আজ ৩১শে আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৬ই অক্টোবর, ২০২১ ইং

ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় দোকান ভাংচুর, লুট পাটের ঘটনার ১ সপ্তাহেও মামলা দায়ের হয়নি! নিরাপত্তাহীনায় বাদী

নিজস্ব প্রতিবেদক:সদর উপজেলার দারিয়াপুরে এক গৃহবধূকে ইভটিজিং এর অভিযোগ পাওয়া গেছে।
তবে ঐ নারী কুপ্রস্তাপে রাজি না হওয়ায় ও প্রতিবাদ করায় তার দোকান ঘরে হামলা, মালামাল লুট ও তার পরিবারের সদস্যদের মারপিটের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

থানার এজাহার ও বাদীর অভিযোগ সুত্রে জানা যায়,কিশামত মালিবাড়ী (ব্যাপারি পাড়া) গ্রামের জাহাঙ্গীর মিয়ার স্ত্রী আজিনুর বেগমকে বিভিন্ন সময় যৌন হয়রানী করাসহ বাজে কথাবার্তা বলে কুপ্রস্তাব দেয় একই গ্রামের নারী লোভী মো: জহির তসিলদার।

পরে আজিনুর বেগম স্থানীয় লোক জন দিয়ে জহির তসিলদার কে নিষেধ করতে বললে জহির তসিলদার তারপরও বাদি আজিনুর বেগমকে যৌন হয়রানী করতে থাকেন।

এছাড়ারাও আজিনুর বেগম কেন লোক জনকে কুপ্রস্তাবের কথা জানালেন সে জন্যে বিভিন্ন হুমকি ধামকি দিয়ে আসাকালে গত ৮ই মে ২০২০ইং বিকাল অনুৃমানিক ৩.০০ ঘটিকায় আসামী ১. জহির তসিলদার পিতা ওয়াজে মিস্ত্রী ২. জাহিদুল মিস্ত্রী পিতা খুজিয়া মিস্ত্রী ৩.মো লিমন মিয়া পিতা মো মহির কসাই, ৪. ওয়াসিম মিয়া পিতা মো জহির তসিলদার সর্ব সাং দারিয়াপুর ৫. আবুল হাসনাত পিতা মৃত্যু জবেদ আলী ৬.শরিফ মিয়া পিতা মো সাদা মিয়া ৭. আরমান মিয়া পিতা মৃত্য আফজাল হোসেন ৮. মো মহসিন মিয়া পিতা একে এম আজাদ ৯.মো আল- আমিন পিতা মো হোসেন আলী সর্ব সাং পশ্চিম কোমল দশানি সকলের থানা ও জেলা গাইবান্ধা সহ অজ্ঞাত নামা ৭/৮ জন আসামিগন হাতে লাঠি লোহার রড, শাবল ইত্যাদি দেশীয় মারাত্মক অস্ত্র দিয়ে বাদী আজিনুর এর ছেলের দোকান ঘরে অনাধিকার প্রবেশ করে দোকান ঘর ভাংচুর করে।

এছাড়ারাও দোকানের মালামাল ছড়াছড়ি ছিটিয়ে প্রায় ৯০ হাজার টাকার ক্ষতি সাধান করে। এদিকে মোছাঃ আজিনুর বেগম এর পুত্র মো আয়নাক হক তাতে বাধা দিলে নারী লোভী জহির তসিলদারের হুকুমে আসামীগন উক্ত আয়নাল হককে মারপিট করে জখম করে।
এতে করে স্থানীয় মো লালটু মিয়া বাধা দিলে ২ নং আসামি তার হাতে থাকা ধারালো ছোরা দিতে হত্যার উদ্দেশ্য লালটু মিয়ার মাথায় চোট মেরে গুরুতর রক্তাক্ত হাড় কাটা জখম করে।
এছাড়ারাও বাদীর পুত্রবধু, মো আয়নাক হকের স্ত্রী মোছা: বিথি বেগম বাধা দিলে ৬ নং আসামি তারও তল পেটে লাথি মেরে ফেলে দেয় এবং ৭ নং আসামী বিথির বুকের উপর বসে গলা টিপে ধরে শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা করে আর ৮ নং আসামি লোহার রড দিয়ে বিথির শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করলে তার ছেলা ফুলা জখম হয়।

আসামিদের মারপিটের ফলে উক্ত বিথি বেগম ঐ সময়ে অজ্ঞান হয়ে মাটিতে পরে যায় এবং রক্তক্ষরণ হতে থাকে।

৯ নং আসামি বিথির গলায় থাকা আট আনা ওজনের স্বর্ণের চেইন যার মুল্য ২৪ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয় এ ছাড়ারাও ১ নং আসামী বাদির কাপড় টানা হেচড়া করে শ্লীলতাহানী ঘটায় বলে জানাগেছে।
এছাড়ারা আসামীরা স্বর্ণ অলংকার দোকানের টাকা পয়সা ও কিছু মালামাল লুট  করে নেয়।
ঘটনায় শোড়গোলে বাজারের লোক জন এগিয়ে এসে ৫ নং ও ৯ নং আসামীদের আটক করে। পরে স্থানীয় লোক জনের সহায়তায় আহত ব্যক্তিরা গাইবান্ধা সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়।

তবে এ ঘটনার এক সপ্তাহ অতিবাহিত হলেও এখন পর্যন্ত কোন আসামীকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি সদর থানা পুলিশ। এমন কি মামলাও হয়নি এখন পর্যন্ত।
এদিকে আসামীরা বাদি পরিবারকে এজাহার প্রত্যাহার করা সহ বিভিন্ন হুমকি ধামকি দিচ্ছে বলে জানায় বাদি পরিবার।
এ ব্যাপারে তদন্তকারী কর্মকর্তা, গাইবান্ধা সদর থানার এস আই মোঃ শরিফ মিয়া বলেন আটককৃতদের ব্যাপারে ঘটনার সত্যতা না পাওয়ায় ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...