আজ ৫ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৮ই এপ্রিল, ২০২৪ ইং

পুলিশের গুলিতে পা হারানো পঙ্গু কিনু’র সংবাদ সম্মেলন

গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার ঢোলভাঙ্গার বাসিন্দা পঙ্গু ইসরাফিল হোসেন কিনু গত ২০১৯ সালের ২৯ জানুয়ারি রাতে পলাশবাড়ী থানা পুলিশের গুলিতে পা হারিয়ে বর্তমানে ওই ঘটনার বিষয়টি সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে বিচারের দাবীতে এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

৫ জানুয়ারি (রোববার) দুপুরে উপজেলার ঢোলভাঙ্গা বাজারের এক সংবাদ সম্মেলনে উপজেলার ঢোলভাঙ্গা গ্রামের মৃত আব্দুল ছাত্তারের ছেলে ইসরাফিল হোসেন কিনু তার লিখিত লিখিত বক্তেব্য বলেন, গত ২৯/০১/২০১৯ তারিখে অনুমানিক সকাল ১০টার সময় ঢোলভাঙ্গা বাজারের জাহাঙ্গীরের ফলের দোকানের সামন হতে পলাশবাড়ী থানার এএসআই মাইদুল ইসলামসহ আরো একজন পুলিশ কনস্টেবল সিভিল পোশাকধারী আমাকে এসে কোন গ্রেফতারি পরোয়ানা না দেখিয়ে জোরপূর্বক মোটরসাইকেল যোগে থানায় নিয়ে যায়।

থানায় নিয়ে যাওয়ার পরে পুলিশ মোটাঅংকের অর্থ দাবি করে বসে। কিন্তু আমি তাদের দাবিকৃত অর্থ না দিতে পারায় তারা আমাকে অমানবিক নির্যাতন করে। পরে ওই রাতেই ১২টার পর পুলিশ আমাকে থানার হাজতখানা থেকে বের করে দুই হাতের পিছনে হ্যান্ডকাফ লাগিয়ে আমার পড়নের থাকা ফুল প্যান্ট ও মুজা খুলে লুঙ্গি পড়িয়ে চোখ বাধিয়ে বুকে বেল্ট লাগিয়ে থানার দোতালা থেকে নামিয়ে আমাকে একটি গাড়িতে ওঠায়। গাড়িটি কিছুদুর যাওয়ার পর গাড়ি থেকে আমাকে নামিয়ে পিছন দিক থেকে আমার হাটু বরাবর বন্দুকের নল ঠেকিয়ে ডানপায়ে হাটুর নিচে গুলি করে। আমি সাথে সাথে চিৎকার দিয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ি। পরবর্তীতে পুলিশ আমাকে রক্তাক্ত অবস্থায় প্রথমে গাইবান্ধা সদর হাসপাতাল ভর্তি করে।

সেখানে আমার অবস্থার অবনতি হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে স্থানান্তর করে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আমার ডান পায়ের হাটুর উপরে কেটে ফেলা হয়। তারপরথেকে আমি পঙ্গু অবস্থায় জীবন যাপন করছি। পরবর্তীতে আমি বিজ্ঞ আদালত জামিন মুক্তি পেয়ে থাকি। তিনি আরো বলেন, জামিনে মুক্তি পাওয়ার পর আমি গত ২০১৯ সালের ১৯ মার্চ পলাশবাড়ী থানার এএসআই মাইদুল ইসলামসহ ১১জনকে আসামী করে বিজ্ঞ আদালতে একটি মামলা (নং- সিআর-৬২/১৯) দায়ের করি। বিজ্ঞ আদালত মামলাটির তদন্তভার পলাশবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে দায়িত্ব প্রদান করেন। তদন্তকারী কর্মকর্তা আরো মামলার বিষয়টি অধিকতর তদন্তের জন্য বিজ্ঞ আদালতে সুপারিশ করেন। বিজ্ঞ আদালত পরবর্তীতে সুষ্ঠ তদন্তের জন্য জেলা আনসার ভিডিপি অ্যাডজুডেন্টকে দায়িত্ব প্রদান করেন। মামলার বিষয়টি তদন্তধীন রয়েছে।

কিনু বর্তমানে বঙ্গুত্ববরণ করে পরিবার-পরিজন নিয়ে অসহায় ভাবে জীবন যাপন করছেন। বর্তমানে মামলাটি তুলে নেয়ার জন্য পলাশবাড়ী থানার এএসআই মাইদুল ইসলাম বিভিন্ন ভাবে ভয়ভীতিসহ মেরে ফেলার হুমকি প্রদান করে আসছেন। আমার পরিবার-পরিজন নিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। আমার এই অবস্থার বিষয়টি আপনাদের কাছে তুলে ধরে উপরোক্ত ঘটনার বিষয়টি সঠিক তদন্ত সাপেক্ষে বিচারের জন্য মাননীয় আইনমন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট বিভাগের সকলের প্রয়োজনীয় হস্তক্ষেপ কামনা করছি। এসময় সংবাদ সম্মেলনে পঙ্গু ইসরাফিল হোসেন কিনু, তার মা জরিনা বেওয়া, স্ত্রী শরিফা বেগম, শিশু সন্তান শুভ ও সোহান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...