আজ ১০ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৪শে জুন, ২০২১ ইং

পুরাতন জজকোর্ট চত্বরে জিহাদকে মারধরের মামলা পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ

গাইবান্ধা জেলা শহরের কাচারিবাজারে পুরাতন জজকোর্ট চত্বরে জিহাদ হোসেন নামের এক ব্যবসায়ীকে মারধরের মামলা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্ত করতে আদেশ দিয়েছেন আদালত। বুধবার দুপুরে গাইবান্ধা জজকোর্টে আমলী আদালতের (সদর) বিচারক নজরুল ইসলাম এই আদেশ দেন।


মামলার বিবরণে জানা যায়, গাইবান্ধা শহরের পুরাতন জজকোর্টের সামনে জিহাদ হোসেনের বাবার একটি দোকান আছে। এই দোকানটি আলমগীর হোসেন নামের একজনকে ভাড়া দেওয়া হয়েছে। পুরাতন জজকোর্ট চত্বরেই মাহাবুবার রহমান বাবুলেরও একটি কনফেকশনারীর দোকান রয়েছে। জিহাদ হোসেনের দোকানের পিছনে রাখা একটি জায়গায় ওয়েল্ডিং মেশিন ও অ্যাঙ্গেলসহ কিছু মালামাল রাখা ছিল। ২০১৮ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি দুপুরে সেসব মালামালসহ মাহাবুবার রহমান বাবুল ইটের গাঁথুনি দেওয়ার চেষ্টা করেন।

এ খবর পেয়ে জিহাদ হোসেন ঘটনাস্থলে গিয়ে বাঁধা দিলে তাকে মাহাবুবার রহমান বাবুল, মোস্তাফিজুর রহমান বাবলা, শাপলা মিয়া, শারবিন মোস্তাফিজ, মো. রবিন ও সোহেল মিয়া লোহার হাতুড়ী ও লোহার রড দিয়ে মারধর করেন। এরপর আলমগীর হোসেনের দোকানে ঢুকে ভাঙচুর করে ১ লাখ টাকার ক্ষতি করেন ও নগদ ২০ হাজার টাকা বাহির করে নেন। তাদেরকে জীবননাশের হুমকি দিয়ে মাহাবুবার রহমান বাবুলসহ ৬জন চলে যান ঘটনাস্থল থেকে। তাদের মারধরে গুরুতর আহত হলে জিহাদ হোসেনকে প্রথমে গাইবান্ধা জেলা সদর হাসপাতাল ও পরে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে জিহাদ হোসেনের স্ত্রী ববি বেগম এ ঘটনায় সদর থানায় এজাহার দায়ের করলে ১১ ফেব্রুয়ারি মামলা হিসেবে রেকর্ড করা হয় ও মামলার তদন্তভার দেওয়া হয় পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মজিবর রহমানকে। তিনি তদন্ত শেষে গত বছরের ফেব্রæয়ারিতে বাদীর অভিযোগ ৩২৩ ধারায় তথ্যগত ভুল প্রমাণিত হয়েছে এমনটি উল্লেখ করে চূড়ান্ত রিপোর্ট গাইবান্ধা আদালতে জমা দেন। সেই চূড়ান্ত রিপোর্টে তিনি উল্লেখ করেন, জিহাদ হোসেনের দোকানের পেছনে থাকা একটি পুরাতন দেয়াল ভাঙার সময় জিহাদ সামান্য আঘাতপ্রাপ্ত হন।

এসময় এই দেয়াল ভাঙাকে কেন্দ্র করে জিহাদ হোসেন এবং মাহাবুবার রহমান বাবুল ও তার লোকজনের মধ্যে তর্ক-বিতর্ক ও ধাক্কা-ধাক্কি হয়। পরে জিহাদ হোসেনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এই চূড়ান্ত রিপোর্টের বিরুদ্ধে নারাজি আবেদন দাখিল করেন বাদী ববি বেগম।

কয়েক দফায় শুনানি শেষে পরে অধিকতর তদন্তের জন্য বুধবার গাইবান্ধা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।
মামলার বাদী ববি বেগম বলেন, পুলিশ উদ্দেশ্য প্রণোদিত ও ইচ্ছাকৃতভাবে এই মামলায় চূড়ান্ত রিপোর্ট দিয়েছে। তাই সেই চূড়ান্ত রিপোর্টের বিরুদ্ধে আদালতে আমি নারাজি আবেদন করেছি অধিকতর তদন্তের জন্য।
রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবি সাঈদ আহমেদ আজাদ জয় বলেন, নারাজির বিষয়ে দুইদিন শুনানি হয়। বুধবার শুনানি শেষে বিচারক গাইবান্ধা পিবিআইকে অধিকতর তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...