আজ ৩১শে ভাদ্র, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৫ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং

হরিপুরে হলুদ সাংবাদিকদের খুঁটির জোর কোথায়

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি :  ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলায় হলুদ সাংবাদিকতার দাম্ভিকতা করে অবৈধ ভাবে অসৎ উপায়ে ৩০% হারে অর্থ আদায়ের বাস্তবতার পরিকল্পনা কালে দুই ব্যক্তির নামে ফেসবুক সহ বিভিন্ন যোগাযোগ মাধ্যমে একটি ভিডিও’সহ ক্যাপশনে কিছু লেখা ভাইরাল হয়েছে ।

এতে দেখা যায়, হরিপুর উপজেলার কাঠালডাঙ্গী বাজারে সরকারি ভাবে পশু কেনা বেচার অনুমোদন না থাকলেও সেখানে গরুর হাট বসানোর পরিকল্পনা করেছিলেন হাট ইজাদারের লোকের সাথে নব গঠিত উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি কবিরুল ইসলাম ও সাধাররণ সম্পাদক মিজান নামের এই দুই ব্যক্তি। কথোপকথনে এসময় তারা হাট ইজারাদের লোক কে বলেন, হাট বসানোর ব্যবস্থা করেন, আমাদের প্রতিনিধি থাকবে, আমরা ৩০% হারে প্রতি লাখে ৩০ হাজার নিবো। প্রশাসনের বিষয়ে হাট ইজারাদের লোক প্রশ্ন করলে তারা প্রশাসনের তৌয়াক্কা না করে বলেন,ইউএনও/ডিসির বিষয়টি আমার দেখব।

আমরা যেখানে আসবো সেখানে ইউএনও ডিসি আসবে না, তারা আরো বলেন, নবগঠিত উপজেলা প্রেসক্লাবের রেফারেন্সে ঈদের পরে চলবে হাউজি খেলা,কেউ দশ টাকা আয় করলে তাদের দিতে হয় দুই টাকা, কেউ কোন ওকারেন্স ঘটালে তাদেরকে জানালে সবই বৈধ, না জানালে কেউ ছাড় পাবে না।

ভিডিও ফুটেজে দেখেও তাদের গলার কন্ঠস্বরে ইতি মধ্যে তাদের সবাইকে চিনে ফেলেছে।

এখন সর্বত্রে প্রশ্ন উঠেছে এদের খুটি জোর ও শক্তির উৎস কোথায় মানুষ প্রশাসনের নিকট জানতে চায়? তারা আওয়ামী লীগ কে চ্যালেঞ্জ করে বলে, আওয়ামী লীগ যা পারে না আমরা তা করে দেখিয়েছি, এত কিছুর পরেও তারা আওয়ামীলীগের রাজনৈতিক নেত্রীবর্গের সাথে বাহুবলে ঘুরে বেড়াচ্ছে।

গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও স্থানীয় জনগণ বলেন, কদিন আগেই ঠাকুরগাঁওয়ে সঠিক সংবাদ পরিবেশনের কারণে তানু, লিটু, শুভ এই তিন সাংবাদিকের নামে মামলা হয়েছে, তানভীর হাসান তানু অসুস্থ থাকার পরও তাকে হ্যান্ড কাপ পড়িয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রাখা হয়েছিলো, সত্য সংবাদ পরিবেশনের জন্য আইনের মুখোমুখি হতে হয় সাংবাদিকদের, ঠাকুরগাঁও সহ সারাদেশে যখন ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ও সাংবাদিকদের উপড় চাপিয়ে দেওয়া মিথ্যে মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে মানববন্ধন ও আন্দোলন করছে সাংবাদিকরা, ঠিক এসময় সাংবাদিকদের কলংকিত করতে প্রসাশন ও ক্ষমতাসীন দলকে চ্যালেঞ্জ করে,তবে কেনো অবৈধ উপায়ে চাঁদাবাজির মতো কাজে মেতে উঠেছে নামধারী এই হলুদ সাংবাদিকরা । এমন হিনো মনো-মানসিকতা আর চারিত্রিক বৈশিষ্টের কারণে শুধু হরিপুর উপজেলা নয়, সারা দেশের সংবাদকর্মী বা সাংবাদিকের উপর এর প্রভাব পরবে। সাংবাদিক নামে এই চাঁদাবাজরা কি আইনের উর্ধ্বে, এই রকম চাঁদাবাজরা যদি আইনের উর্ধ্বে না হয় তবে ইউএনও/ ডিসি ও উপজেলা আওয়ামী লীগ কে হেয় প্রতিপন্ন করে কথা বলার পরও কোন ব্যবস্থা নিচ্ছেন না কেন, উপজেলা আওয়ামী লীগ বা জেলা/ উপজেলা প্রশাসন।

চাঁদাবাজির এই গ্রুপটি ডিসি, ইউএনও ও উপজেলা আওয়ামী লীগ কে তাছিল্য করে কথা বলে চালাচ্ছে রমরমা চাঁদাবাজি।

এরা দেশ জাতি ও সমাজের শত্রু এদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় এনে এই চক্রের পিছনে অর্থ ও শক্তি ইন্ধোন দাতাদের মুখোশ উন্মোচন করে দেশ ও জাতিকে জানানো একান্ত প্রয়োজন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...