আজ ২৬শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৯ই জুন, ২০২১ ইং

সাংবাদিকের ক্যামেরা ভাংচুরের ঘটনায় মামলা দায়ের

 বেসরকারি অনলাইন টেলিভিশন চ্যানেল কে টিভি বাংলার  গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধির ক্যামেরা ভাংচুর সহ রুমে অবরুদ্ধ করে হত্যার হুমকি দিয়েছেন গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ী উপজেলার হালিম নগর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ মাহফুজার রহমান।

 

একটি অভিযোগের ভিত্তিতে গত ১৮ নভেম্বর কে টিভি বাংলার গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি মোঃ সুমন মন্ডল সহ কয়েকজন সংবাদ কর্মী হালিম নগর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বক্তব্য ও তথ্য নিতে তার অফিসে যায়। সেখানে  পৌছা মাত্র  দেখা যায় নিজ কক্ষের মধ্যে শিক্ষার্থীদের সামনেই ধূমপান করছে প্রধান শিক্ষক। তাৎক্ষনিক ধুমপানরত অবস্থার ছবি তুলতে চেষ্টা করে সাংবাদিকরা। বিষয়টি বুঝতে পেরে প্রধানশিক্ষক সাংবাদিকদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করা সহ ক্যামেরা বন্ধ করতে বলে ।

এর পর তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ , অবৈধ নিয়োগের কারনে ২০০৪ সালে একটি তদন্ত প্রতিবেদনের প্রেক্ষিতে অবৈধ নিয়োগের অভিযোগে ১/১২/১৯৯৫ যোগদানের তারিখ থেকে ৩১/১০/২০০৪ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত উত্তোলিত ৩,২৫,৩৩৩টাকা সরকারি কোষাগারে ফেরৎ সহ এমপিওভুক্ত তালিকা থেকে তার নাম কর্তনের জন্য তৎকালীন তদন্ত কর্মকর্তা উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয় ।

কিন্তু প্রধান শিক্ষক কি কারণে ঐ টাকা সরকারি কোষাগারে জমা দিলেন না এবং না দিয়ে কিভাবে সহকারী শিক্ষক থেকে পদোন্নতি পেয়ে প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করছেন তার সঙ্গত কারণ জানতে চাইলে তিনি আরো ক্ষিপ্ত হয় এবং তথ্য দিতে অস্বীকার করেন । পরে প্রধান শিক্ষকের কক্ষ থেকে বেরিয়ে দেখা যায় সাংবাদিকদের উপস্থিতি টের পেয়ে সপ্তম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের নবম শ্রেণীর ক্লাসে ঢুকিয়ে দিতে ব্যাস্ত অন্যান্য শিক্ষকরা । এ সময় তালাবদ্ধ অন্যান্ন শ্রেনীকক্ষের ভিডিও ধারণ করতে গেলে প্রধান শিক্ষক তার কক্ষ থেকে দৌড়ে বেরিয়ে এসে  সাংবাদিকদের অশ্লীল ভাষায় গালি দিয়ে বিদ্যালয় প্রাঙ্গণ ত্যাগ করতে বলেন এবং সাংবাদিকের হাতে থাকা ক্যামেরা ভাংচুর করেন এরপর মোবাইল দিয়ে ভিডিও করলে হাত থেকে মোবাইল কেড়ে নিয়ে তার রুমে নিয়ে অবরুদ্ধ করার চেষ্টা করে এবং হত্যার হুমকি দেয় ।

উল্লেখিত ঘটনার প্রেক্ষিতে গতকাল অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে সাংবাদিক সুমন পলাশবাড়ি থানায় মামলা দায়ের করতে গেলে  অফিসার ইনচার্জ মোঃ মাসুদুর রহমান মামলা না নিয়ে  কোন অদৃশ্যকারনে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে  জিডি করার পরামর্শ দিলেও পরে  সেই মামলা গ্রহন করে। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...