আজ ৩রা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং

সীমানা নির্ধারনের আইনি জটিলতায় কয়েক হাজার মানুষ

 

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার শালমারা ইউনিয়নের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া রাক্ষুসি বাঙ্গালী নদী ৩০ বছরে শালমারা ইউপি’র ৬ নং ওয়ার্ডের দোয়াইল ও ভাংগবাড়ী গ্রাম সহ প্রায় ২ শ’ একর ফসলি জমি, ঘর বাড়ী নদী গর্ভে বিলীন। এছাড়াও পাশের সাঘাটা উপজেলার কামালের পাড়া ইউনিয়নের পাকুরতলা গ্রামের প্রায় ১ শ’ একর ফসলি জমি ও বাড়ী ঘর ওই রাক্ষুসি নদী গ্রাস করেছে। তারা এখন শালমারা ইউনিয়নের পাতারের বাড়ীতে এসে বাড়ী ঘর নির্মাণ করে বসবাস করছে। বাঙ্গালী নদীর ভাঙ্গনে বাড়ী ঘর বিলীন হওয়া দোয়াইল গ্রামের খায়রুল আলম, ওয়াহেদ আলী, রোকেয়া বেগম, আকবর হোসেন, আজগর আলী ও শাহানা বেগম জানান, ১৯৮৮ সাল থেকে বাঙ্গালী নদীর ভাঙ্গনে শালমারার দোয়াইল, ভাংগবাড়ী ও সাঘাটার কামালের পাড়া ইউনিয়নের পাকুরতলা গ্রাম ভাঙ্গতে ভাঙ্গতে এখন নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। অপার থেকে প্রায় ১ হাজার মানুষ এখন শালমারা ইউনিয়নের দোয়াইল পাতারের বাড়ীতে এসে বাড়ী ঘর করে বসতি গড়ে তুলছে। তাদের অভিযোগ, নদী গর্ভে বাড়ী ঘর বিলীন হওয়ায় তারা এখন শালমারা ইউনিয়নে এসে বসবাস করছে। এ কারণে কামালের পাড়া ইউনিয়নের জনপ্রতিনিধিরা তাদের কোন খোঁজখবর রাখেন না। তাদের দাবী সরকার কামালের পাড়া ইউনিয়ন থেকে শালমারা ইউনিয়নের নাগরিক হিসেবে ভোটার স্থানান্তর করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করুক। এ দিকে শালমারা ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডের দোয়াইল ও ভাংগবাড়ী গ্রামের শত শত মানুষ নদী ভাঙ্গনে ফসলি জমি সহ বাড়ী ঘর নদী গর্ভে হারিয়ে ওই ইউনিয়নের ৫ নং ওয়াডের্র বিভিন্ন জায়গায় আশ্রয় নিয়ে আছে। তাদের অভিযোগ, সরকারী ও স্থানীয় পরিষদের নির্বাচন আসলে ১০ মাইল রাস্তা ঘুরে ও নৌকায় চরে ঘুগাগারামারা প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে যেয়ে ভোট দিতে হয়। এসব থেকে পরিত্রাণ পেতে নদী ভাঙ্গন এলাকার মানুষ শালমারা ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডটি ৫ নং ওয়ার্ডের সাথে পূর্ণগঠনের দাবী জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ঠ কৃর্তপক্ষের কাছে। এ বিষয়ে গোবিন্দগঞ্জ নির্বাচন অফিসার বুজেন্দ্রনাথ বাবু বলেন, সীমানা নির্ধারণ ও পূর্ণগঠনে কোন করনীয় নির্বাচন কমিশনের নেই। কারো যদি এ সম্পর্কে আপত্তি থাকে তারা উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে যথাযথ কৃর্তপক্ষের নিকট আবেদন করতে পারে। গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রামকৃষ্ণ বর্ম্মণ বলেন, নদী ভাঙ্গন এলাকায় যদি কোন সমস্যা দেখা দেয়, তাহলে আইনী সমাধান রয়েছে। রাষ্ট্রীও অধিগ্রহণ প্রজাশত্ত¡ আইন ১৯৫০ সালের স্টেট একুইজিশন এন্ড টেনান্সি এক্টে বলা আছে যদি কোন বসতি বা নদীর পার ভেঙ্গে বিলীণ হয়ে যায়, বা কোন ব্যাক্তিগত জমি নদী গর্ভে বিলীণ হয়্ নদীতে, তাহলে সেটাকে বলা হয় সিকস্তি । এমন যদি আবার কোন কারণে নদীর চর জেগে উঠে, এটাকে বলা হয় পয়োস্তি। তাহলে যখনি কোন পয়োস্তি হবে। নদীতে চরের সৃস্টি হবে সেটার মালিক সরাসরি বাংলাদেশ সরকার, এটা ব্যাক্তি মালিকানায় যাওয়ার কোন সুযোগ নেই। তবে এ রকম কেউ যদি দাবী করে এ সব জমি আমাদের পূর্ব পুরুষদের ছিল, তাহলে আমরা বিষয়টি ভেবে দেখবো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...