আজ ৭ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২১শে জুন, ২০২১ ইং

শীতের কারনে গৃহবন্দি হয়ে পড়েছে ফুলছড়ির মানুষ

 

ফুলছড়ি প্রতিনিধি:   – ফুলছড়ি উপজেলার পাশদিয়ে বয়েগেছে ব্রহ্মপুত্র নদ। যেমনি উপর থেকে বৃষ্টির মত পড়ছে ঘনো কুয়াশা আর তেমনি বইছে হিমেল হাওয়া। ব্রহ্মপুত্র নদের পাড়ঘেঁষা চরাঞ্চল বেষ্টিত জনপদ গাইবান্ধার ফুলছড়িতে জেঁকে বসেছে শীত। গত ৬ দিন যাবৎ ফুলছড়ি উপজেলার কোথাও সূর্যের দেখা মেলে়নি। ঘন কুয়াশার আচ্ছাদনে ও হাড় কাঁপানো শীত কাবু করেছে ফুলছড়ি উপজেলার ছিন্ন্যমূল ও স্বল্প আয়ের মানুষগুলোকে। উত্তরে হিমেল বাতাস শীতের তীব্রতা আরো বাড়িয়ে দিচ্ছে অসহায় বৃদ্ধা মানুষ গুলোর। শীতবস্ত্রের অভাবে এসব মানুষ চরম ভোগান্তিতে পড়েছে। অনেকে নিরুপায় হয়ে খড়কুটো দিয়ে আগুন জ্বালিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা করছে। । শীতে কাতর মানুষ জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে আসছে না তারা।

শীতে সবচেয়ে বেশি কাবু হয়ে পড়েছে এলাকার শিশু ও বৃদ্ধরা। শীতের দাপটে ঘরে ঘরে আক্রান্ত হয়ে পড়েছে সব বয়সী নারী-পুরুষ। বাড়ছে শীতজনিত ঠাণ্ডা, জ্বর, সর্দি, কাশি, শ্বাসকষ্ট, হাঁপানি, বিশেষ করে ডাইরিয়া, নিউমোনিয়াসহ নানা রোগের প্রভাব। অন্যদিকে শীতজনিত রোগ-বালাই থেকে রক্ষা পেতে সতর্ক থাকার পরার্মশ দিয়েছেন চিকিৎসকরা।

উপজেলার সাতটি ইউনিয়ন কঞ্চিপাড়া, উড়িয়া, উদাখালী, গজারিয়া, ফুলছড়ি, ফজলুপুর ও এরেন্ডাবাড়িতে প্রায় দুই লাখ মানুষের বসবাস। এর মধ্যে প্রায় ৮০ হাজার মানুষেই হতদরিদ্র। আবার ওই ৮০ হাজারের মধ্যে ছিন্নমূল ৩০ হাজার হতদরিদ্র মানুষ রয়েছে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বেড়িবাঁধ, রেললাইনের ধার, পরিত্যক্ত স্থান, সড়ক ও বিভিন্ন জায়গায়। এদের অবস্থা আরও করুন। তাই শীত সবচেয়ে বেশি কাবু করেছে স্বল্প আয়ের এসব মানুষগুলোকে।

এদিকে, লেপ-তোশকের দোকানের কারিগররাও ব্যস্ত সময় পার করছে এখন। ফুলছড়ি বাজারের লেপ-তোশক দোকানদার বাবু মিয়া জানান, সকাল থেকে রাত পর্যন্ত কারিগররা লেপ তৈরির কাজ করছে। এবার তুলার দাম একটু বেশি হওয়ায় বড় লেপের দাম গত বছরের তুলনায় ১৫০ থেকে ২০০ টাকা বেশি পড়বে। আর সিঙ্গেল লেপে বেড়েছে ১০০থেকে১৫০ টাকার মত। পাশাপাশি কারিগরদের মজুরীও এবার একটু বেশি।

ফুলছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অাবাসিক মেডিক্যাল অফিসার জানান, ঠান্ডাজনিত রোগগুলো গত বছরের তুলনায় এবার বেশি।

যেমন সর্দি-কাশি ও জ্বরসহ নানা রোগ থেকে নিজেকে সুস্থ্য রাখতে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে। বিশেষ করে শিশুদের শীতের সময় পানি ফুটিয়ে খাওয়াতে হবে, গরম কাপড়-চোপর পড়িয়ে রাখতে হবে। কোন ক্রমেই ঠান্ডা যেনো না লাগে সেই দিকে সবাইকে খেয়াল রাখতে হবে। এছাড়া কেউ অসুস্থ্য হলে অবহেলা না করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে ডাক্তারের পরামর্শ নেয়ার জন্য পরামর্শ দেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...