আজ ৬ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২০শে জুন, ২০২১ ইং

১৮৬৮৮ পদ বাড়ানোর সুপারিশে অনুমোদন পেল ৩০৫০ পদ

গণ উত্তরণ ডেস্ক : প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের ১৯৮৫ সালে অর্গানোগ্রামে মোট পদ ছিল ছয় হাজার ৯৫৭। বর্তমানে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯ হাজার ৪৬২টিতে। দীর্ঘদিন ধরে মাত্র দুই হাজার ৫০৫টি পদ বেড়েছে। তাও আবার প্রকল্পের মাধ্যমে। এ অবস্থায় অধিদফতরের কাজের প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করে অর্গানোগ্রাম সংস্কার ও জনবল বৃদ্ধিতে অনুরোধ জানায় মন্ত্রণালয়।

মন্ত্রণালয়ের অনুরোধের প্রেক্ষিতে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় এবং অধিদফতর মিলে একে একে ২৫টি বৈঠক করে ১৮ হাজার ৬৮৮ পদ বাড়ানো সুপারিশ করে। কিন্তু অর্থ মন্ত্রণালয় মাত্র তিন হাজার ৫০টি পদের অনুমোদন দিয়েছে। সংসদীয় কমিটির বৈঠক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, সম্প্রতি সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সপ্তম বৈঠকে এ তথ্য তুলে ধরেন বাংলাদেশ পশুসম্পদ ক্যাডারবহির্ভূত কর্মকর্তা-কর্মচারী কল্যাণ সমিতির মহাসচি মো. আফসার আলী।

আফসার আলী বলেন, অধিদফতর ও মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিদের নিয়ে ২৫টি বৈঠক করে ১৮ হাজার ৬৮৮ পদ বাড়ানোর সুপারিশ করা হয়। সুপারিশটি কার্যকর করতে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হলে পরীক্ষাপূর্বক ছয় হাজার ৯৮৪ পদ বাড়ানোর অনুমোদন দিয়ে সেখান থেকে অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। কিন্তু অর্থ মন্ত্রণালয় কোনো আলোচনা ছাড়াই তিন হাজার ৫০ পদ বৃদ্ধির অনুমোদন দেয়।

এ বিষয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ের (অর্থ বিভাগ) অতিরিক্ত সচিব রমেন্দ্র নাথ বিশ্বাস বলেন, দেশের সব মন্ত্রণালয়ের শূন্যপদের চাহিদার ভিত্তিতে অর্থ মন্ত্রণালয় বিচার বিশ্লেষণ ও প্রয়োজনীয়তা অনুভব করে পদসংখ্যা অনুমোদন করে। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের জনবল বৃদ্ধির বিষয়টি বিবেচনা করে অর্থ মন্ত্রণালয় চলতি অর্থবছর সর্বোচ্চ পদ বৃদ্ধি করেছে। নিয়োগ বিধিমালা অনুযায়ী তিন হাজার ১৯৩ পদ আগামী তিন বছরের মধ্যে বাস্তবায়ন করা হবে বলে অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়েছে।

কমিটির সভাপতি ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, জনবল সংকটের কারণে অনেক গুরুত্বপূর্ণ ও জরুরি সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সাধারণ মানুষ। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়কে অন্যান্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে মেলানো উচিত নয়। এ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে গ্রামের মানুষ সরাসরি জড়িত। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে হলে এ মন্ত্রণালয়কে গুরুত্ব দিতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...