আজ ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৭শে মে, ২০২২ ইং

সিলেট উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পেলেন যুক্তরাজ্য বিএনপির যুগ্ন আহবায়ক

সিলেট সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে যুক্তরাজ্য বিএনপির ক্রয়ডন শাখার যুগ্ম আহ্বায়ক হিরণ মিয়াকে। দেশে আওয়ামী লীগ নেতা হলেও তিনি লন্ডনে গিয়ে বিএনপি নেতা হিসেবে সভা-সেমিনারে অংশগ্রহণ করেন বলে অভিযোগ নেতাকর্মীদের।

গতকাল সোমবার (২৫ নভেম্বর) রাতে কেন্দ্র ও জেলার নেতারা শীর্ষ এ দুই পদে নাম ঘোষণা করেন।

নতুন কমিটিতে সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও কান্দিগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দিনকে সভাপতি এবং মোগলগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও যুক্তরাজ্য বিএনপি নেতা হিরণ মিয়াকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে।

দীর্ঘ ১৪ বছর পর গত রোববার (২৪ নভেম্বর) সিলেট সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় কেন্দ্র ও জেলার নেতারা কাউন্সিল ছাড়া সমঝোতার মাধ্যমে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচন করার প্রস্তাব দেন। কিন্তু কাউন্সিলররা এই প্রস্তাব প্রত্যাখান করলে সম্মেলন পন্ড হয়ে যায়। সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণা ছাড়াই শেষ হয় সম্মেলন।

এদিকে তৃণমূলের দাবি উপেক্ষা করে কাউন্সিল ছাড়া কমিটি গঠন করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন উপজেলার ৮ ইউনিয়নের আ.লীগের নেতাকর্মীরা। এই কমিটি প্রত্যাখান করে তারা গণপদত্যাগ করবেন বলেও জানান। গতকাল সোমবার বিকেলে আখালিয়ায় এ উপলক্ষে এক বৈঠকে মিলিত হন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকরা। নেতা কর্মীদের অভিযোগ হিরণ মিয়া আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশকারী (হাইব্রিড)। তিনি কখনও আওয়ামী লীগ করেননি।

তৃণমূল নেতারা বলেন, দীর্ঘ ১৪ বছর পর সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হওয়ায় নেতা-কর্মীদের মাঝে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা সৃষ্টি হয়। আমাদের প্রত্যাশা ছিলো, নেতারা তৃণমূলের মতামতের ভিত্তিতে নেতৃত্ব নির্বাচন করবেন। কিন্তু সম্মেলনে তৃণমূলের মতামত ছাড়া কমিটি চাপিয়ে দেয়া হয়েছে। এতে আমরা অত্যন্ত ক্ষুব্ধ ও মর্মাহত হয়েছি।

নেতারা আরও বলেন, দলের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নির্বাচনে তৃণমূলের মতামতকে প্রধান্য দেওয়া ও অনুপ্রবেশকারীদের চিহ্নিত করে নেতৃত্ব থেকে দূরে রাখার নির্দেশ দিয়েছেন। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর এই নির্দেশকে উপেক্ষা করা হয়েছে।

সভায় ১ নম্বর জালালাবাদ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ইলিয়াছ মিয়া শানু, সাধারণ সম্পাদক মো. মানিক মিয়া, ২ নম্বর হাটখোলা ইউনিয়নের সভাপতি মুশাহিদ আলী, সাধারণ সম্পাদক মো. আব্দুর রহমান, ৩ নম্বর খাদিমনগর ইউনিয়নের সভাপতি মো. তারা মিয়া, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালিক, ৪ নম্বর খাদিমপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. আনছার মিয়া মহালদার, সাধারণ সম্পাদক মো. নজরুল ইসলাম বিলাল, ৫ নম্বর টুলটিকর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের আহবায়ক, সাবেক চেয়ারম্যান রমিজ উদ্দিন বাবুল, যুগ্ম আহবায়ক নিরেশ দাস, ৬ নম্বর টুকের বাজার ইউনিয়নের সভাপতি মো. আলতাফ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মো. আব্দুল মুকিত, ৭ নম্বর মোগলগাঁও ইউনিয়ন সভাপতি আব্দুল হামিদ (চুনু), সাধারণ সম্পাদক মো. আশিক মিয়া, ৮ নম্বর কান্দিগাঁও ইউনিয়নের সভাপতি মো. মো. আজম আলী উপস্থিত ছিলেন।

সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী সংবাদমাধ্যমকে বলেন, সিলেট-১ আসনের সংসদ সদস্য ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেনের পরামর্শক্রমে কেন্দ্র ও জেলার নেতারা সভাপতি-সম্পাদক পদে নাম ঘোষণা করেছেন। তবে হিরণ আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশকারী কী না এ ব্যাপারে তিনি কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।

সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের নতুন কমিটির সভাপতি নিজাম উদ্দিন বলেন, আমি ইউনিয়ন পর্যায়ে থেকে আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব দিয়ে আসছি। দীর্ঘদিন উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদকের দ্বায়িত্ব পালন করেছি। কিন্তু হিরণ মিয়াকে কখনও আওয়ামী লীগ করতে দেখিনি; এমনকি তিনি ইউনিয়ন কিংবা উপজেলার কোন কমিটিতে ছিলেন বলেও আমার জানা নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...