আজ ৩রা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং

মামলার বাদীকে ফাঁসাতে নিজ পুকুরে বিষ প্রয়োগ

,গাইবান্ধা প্রতিনিধি:  গাইবান্ধা সদর উপজেলার কিশামত মালিবাড়ী মধ্যপাড়া গ্রামে মুনছুর আলীর পুত্র রেজাউল করিম গংদের সাথে পাশ্ববর্তী মৃত আব্দুল খালেকের পুত্র সামছুল ও আবুল হোসেন গংদের জমি-জমা সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছিল। কিছু দিন পূর্বে আবুল হোসেন গংরা তাদের একটি পুকুরে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করার ফলে চার পাশের বসত বাড়ির জায়গা ভেঙ্গে পুকুরটি সম্প্রসারিত হয়।

গত ১৪/০৪/২০২০ইং তারিখে রেজাউল গংরা তাদের ভেঙ্গে অংশের জায়গায় পায়খানা দেয়ার জন্য একটি কুপ খনন করেন। এতে সামছুল হক গংরা বাঁধা প্রদান করেন। এক পর্যায়ে স্থানীয় ভাবে বিষয়টি নিষ্পত্তির লক্ষে সার্ভেয়ার দ্বারা পুকুরটি পরিমাপ করে সীমানা নির্ধারণ করলে প্রতিপক্ষ আবুল হোসেন গংরা তা অস্বীকার করেন এবং অতর্কিত ভাবে লাটি ছোরা ও বিভিন্ন অস্ত্র সন্ত্র দ্বারা আক্রমন করে মারপিটের ঘটনা ঘটান। এতে ফরিতন নেছা নামে এক মহিলা গুরত্বর আহত হয়ে গাইবান্ধা আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি হন। এঘটনায় রেজাউল করিম বাদি হয়ে গত ১৬/০৪/২০২০ইং তারিখে মৃত আব্দুল খালেকের পুত্র সামছুল হক, আবুল হোসেন, শাহজামাল, মফিজল হক, আব্দুল হোসেনের পুত্র ময়নাল হক, আতিকুর, মশিউর ও সামছুলের পুত্র রাজু মিয়াকে আসামী করে গাইবান্ধা সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন
যাহার নং-৪৩।

এছাড়াও পুকুরে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের দায়ে বিচার চেয়ে জেলা প্রশাসক বরাবরে আরও একটি অভিযোগ দায়ের করেন ক্ষতিগ্রস্থ এলাকাবাসী। পুলিশ মামলায় ৫ জন আসামীকে গ্রেফতার করলে তারা জামিনে এসে নানা ভয়-ভীতি ও মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে হয়রানীর হুমকি প্রর্দশন করেন।

এরই ধারাবাহিকতায় প্রতিপক্ষ আবুল হোসেন গংরা আবারও এক মহিলার ঘর-বাড়ি ভাংচুরের ঘটনা ঘটালে পূনরায় থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়। অবস্থার বেগতিক দেখে সুচতুর   আবুল হোসেন গংরা মামলার বাদী ও তার পরিবারের লোকজনদেরকে ফাঁসাতে অভিনব কায়দায় পুকুরে বিষ প্রয়োগ করেন। বিষ প্রয়োগের বিষয়টি খতিয়ে দেখতে গত ০৯/০৫/২০২০ইং তারিখে সরেজমিনে গেলে দেখা যায়, প্রতিপক্ষ আবুল হোসেন গংরা প্রশাসনিক তদন্তের পূর্বেই জেলে ডেকে জাল দিয়ে উক্ত পুকুর থেকে মাছ তোলার দৃশ্য বাদীপক্ষের ধারণকৃত ভিডিওতে দেখা যায়। এর পরও আসামীরা প্রকৃত ঘটনাকে আড়াল করতে বিভিন্ন অপ্রচারসহ মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে হয়রানী করছেন বলে ভূক্তভোগী বাদী রেজাউল করিম এ প্রতিনিধিকে জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...