আজ ৩রা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং

ফুলছড়িতে বন্যায় ক্ষতি ১০০কোটি টাকা

আতিয়ার রহমান। স্ত্রী সন্তান নিয়ে বসবাস করতেন ব্রহ্মপুত্র বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধে। গত বছর পানি উন্নয়ন বোর্ড বাঁধ সংস্কারের উদ্যোগ গ্রহণ করায় অন্যান্যদের মত উচ্ছেদ হতে হয় তাকেও। অনেক কষ্টে মধ্য উড়িয়ায় এক খন্ড জমি কিনে সেখানে মাটি কেটে ঘর তৈরি করে পুনরায় বসবাস করতে থাকেন তিনি। বন্যায় তার বাড়িতে পানি উঠলে সবকিছু ফেলে রেখে স্ত্রী সন্তান নিয়ে আবারও আশ্রয় নেন বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধে।

এদিকে বন্যার পানির তীব্র স্রোতে ভাসিয়ে নিয়ে যায় তার ঘর-বাড়ি, আসবাবপত্র, এমনকি হাঁস-মুরগী। সবকিছু হারিয়ে পথে বসেন আতিয়ার। আতিয়ারের মত হাজারো মানুষকে ভিটে-মাটি হারিয়ে নিঃস্ব করেছে এবারের বন্যা। গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের ১১২ টি গ্রাম এবারের ভয়াবহ বন্যার কবলে পড়ে। এসব ইউনিয়নের কৃষি, মৎস্য, প্রাণি সম্পদ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ও সড়ক যোগাযোগের ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে। বন্যায় প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে প্রায় ১ লক্ষ ৬০ হাজার মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আর আর্থিক মূল্যে এ ক্ষতির পরিমান প্রায় ১০০ কোটি টাকা।

বিভিন্ন সময়ে জনপ্রতিনিধিরা ক্ষয়-ক্ষতি পুষিয়ে দিতে ব্যবস্থা নিবেন বলে আশ্বাস দিলেও এখন পর্যন্ত তার কোন বাস্তবায়ন দৃশ্যমান হয়নি। চলতি বছরের বন্যায় ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্থের স্বীকার হয়েছে ফুলছড়ি উপজেলার বন্যাকবলিত কৃষকেরা। বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে তাদের বাড়ি-ঘর, ফসলের ক্ষেত, ভেসে গেছে বীজতলা। শেষ সম্বলটুকু হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়েছেন বন্যাকবলিত এ এলাকার কৃষক। বেশির ভাগ কৃষকের ফসল নষ্ট হয়ে যাওয়ায় তাঁদের একমাত্র সম্বল এখন চাপা দীর্ঘশ্বাস। বন্যার ক্ষয়ক্ষতি সম্পর্কে বর্ণনা করতে গিয়ে কেঁদে উঠছেন অনেক অসহায় কৃষক। একদিকে নদী ভাঙ্গন অন্যদিকে বন্যা সবমিলিয়ে পথে বসিয়েছে এ এলাকার কৃষককে। ফুলছড়ি উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের হিসাব অনুযায়ী এবারের বন্যায় ৩ শত ২০ হেক্টর জমির রোপা আমনের বীজতলা, ৩ হাজার ৪ শত ২৫ হেক্টর জমির পাট, শাক-সবজি, মরিচ ও ভুট্টা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। টাকার অঙ্কে এ ক্ষতির পরিমান প্রায় ১৫ কোটি টাকা।

কিন্তু কৃষকদের এ ক্ষতির বিপরীতে সরকারের পক্ষ থেকে কৃষি প্রনোদনা বাবদ বরাদ্দ প্রদান করা হয়েছে মাত্র ৪৫ লক্ষ টাকা। মজার ব্যাপার হলো তালিকা প্রনয়নে জটিলতার কারণে মাসকলাই বাদে এখন পর্যন্ত কোন কৃষককে প্রনোদনার সার ও বীজ সহায়তা প্রদান করা সম্ভব হয়নি। ইতোমধ্যে সরিষা, ভুট্টা ও গম রোপনের সময় শেষ হওয়ায় সরকারের উদ্দেশ্য ব্যাহত হচ্ছে বলে মনে করেন অনেক কৃষক। উপজেলা মৎস্য দপ্তর সূত্রে জানা যায় এ উপজেলায় ১ হাজার ২ শত ৮ টি মৎস্য খামার ও পুকুর ডুবে এবং পাড় ভেঙে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন প্রায় ১ হাজার মৎস্য চাষী। মাছ ও পোনা ভেসে গিয়ে ক্ষতি হয়েছে প্রায় ১ কোটি ২২ লাখ টাকা। এ উপজেলার ১২৯টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ১৬টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও ৬টি উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের কলেজসহ ২১৫ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বন্যার কারণে পাঠদান বন্ধ ছিল। ৫ টি প্রাথমিক বিদ্যালয় নদী ভাঙ্গনের শিকার হয়েছে। এছাড়া বন্যায় আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৫১টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ১৬ টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়। এ খাতে প্রায় ২ কোটি ২০ লক্ষ টাকার ক্ষতিসাধন হয়েছে। এখন পর্যন্ত এ খাতে কোন বরাদ্দ প্রদান করা হয়নি বলে সংশ্লিষ্ট দপ্তর সূত্রে জানা গেছে।

উপজেলা প্রাণি সম্পদ দপ্তরের হিসাব অনুযায়ী কোন গবাদিপশুর প্রাণহানি না হলেও সাধারণ মানুষের হাঁস-মুরগী মরে ও ভেসে গিয়ে প্রাণি সম্পদ বিভাগের আওতায় ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে প্রায় ৬ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগ এবং ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা দপ্তরের তথ্য মতে বন্যার পানিতে তলিয়ে এবং পানির তীব্র স্রোতের কারণে ফুলছড়ি উপজেলার যোগাযোগ ব্যবস্থার ব্যাপক ক্ষতিসাধন হয়। এলজিইডি এবং ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা দপ্তরের বেশ কিছু রাস্তাঘাট ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এলজিইডির হিসাব অনুযায়ী ৬৩ কিলোমিটার পাকা রাস্তা, ৪১৩ কিলোমিটার কাঁচা রাস্তা, ৪০ টি ব্রিজ ও ১৪৬ টি কালভার্ট ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। যার ক্ষয়ক্ষতির পরিমান প্রায় ৬২ কোটি টাকা। বিশাল পরিমান ক্ষয়-ক্ষতির বিপরীতে এখন পর্যন্ত এ দপ্তরে কোন বরাদ্দ প্রদান করা হয়নি বলে জানান সংশ্লিষ্ট দপ্তরের প্রধান। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন দপ্তর সূত্রে জানা যায়, চলতি বছরের বন্যায় ১ হাজর ২ শত টি বাড়ি-ঘর নদী ভাঙ্গনের শিকার হয়েছে।

এছাড়া বন্যার পানিতে আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৬ হাজারটি বাড়ি-ঘর। যার আর্থিক মূল্য প্রায় ৩৫ কোটি টাকা। এসব মানুষের গৃহ নির্মানের জন্য মাত্র ৩০০ বান্ডিল ঢেউটিন ও ৯ লক্ষ টাকা বরাদ্দ পাওয়া গেছে। এ বছরের এপ্রিলে বন্যায় এ অঞ্চলে স্মরণকালের বড় দুর্যোগ নেমে এসেছিল। বাঁধভাঙ্গা বন্যার প্রবল স্রোতে ফুলছড়ির চর-দ্বীপচরের ফসল তলিয়ে গিয়েছিল। ফুলছড়িবাসী এখনও সেই বিপর্যয় কাটিয়ে উঠতে পারেনি। এখনও ফুলছড়ির মানুষ সংকটকাল অতিক্রম করছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...