আজ ১লা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৫ই জুন, ২০২১ ইং

আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ’১৯ পালিত

কমলা রঙের বিশ্ব: “সমতা প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে ধরন কে রুখে দিই” প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে বিশ্ব ব্যাপি নারীর প্রতি সকল প্রকার সহিংসতা প্রতিরোধে ২৫ নভেম্বর থেকে ১০ ডিসেম্বর আন্তজার্তিক ক্যাপেইনের অংশ হিসাবে গত ২৮ নভেম্বর ২০১৯ এসকেএস ফাউন্ডেশন গাইবান্ধার উদ্যোগে পালিত হয় আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ’১৯ ।

 সকাল ১১.০০টায় গাইবান্ধা পৌর পার্ক থেকে একর্ র্বনাঢ্য র‌্যালি শহরের  পৌর পার্ক থেকে শুরু হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে আবারো পৌর পার্কে শেষ হয়।  এসকেএস ফাউন্ডেশনের পাওয়ার, রি-কল, এএসএসআর ফর ই এম ডিাব্লিউডিজি , সমতা ও ওয়াইপি বিভিন্ন  প্রকল্পের শত শত নারী-পুরুষ,,যুবক-যুবতি, কিশোর-কিশোরী ও ছাত্র-ছাত্রী ভিন্ন রঙের পোস্টার ও ফেস্টুন সহ অংশগ্রহণ করেন।

এসকেএস ফাউন্ডেশনের  কো-অডিনেটর ফিল্ড অপারেশন মোঃ সুরুষ আলী সরকার এর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত  থেকে বক্তব্য রাখেন মাননীয় জেলা প্রশাসক মো: আবদুল মতিন,  অন্যান্নদের মাঝে আরো বক্তব্য রাখেন মোঃ আশরাফুল আলম. কো-অডিনেটর এডভোকেসি, বিথী আক্তার নারী ফেডারেশন , পাওয়ার প্রজেক্ট, ইয়ারুন বেগম নারী নেত্রী গলনা-রি কল প্রজেক্ট, মোছাঃ অনুপমা আক্তার, কিশোর-কিশোরী দলের সদস এএসএসআর ফর ইএম ডিাব্লিউডিজি প্রজেক্ট, মোছাঃ ময়না বেগম, গিদারী, সমতা প্রকল্প, অঞ্জলী রানী দেবী- মানবাধিকার কর্মী, সাংস্কৃতিক কর্মী ও অধ্যক্ষ সাদুল্লাপুর সরকারী কলেজ মোঃ জহুরুল কাইউম,

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মাননীয় জেলা প্রশাসক বলেন, নারী সমগ্র মানবজাতির অর্ধেক। মানব সম্পদের অর্ধেক অংশের প্রতি সহিংসতা করে তাদের হেঁসেল ঘরের ঘেরাটপে বন্দি রেখে জাতির তথা মানব জাতিন উন্নয়ন সম্ভব নয়। নারীকে উন্নয়নের মূল ধারায় সম্পৃক্ত করার লক্ষ্যে সরকার কাজ করছে।  সরকারের মূল লক্ষ্য জনগন, ধরিত্রী, সমৃদ্ধি, শান্তি ও অংশীদারিত্ব। সরকার নারীর সমতা প্রতিষ্ঠার জন্য কাজ করছে। তিনি আরো বলেন- অভাব-অনটন, দারিদ্র ও নিপিড়ন, নারীর প্রতি সকল প্রকার সহিংসতাকে রুখে দিয়ে মানবজাািতর মুক্তিকল্পে এবং পৃথিবী থেকে নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধ করে নারীকে উন্নয়নের মূল ধারায় সর্ম্পক্ করে শান্তিময় পৃথিবী গড়ার কাজে আমরা সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োজিত। এসকেএস ফাউন্ডেশন আয়োজিত এই যৌথ অভিযাত্রায় আমরা প্রতিজ্ঞা করছি নারীর প্রতি সকল প্রকার সহিংসতাকে না বলি।

 সাম্প্রতিককালে দেশে নারী ও শিশুর উপর ধর্ষন ও সকল ধরনের যৌন সহিংসতা ভয়াবহ আকার ধারন করেছে। এই ঘটনার হাত থেকে রক্ষা পাচ্ছে না প্রতিবন্ধি নারী, শিশু এমনকি অল্প বংসী ছেলেরাও। তারা  ঘরে বাইরে, রাস্তা-ঘাটে, যানবাগনে, অফিস আদালতে, শিক্ষা প্রতষ্ঠানে প্রতিনিয়ন ধর্ষন, গণধর্ষন, ধর্ষনের পর হত্যা, ধর্ষনচেষ্টাসহ নানা ধরনের যৌন হয়রানীর শিকার হচ্ছে। দেশে প্রতিটি নারী ও শিশু সহিংসতার ঝুকির মধ্যে রয়েছে।  নারী ও শিশুর প্রতি সহিংসতার মাত্রা, ধরন ও নিষ্ঠুরতার বেড়েছে বহুগুন। এর মূল কারন নারীকে মানুষ হিসোবে গন্য না করার দৃুষ্ঠভংগী ও আচরণ। নারীবিদ্বেষী দৃষিভংগী  ও সংস্কৃতি একদিকে নারীকে নিপীড়ন করার প্রবণতা তৈরী করে, অন্যদিকে নিপীড়িত নারীকেই দোষারোপ করা হয়। বিচারের দীর্ঘসূত্রতার ন্যায়বিচার প্রাপ্তিকে অনিশ্চত করে আবার তড়িঘরি বিচারও ন্যায়বিচারকে প্রশ্নবিদ্ধ করে। যৌন নির্যাতন ও ধর্ষন নারীর জন্য লজ্জার বিষয় নয় বরং এই লজ্জা নির্যাতনকারীর ও ধর্ষনকারীর

আলোচনা শেষে একশনএইড বাংলাদেশে পাওয়ার প্রকল্পের নির্দেশনায় ও বাংলাদেশ মানবাধিকার নাট্য গোষ্টির পরিবেশনায় জীবনধর্শী নাটক কুলসুমের সংসার মঞ্চস্থ হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...