আজ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৫শে জুন, ২০২২ ইং

রংপুরে সন্ধ্যা আইন জারি


রংপুর প্রতিনিধি: করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে রংপুর নগরীতে সন্ধ্যে আইন জারি করেছে মেট্রোপলিটন পুলিশ। প্রতিদিন বিকেল পাঁচটা থেকে পরদিন সকাল ছয়টা পর্যন্ত নিত্য প্রয়োজনীয় সব ধরনের দোকানপাট ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখতে মাইকিং করা হয়েছে। এছাড়া সামাজিক দ্রুত ধরে রাখতে র‍্যাব, পুলিশ, সেনাবাহিনী ও জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান অব্যাহত আছে।
বুধবার সকালে রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ আব্দুল আলিম জানিয়েছেন, মানুষকে ঘরবন্দি করতে ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে নানা ধরনের পরিকল্পনা বাস্তবয়ন করা হচ্ছে। কিন্তু প্রশাসনের উপস্থিতি পেলে সাধারণ মানুষ আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়। আর চোখের আড়াল হলেই বেড়ে যায় মানুষের চলাচল। ভুলে যায় করোনার মরণ ছোবল। তিনি বলেন রংপুর নগরীর সব শ্রেণী পেশার মানুষকে ঘরে থাকতে বিশেষভাবে অনুরোধ করে মাইকিং করা প্রতি মূহুর্তে। মানুষের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কেনাকাটায় নগরীর ৩৩ টি ওয়ার্ডে মোবাইল দোকান স্থাপন করা হয়েছে। মেট্রোপলিটন পুলিশের হটলাইনে ফোন করলে চাহিদা অনুযায়ী প্রয়োজনীয় নিত্যপণ্য পৌঁছে যাবে ক্রেতার বাড়িতে। ওষুধ থেকে শুরু করে সবধরনের ভোগ্যপণ্য সরবরাহ করবে এই মোবাইল দোকান।এরপরেও মানুষ সচেতন হচ্ছেনা। তাই বাধ্য হয়েই এই সন্ধ্যে আইন জারি করা হয়েছে। এছাড়া ওপরের নির্দেশ পেলেই নগরিতে প্রবেশ পথ বন্ধ করার পরিকল্পনার কথাও জানান তিনি।
এদিকে সামাজিক ও শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখতে রংপুর নগরীসহ জেলার ৮ উপজেলায় পৃথক ভাবে কাজ করছে পুলিশ সেনাবাহিনী ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ কমিটি ও জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত। জেলা প্রশাসক আসিব আহসান জানিয়েছেন, নিত্যপণ্যের বাজার স্বল্পমূল্যে চাল, আটা ও টিসিবির পণ্য বিক্রিতে স্বচ্ছতা বজায় রাখতে প্রশাসন সহ আইন শৃঙ্খলা বাহিনী একসাথে কাজ করছে। জনসমাগম রোধে এজন্য বিকেল পাঁচটার পর জেলার সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার পরিপত্র জারি করা হয়েছে । তিনি বলেন, দিন আনি দিন খাওয়া মানুষ সহ নিম্নবিত্ত মানুষদের জন্য পর্যাপ্ত খাদ্য দিয়েছে সরকার।জেলার ৮-উপজেলা, ৩ পৌরসভা ও একটি সিটি কর্পোরেশনের জন্য ৬শ’মেট্রিক টন চাল ও ২৭ লাখ টাকা বরাদ্দ দিয়েছে সরকারের ত্রাণ ও পুনবার্সন মন্ত্রণালয়। এছাড়াও ব্যক্তি ও সামাজিক সংগঠনের উদ্যোগে জেলার বিভিন্ন এলাকায় প্রায় ২০ লাখ টাকা মূল্যের খাদ্য সহায়তা দেয়া হয়েছে।
পুলিশ সুপার বিপ্লব কুমার সরকার জানিয়েছেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতায় কিছুটা হলেও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা সম্ভব হচ্ছে। কিন্তু উপজেলা শহর ও গ্রামের মানুষদের মাঝে নেই করোনা ভীতি। তাই সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে উপজেলার প্রবেশ পথগুলো চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষকে প্রয়োজন ছাড়া অহেতুক সড়কে চলাচল কারীদেরকে ঘরমুখো করছে পুলিশ। তিনিও দরিদ্র ও দিন আনি দিন খাওয়া মানুষদের নানা ভাবে খাদ্য সহযোগিতা করছেন।
এদিকে রংপুর নগরীর কটকি পাড়া, ইঞ্জিনিয়ার পাড়া, জুম্মাপাড়া, বাবুপাড়া সহ বেশ কিছু পাড়া-মহল্লাযর বাসিন্দারা নিজ উদ্যোগে বাঁশ দিয়ে বেরিকেট তৈরি করে সড়কের প্রবেশ পথগুলো বন্ধ করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...