরাস ডাক্তারদের মাধ্যমে অন্য রোগীদের মধ্যে ছড়াবে। প্রায় আট হাজার ডাক্তারের চট্টগ্রামে চট্টগ্রামে সরকারি-বেসরকারি ১০টি বড় হাসপাতালের পাশাপাশি ক্লিনিক আছে অন্তত পাঁচশ। সরেজমিনে কয়েকটি বেসরকারি হাসপাতল আর চেম্বার ঘুরে দেখা গেছে, রোগী এবং চিকিৎসক উভয়ের সংকট! শেভরনে প্রতিদিন তিন হাজার রোগীর টেস্ট হত এখন সেখানে এখন পরীক্ষা হচ্ছে গড়ে একশরও নিচে। সি এস সি আর এ গতকাল জরুরী বিভাগে রোগী ছিল মাত্র ৬০ জন। আর ব্যক্তিগত চেম্বারে রোগী ছিল ৫২ জন। তাদের মধ্যে ৩৭ জন প্রসূতি সংক্রান্ত এবং বাকিরা গ্যাস্ট্রলজির জন্য ডাক্তার দেখিয়েছেন। অনেকক্ষণ হাসপাতাল গুলোতে অপেক্ষা করে দেখা গেছে অন্য রোগীদের ফেরত যাওয়ার করুণ দৃশ্য। এই যখন পরিস্থিতি তখন সমাধান কোথায়! বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল ইকবাল নিউজনাকে বলেন, ডাক্তারা চিকিৎসা দিচ্ছে না এইটা ভুল কথা। নগরের কোথাও কোনো হাসপাতাল চেম্বার বন্ধ নেই। আমি নিজে চেম্বারে বসে আছি। কিন্তু রোগী নেই। লকডাউন পরিস্থিতিতে রোগী আসবে কি করে! তিনি প্রশ্ন করেন, এই পরিস্থিতিতে আপনারা পত্রিকা বিক্রি করতে পারছেন? তিনি বলেন, আমরা বিএমএ থেকে ১১৪ জনের ডাক্তারের নাম্বার সহ নামের তালিকা দিয়েছি। সবাই রোগী দেখছে। সুতরাং রোগী সেবা পাচ্ছে না এই প্রচারণা ডাক্তারদের বিরুদ্ধে একটা ষড়যন্ত্র। তবে সরকারি উদ্যোগে প্রাইভেট হাসপাতাল গুলোয় পিপিই পেলে ভালো হত জানিয়ে তিনি বলেন, আমরা বিএমএ এর উদ্যোগে ১৪শ টাকা করে অনেকগুলো পিপিই কিনে ডাক্তারদের দিচ্ছি। কিন্তু আমার সন্দেহ এই পিপিই গুলো নট আপ টু দা মার্ক। এইগুলো পড়ে আদৌ করোনা চিকিৎসা শতভাগ দেওয়া সম্ভব কিনা আমি সন্দিহান বলেন ডা. ফয়সাল। বেসরকারি হাসপাতাল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ডা. লিয়াকত আলী খান নিউজনাউকে বলেন, নিয়ম অনুযায়ী চিকিৎসকদের ব্যক্তিগত চেম্বার ও প্রাইভেট হাসপাতাল চালু রয়েছে। কিছু চিকিৎসক বিভিন্ন কারণে ছুটিতে রয়েছেন, তাই তাদের চেম্বার বন্ধ রয়েছে। তবে হাসপাতালে এবং চেম্বারে হটলাইন চালু করেছি। হটলাইনেই পরামর্শ দিচ্ছি রোগীদের। এছাড়া তো কিছু করার নাই। এখন রাস্তাঘাট বন্ধ। সবাই হোম কোয়ারেন্টাইন আছে। তাই রোগী নেই বলেও তিনি জানান। এই পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের পক্ষ থেকে এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, কোনও হাসপাতাল যদি রোগীকে প্রাথমিক বা জরুরি চিকিৎসা অথবা নতুন রোগীকে ভর্তি করাসহ চিকিৎসাসেবায় যথাযথ ব্যবস্থা না নেয় তাহলে ভুক্তভোগীকে তাৎক্ষণিকভাবে বিষয়টি সেনাবাহিনী বা ওসিকে জানাতে পারবে। চিকিৎসাসেবার ব্যত্যয় ঘটলে সংশ্লিষ্ট হাসপাতালের রেজিস্ট্রেশন বাতিল, লাইসেন্স বাতিলসহ অন্যান্য আইনানুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবেও সেই বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...