আজ ৩রা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং

সরকারি ভাবে ধান ক্রয় কেন্দ্র খোলার দাবী কৃষকদের

সরকারিভাবে ধান ক্রয় কেন্দ্র প্রয়োজন কৃষকের ধান সহজ ভাবে সঠিক দাম পেলে চাষাবাদে উৎসাহিত হবে কৃষক ঘুচবে খাদ্য সংকট কৃষি নির্ভশীল দেশে কৃষককে ঠকাতে ব্যস্ত সবাই,জমি রোপনে, ফসলের পরিচর্যা করতে সার, কৃটনাশক,সেচসহ ফসল ঘরে উঠা পর্যন্ত শ্রমিক ব্যয় দিয়ে সামান্য কিছু আয় নিয়ে নিম্ন ও মধ্যম শ্রেনীর কৃষকদের জন্য বাপক সংকটময় সময় সবকিছুর দাম বৃদ্ধি হলেও কৃষকের স্বর্ণ ফসলের চাহিদা মতো দাম বৃদ্ধি হয়নি।

এরমধ্যে সরকার যে মূল্যে দিয়েছে সে মূল্য পাওয়া ভাগ্যের বিষয়ে দাড়িয়েছে। গাইবান্ধা জেলার সাত উপজেলায় আমন ধান কাটা মাড়াইয়ের ভরা মৌসুম এসেছে প্রায়। সরকারিভাবে ধান ক্রয়ে সরাসরি কৃষকের নিকট হতে নেওয়ার কথা থাকলেও প্রকৃত পক্ষে কৃষকরা বঞ্চিত হচ্ছে। প্রতিনিয়ত কৃষকের বরাদ্দের ধান ব্যবসায়িরা প্রদান করে একটি চক্রের পরিচালনায়।

একারণে বরাবরি কৃষকের বিশাল একটি উপাদনমুখী কৃষকেরা বরাবরি বঞ্চিত। তারা ধান গম চাষাবাদ হতে মুখ ফিরিয়ে অন্যান্য ফসলের দিকে ঝুকছে। যেহেতু খাদ্য সয়ংসম্পূর্নতা অর্জন করা আমাদের সরকারের মূল লক্ষ সেহেতু প্রতিটি উপজেলার খাদ্য গুলোতে সরাসরি ধান গম ক্রয় কেন্দ্র স্থাপন করা হোক। যেখানে কোন প্রকার হয়রানি ছাড়াই কৃষক তার ধান দিবে উচিৎ দরে বিক্রি করবে। এতে করে কৃষকেরা উৎপাদনে ভূমিকা রাখবে এতে করে উৎপাদন বেশী হলে আমাদের চাহিদা মিটিয়ে বৈদেশিক মুদ্রা আয় হবে এই অবহেলিত খাত হতে।

বর্তমান মৌসুমে ধানের ফলন ভালো হয়েছে আবহাওয়া ভালো থাকলে ধানের উৎপাদন আশনরুপ হবে। বর্তমান সময়ে ধান কাটা মাড়াইয়ের কাজের কৃষি শ্রমিকের চরম সংকট দেখা দেয় । এক মণ ধানের দামেও মিলে না একজন শ্রমিক। কেননা একজন শ্রমিক ধান কাটতে সাড়ে ৪শ’ টাকা থেকে ৫শ’ টাকা মজুরী নিয়ে থাকে। আবার চুক্তিবদ্ধ শ্রমিকদের দিয়ে এক বিঘা জমির ধান কাটতে খরচ লাগছে ৪ হাজার টাকা।

ফলে এ জেলার চাষিরা পড়েছেন চরম বিপাকে। জমিতে উৎপাদিত ধান বিক্রি করেও খরচ উঠে না। এ সংকট হতে উত্তোরণে সরাসরি কৃষকের নিকট হতে ধান ক্রয়ের দাবীতে বাম সংগঠন গুলো আন্দোলন কর্মসূচী পালন করেছেন বিগত দিনে । এরপর এখনো সাধারণ কৃষকের জন্য কোন সুনির্দিষ্ট দিক নির্দেশনা নেই সরকারি ভাবে ধান ক্রয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের। তবে বর্তমান সময়ে উপজেলা ধানক্রয় কমিটির সিধান্তে উপজেলার সুপারিশ প্রাপ্ত কৃষি অফিসের দায়সারা তালিকার লটারি করে নির্দিষ্ট কিছু ব্যক্তি নাম তুলা হয় যারা কিনা ব্যবসায়িদের মনোনীত কৃষক।

এ লটারীতে চলে ব্যাপক অনিয়ম। তাই সর্বস্তরের কৃষকের দাবী সরকারি ভাবে ক্রয় কেন্দ্র স্থাপন করা হোক যার ধান আছে কৃষি কার্ড আছে সে ধান বিক্রি করবে আর সরকার তা ক্রয় করবে সংশ্লিষ্ট খাদ্য কর্মকর্তাদের মাধ্যমে। জানা গেছে, বৃষ্টি ও প্রখর রোদ থাকায় এবার জমির ধান একসাথে দ্রুত পেকে যাবে ফলে একযোগে ধান কাটা শুরু হওয়ায় জেলা জুড়ে কৃষি শ্রমিকের তীব্র সংকট থাকবে। গাইবান্ধা জেলার বিভিন্ন উপজেলায় ধান পাকতে শুরু করেছে মাঠে রয়েছে শ্রমিক সংকটে ধান কেটে ঘরে তুলতে ব্যাপক দূর্ভোগে পড়তে হতে পারে কৃষকদের ।

অন্যদিকে নতুন ধান ব্যবসায়িদের নিকট বিক্রি করে প্রতি মণ ৫শ’ থেকে সাড়ে ৫শ’ টাকা দরে। অথচ একজন শ্রমিকের দৈনিক মজুরি হচ্ছে সাড়ে ৪শ’ থেকে ৫শ’ টাকা। ১২ হতে ১৩ টাকা দরে ক্রয় করে ২৬ টাকা দরে এসব ধান আবার ব্যবসায়িরা বিক্রি করে সরকারের নিকট ১০৪০ টাকা মন । অথচ শ্রমিকের দাম দ্বিগুণ হওয়ায় ক্ষেতের ধান ঘরে তুলতে হিমশিম খেতে হয় কৃষকদের। আর ব্যয় বেড়ে গেলে ধানের বাজার বাড়েনি বলে জানায় সাধারণ কৃষকেরা। সুতরাং বছরের পর বছর মাঠে মাঠে স্বপ্নের সোনালী পাকা ধান থাকলেও কৃষকের মুখে হাসি থাকে না ।

কৃষকদের কাছ থেকে জানা গেছে, এক বিঘা জমিতে বোরো ২৮ জাতের চিকন ধান চাষ করতে শ্রমিকের মজুরী, জমি চাষ, তেল, সেচ, সার, কীটনাশকসহ মোট খরচ পড়ছে সাড়ে ৯ থেকে ১০ হাজার টাকা। এক বিঘা জমিতে ওই ধান চাষ করে ফলন পাওয়া যাচ্ছে ২০ মণ থেকে ২৪ মণ। কিন্তু বাজারে বোরো ২৮ জাতের ধানের মূল্য এখন সাড়ে ৪শ’ থেকে ৫শ’ টাকা। মৌসুম সময়ে উৎপাদন ব্যয় মিটিয়ে দরিদ্র কৃষকের পক্ষে ধান মজুদ করে রাখা কোনক্রমেই সম্ভব হয় না। ফলে তারা এই বাজার দরেই বাধ্য হয়ে ধান বিক্রি করছে। এতে এক বিঘা জমির ধান বিক্রি করে সাড়ে ৯ থেকে ১০ হাজার টাকা।

যা দিয়ে সে উৎপাদন ব্যয় মেটাতে বাধ্য হচ্ছে। উদ্বৃত্ত থাকছে না কৃষকের ঘরে কোন ধান। অনেক পরিশ্রম করে ধান উৎপাদন করা সত্ত্বেও কৃষকের ঘর থেকে যাচ্ছে না চিরায়ত অভাব নামের জগদল। কৃষকের ঘরে এ অভাব নামের জগদল কে সরাতে হলে কৃষকের ফসলের উচিৎ মূল্যে বিক্রির নিশ্চয়তা দিলে কৃষক উৎপাদন মূখী হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা আপনা আপনি বাস্তবায়িত হবে দেশে কোন জমি পড়ে থাকবে না সবখানে চাষাবাদ শুরু হয়ে যাবে কৃষকের নিজ চাহিদা হতে। আর দেশ হবে খাদ্যে সয়ংসম্পর্ন। নিরাপদ থাকবে কৃষক সংকট হবে না খাদ্যের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...