আজ ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৪ই জুন, ২০২১ ইং

ব্যতিক্রমি ব্যাংক স্থাপন করলেন ইউ.এন.ও

 

ফুলছড়ি(গাইবান্ধা)প্রতিনিধিঃ- গাইবান্ধার ফুলছড়িতে খোলা হয়েছে একটি নতুন ব্যাংক, যে ব্যাংক সকল ব্যাংক থেকে একেবারেই আলাদা। এই ব্যাংকে কোন টাকা পয়সার লেনদেন হয় না, খুলতে হয়না কোন একাউন্টও। যেকেউ তার প্রয়োজনে এখান থেকে খাদ্য সংগ্রহ করতে পারেন। করোনাভাইরাস মহামারীর এ সময়ে সরকারি সহায়তার পাশাপাশি কর্মহীন দরিদ্র মানুষের খাদ্য সহায়তা প্রদান করতে ফুলছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবু রায়হান দোলন চালু করেছেন ফুডব্যাংক। ফুডব্যাংক স্থাপন করে ইতিমধ্যে সারা ফেলেছেন তিনি।

 

গত ৩০ মার্চ থেকে শুরু হয় এই ফুডব্যাংকের যাত্রা। ২০ মে পর্যন্ত এই ফুডব্যাংক থেকে প্রায় ১ হাজার ৯৫০ পরিবারে ১০ কেজি করে চাল, ২ কেজি করে আলু, ১ কেজি করে মসুর ডাল ও ১ কেজি করে লবণ খাদ্য সহায়তা হিসেবে পৌঁছে দেয়া হয়েছে। এসব খাদ্যসামগ্রী ফুডব্যাংকে স্বেচ্ছায় দান করেছেন এলাকার সামর্থবান মানুষ। এসব খাদ্যসামগ্রী বিতরণের জন্য উপজেলার প্রতিটি ওয়ার্ড থেকে ফুলছড়ি ভলান্টিয়ার নামে একটি ফেসবুক পেজের মাধ্যমে দেড় শতাধিক ভলান্টিয়ার সংগ্রহ করা হয়েছে। তাদের মাধ্যমে তালিকা করে কর্মহীন মানুষের মধ্যে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয় ফুড ব্যাংক থেকে।

এছাড়া যাদের খাদ্য সংকট হচ্ছে তারা সরাসরি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মোবাইল নাম্বারে ফোন করলে খাদ্য সহায়তা নিয়ে তাদের বাড়িতে হাজির হন ইউএনও । চলমান করোনাভাইরাস পরিস্থিতি দীর্ঘায়িত হলেও মানুষ যাতে খাদ্য ও পুষ্টি সংকটে না পড়ে এজন্য ফুডব্যাংক থেকে উপজেলার চারটি ইউনিয়নে ৩ হাজার মানুষের বাড়িতে ৬ হাজার পেঁপে গাছের চারা রোপণ করা হয়েছে। এছাড়া স্বল্প সময়ে পুষ্টিসমৃদ্ধ খাবার নিশ্চিত করতে শাক-সবজি উৎপাদনের লক্ষে প্রায় ২ হাজার পরিবারের মাঝে লাউ, মিষ্টি কুমড়া, চিচিঙ্গা, ঢেঁড়স ও পুঁই শাকের বীজ বিতরণ করা হয়েছে।

শিশু খাদ্য হিসেবে সুজি ও গুড়োদুধ বিতরণ করা হয়েছে প্রায় ৩ শতাধিক পরিবারের মাঝে। আসন্ন ঈদ-উল ফিতরের দিন কর্মহীন দরিদ্র মানুষগুলো যাতে ভালোভাবে খেতে পারে সেজন্য ফুডব্যাংকের মাধ্যমে ২ হাজার পরিবারের মাঝে সেমাই, চিনি ও মুড়ি বিতরণ করা হয়েছে। ফুডব্যাংক স্থাপনের বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবু রায়হান দোলন বলেন, ফুলছড়ি উপজেলার মোট জনসংখ্যার একটা বড় অংশ অকৃষি পেশায় নিয়োজিত। যাদের মধ্যে রিকশা-ভ্যান চালক, রেস্তোরাঁ ও নৌকা শ্রমিক এবং দিনমজুর বেশি। এ সময়ে তারা বেকার হয়ে পড়েছেন। তাদের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণের জন্য ফুডব্যাংক সৃষ্টির উদ্যোগ নিয়েছি, যাতে সরকারি সহায়তার পাশাপাশি এলাকার জনদরদি ও বিত্তবান মানুষজন সহায়তা করতে পারেন।

এ পর্যন্ত সর্বস্তরের জনগণের মধ্যে ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি। উপজেলা নির্বাহী অফিসার আরও বলেন, সমাজের অবস্থাপন্ন মানুষের কাছ থেকে সহায়তা নিয়ে এই ব্যাংকে জমা রাখা হয়। সামর্থ্য অনুযায়ী সাহায্য দিতে ফেসবুকের মাধ্যমে আহ্বান জানানো হয়। সমাজের বিত্তবান বা দানশীল ব্যক্তিরা এখানে সহযোগিতা করছেন। কেউ কেউ চাল, ডাল, আলু, ভোজ্যতেল, লবণ, পেঁয়াজ, শিশুখাদ্য প্রভৃতি দিচ্ছেন। আবার কেউ খাদ্য সামগ্রী ক্রয়ের জন্য নগদ টাকা দিচ্ছেন। আবার কেউ কেউ সেমাই, চিনিও কিনে দিচ্ছেন। এসকল খাদ্যসামগ্রী ভোলান্টিয়ারদের মাধ্যমে বিতরণ করা হচ্ছে। ইউএনও আরো বলেন, এমনও কিছু লোক আছে যারা আমার মোবাইলে ফোন করে কান্নাকাটি করে, তাদের বাড়িতে খাবার নেই এ কথাটি বলতেও তারা লজ্জা বোধ করে। আমরা তাদের বাড়িতে রাতের আধারে খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছি।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...