আজ ২৬শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৯ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ ইং

জামানত ছাড়া দরপত্রে অংশ গ্রহণের সুযোগ থাকলেও, কতৃপক্ষের গাফিলতিতে সেই সুযোগ থেকে বঞ্চিত ঠিকাদাররা

 পাবনা  প্রতিনিধি : বাংলাদেশ পাবলিক প্রকিউরমেন্ট আইন ২০০৬ ও পাবলিক প্রকিউরমেন্ট বিধিমালা ২০০৮, অনুযায়ী সীমিত দরপত্র পদ্ধতি প্রদানের অনুরোধ জ্ঞাপন পদ্ধতির ক্ষেত্রে দরপত্র দাতার জন্য দরপত্র জামানত প্রদান বাধ্যতামূলক হইবে না। সীমিত দরপত্র পদ্ধতিতে দরপত্র জামানত ছাড়া দরপত্রে অংশ গ্রহণের সুযোগ থাকলেও, সেই সুযোগ বঞ্চিত করা হচ্ছে অনেক ঠিকাদার ব্যবসায়ীগণ। অনুসন্ধানে দেখা যায়, দপ্তর সীমিত দরপত্র পদ্ধতিতে দরপত্র আহবান করেন ও দরপত্রের সাথে দরপত্র জামানত দিতে বলেন।নাম প্রকাশে  অনিচ্ছুক এক ঠিকাদার বলেন, রাজশাহী গণপূর্ত বিভাগ-১ ও বগুড়া গণপূর্ত বিভাগ তাদের সীমিত দরপত্র পদ্ধতিতে দরপত্র আহবানে পত্রে জামানত দিতে বলা হয় নাই। এতে সাধারণ ঠিকাদারদের মাঝে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হচ্ছে। অন্য দরপত্রে জামানত দিতে বলেছেন কিন্তু এটাতে কেন জামানত দিতে বলা হয় নাই। সীমিত দরপত্র পদ্ধতিতে দরপত্র আহবানে দরপত্র জামানত না চাওয়ার বিষয়ে রাজশাহী গণপূর্ত বিভাগ-১ নির্বাহী প্রকৌশলী মো: মাসুদ রানা ও বগুড়া গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো: বাকি উল্লাহ এর সাথে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তারা বলেন, পিপিআর-২০০৮ বিধিমালাতে বলা আছে, সীমিত দরপত্র পদ্ধতি প্রদানের অনুরোধ জ্ঞাপন পদ্ধতির ক্ষেত্রে দরপত্রদাতার জন্য দরপত্র জামানত প্রদান বাধ্যতামূলক হইবে না। যার ফলে আমরা আমাদের দপ্তরে সীমিত দরপত্র পদ্ধতিতে দরপত্র আহবান কালে দরপত্র জামানত উল্লেখ করি না। এ বিষয়ে ঠিকাদার ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, জামানত ছাড়া দরপত্রে অংশ গ্রহণের সুযোগ থাকলেও, কোন দপ্তর ঠিকাদারদের সেই সুযোগটি দেন না। দেশের সকল দপ্তরটি যদি পিপিআর-২০০৮ ’অনুযায়ে দরপত্রদাতারা সীমিত দরপত্র পদ্ধতিতে দরপত্র জামানত ছাড়া দরপত্রে অংশ গ্রহণের সুযোগটি দিত, তাহলে ঠিকাদার ব্যবসায়ীগন অনেক উপকৃত হত। সীমিত পদ্ধতিতে দরপত্র আহবান কালে দরপত্র জামানত থাকার ফলে আমরা ১০%-১৫% ল্যংভাশের বিনিময়ে ব্যাংক থেকে লোন নিয়ে দরপত্র জামানত দিয়ে দরপত্রে অংশ গ্রহণ করে থাকি। এতে আমাদের অনেক ক্ষতিগ্রস্থ হতে হয়। এমনকি ব্যাংক লোনের কারণে অনেক ঠিকাদার গণ এই ঠিকাদারী ছেড়ে অন্য ব্যবসা ধরেছে। বর্তমান বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা টেন্ডার বাজীদের দূর্নীতি রোধ করার লক্ষ্যে ইজিপির মাধ্যমে দরপত্রের সকল কার্যক্রম করার পাশাপাশি টেন্ডারবাজী দূর্নীতি রোধক অভিযানকে স্বাগতম জানিয়েছেন ঠিকাদার মহল এবং বাংলাদেশ সরকারের কাছে পিপিআর-২০০৮ বিধিমালা অনুযায়ী দরপত্রদাতারা সীমিত দরপত্র পদ্ধতিতে দরপত্র জামানত ছাড়া দরপত্রে অংশ গ্রহণের সুযোগ পায় সেজন্য সকল ঠিকাদার দাবী করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...