আজ ৭ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২১শে জুন, ২০২১ ইং

পলাশবাড়ীর প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে আরএমপি মহিলা নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগের তদন্ত অনুষ্ঠিত

গাইবান্ধা  প্রতিনিধিি:  গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ী উপজেলা প্রকৌশলী তাহাজ্জত হোসেনের বিরুদ্ধে অনিয়ম সেচ্ছাচারিতাসহ একক সিদ্ধান্তে আরএমপি মহিলা নিয়োগের অভিযোগ করা হয়েছে।

মে মাসের প্রথম সপ্তাহে আরএমপি প্রকল্প পরিচালক ঢাকা বরাবরে এই অভিযোগ দাখিল করেন যথাক্রমে উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আনোয়ারা বেগম, কিশোরগাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম রিন্টু, হোসেনপুর ইউপি চেয়ারম্যান তৌফিকুল আমিন মন্ডল টিটু,বরিশাল ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নান সরকার,মহদীপুর ইউপি চেয়ারম্যান তৌহিদুল ইসলাম মন্ডল,বেতকাপা ইউপি চেয়ারম্যান ফজলুল হক,পবনাপুর ইউপি চেয়ারম্যান শাহ আলম ছোট বাবা,ও মনোহরপুর ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান চট্রু,হরিনাথপুর ইউপি চেয়ারম্যান রুহুল আমিন রুশো চৌধুরী।

তারা অভিযোগে উল্লেখ করেন, এই প্রকল্পের আওতায় ৮ টি ইউনিয়নের বিপরীতে ৮০ জন নারী নিয়োগের সরকারি নির্দেশনা পাওয়া যায়।কিন্তু পলাশবাড়ী উপজেলা প্রকৌশলী তাহাজ্জত হোসেন স্বীয় স্বার্থ হাসিলের উদ্দেশ্যে ভাইস চেয়ারম্যান ও ৮ টি ইউনিয়নের কোন ইউপি চেয়ারম্যানদের না জানিয়ে তার ইচ্ছা মত তালিকা প্রনয়ন পুর্বক প্রকল্প পরিচালক ঢাকা বরাবরে দাখিল করেছেন।

পরে প্রকল্প পরিচালক উপজেলা প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগটি আমলে নিয়ে এক পত্রে দ্রুত তদন্তের জন্য নির্বাহী প্রকৌশলী এলজিইডি গাইবান্ধাকে নির্দেশ প্রদান করে।

প্রকল্প পরিচালকের নির্দেশে মোতাবেক গতকাল ২ জুন মঙ্গলবার সকালে উপজেলা প্রকৌশলী তাহাজ্জত হোসেনের বিরুদ্ধে তদন্ত অনুষ্ঠিত হয়।

নির্বাহী প্রকৌশলী এলজিইডি আব্দুর রহিম জানান উপজেলা প্রকৌশলী তাহাজ্জত হোসেনের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগটি তিনি মঙ্গলবার সরেজমিন তদন্ত করেছি। বিষয়টির যথাযথ গুরুত্বারোপ করে ঐ দিনই তিনি প্রকল্প পরিচালক বরাবরে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, পলাশবাড়ী উপজেলায় আরএমপি শ্রমিক নিয়োগে অর্থের বিনিময়ে বিশেষ ব্যক্তিদের দেওয়া নাম ৪০ টি ও উপজেলার একটি পৌরসভাসহ ৭ টি ইউনিয়ন পরিষদের ৪০ টি নাম গুলো সংযুক্ত করা হয়েছে। তবে উপজেলার হোসেনপুরের চেয়ারম্যান আপত্তি থাকায় এই ইউনিয়নের কোন নাম সংযুক্ত করা হয়নি। পাঠানো তালিকার নাম গুলো যা অঘৌষিত ভাবে ভাগ করে দেন প্রকৌশলী তাহাজ্জত হোসেন। তিনি পলাশবাড়ী উপজেলায় যোগদানের পর হতে একটি বিশেষ চক্রের সহায়তায় পলাশবাড়ী বর্তমান পৌর এলাকায় হাট বাজারসহ বিভিন্ন উন্নয়ন মুলক সংস্কার ও উন্নয়ন কাজে ব্যাপক অনিয়ম দূর্নীতি করেছেন। পৌর শহরের সর্ববৃহৎ কালীবাড়ী হাট বাজারটিতে আজও ব্যাপক জনদূর্ভোগ থাকায় বিগত সময়ে হাট সংস্কার ও উন্নয়নের নামে সরকারি অর্থ লুটপাটকারীদের তদন্ত সাপেক্ষে শাস্তি চায় স্থানীয় সচেতন বাসী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...