আজ ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৩ই জুন, ২০২১ ইং

ভিক্ষুক থেকে সম্পদশালী বনে যাওয়ার সাতকাহন (পর্ব-১)

গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ ভূয়া কাগজপত্র দিয়ে বিভিন্ন নামে মাদ্রসা প্রতিষ্ঠা করে নিয়োগ বাণিজ্য, জাল সনদপত্র সহ নানা অনিয়ম ও দুর্ণীতির মাধ্যমে অবৈধ সম্পদের পাহাড় গড়ে তুলেছেন গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলার কিশামত খেজুর গ্রামের বাসিন্দা আব্দুল মান্নান পিসি।

জানাগেছে, ওই গ্রামের এক সময়ের হতদরিদ্র কৃষক মৃত গেন্দা মামুদ বেপারীর ছেলে আব্দুল মান্নান (৫২) অভাবের কারণে এক সময় বাস ও ট্রেনে অন্ধ ব্যক্তির অভিনয় করে ভিক্ষাবৃত্তি করতেন। এরপর সে নিজেকে গ্রাম্য চিকিৎসক পরিচয় দিয়ে চিকিৎসার নামে ব্যবসা শুরু করেন। সেই থেকে ডিগ্রী হিসেবে তাঁর নামের পাশে পিসি যোগ করে আব্দুল মান্নান পিসি হিসেবে পরিচিতি লাভ করেন। শিক্ষাগত কোন যোগ্যতা বা প্রতিষ্ঠানিক কোন সনদপত্র না থাকলেও প্রথমে ক্রয়করা এবং পরে ভ‚য়া ক্বারীয়ানা সনদপত্র দিয়ে নিজের বাবার নামে জিএমবি দাখিল মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করে সেই প্রতিষ্ঠানের ক্বারী শিক্ষক হিসেবে এখনও বহাল রয়েছেন তিনি। ভূয়া ক্বারীয়ানা সনদপত্রে তাঁর জন্মসাল ১৯৬৮ থাকলেও ১৯৭৮ সালে নিজে কীভাবে মাত্র ১০ বছর বয়সে মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করেছেন তা নিয়ে স্থানীয় জনমনে রয়েছে নানা সংশয়। তাঁর প্রতিষ্ঠা করা দাখিল মাদ্রাসায় প্রতিষ্ঠার পর থেকেই তিনি কর্মরত থাকলেও ১৯৮৪ সালে তিনি ক্রয়কৃত ভূয়া সার্টিফিকেট দিয়ে কাগজে কলমে নিয়োগ পেয়েছেন।

পরবর্তিতে রংপুর জেলার পীরগাছা এইচ.এস.ইউ সিনিয়র মাদ্রাসা থেকে ১৯৯২ সালে দাখিল পাশের সার্টিফিকেট যোগার করেন। অথচ এই নামের কোন মাদ্রাসা পীরগাছা এলাকায় আছে কিনা সে বিষয়েও সন্দিহান এলাকাবাসী? স্থানীয় মানুষ অভিযোগ করে জানিয়েছেন, বিভিন্ন এলাকায় তিনি নামে-বেনামে ভূয়া কাগজপত্র দিয়ে বহু মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠার কর্মযজ্ঞ দেখিয়ে নিয়োগ বাণিজ্য করে প্রতারণার মাধ্যমে অনেক অর্থ-সম্পদের মালিক হয়েছেন। তিনি এলাকার বহু নিরীহ মানুষকে ভুলিয়ে এবং এমপিও ভুক্ত হওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ভ‚য়া নিয়োগ দেখিয়েছেন। এক সময়ের ভিক্ষুক আব্দুল মান্নান পিসি এখন প্রতারণার জন্য প্রতিষ্ঠান গড়ার কারিগর হিসেবে নিজেকে উপস্থাপন করছেন।

এ বিষয়ে উক্ত ক্বারী শিক্ষক আব্দুল মান্নান পিসির কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি ক্রয় করা বাজারী সার্টিফিকেট দিয়ে চাকুরীতে যোগদানের কথা স্বীকার করেছেন। এছাড়াও তিনি নামে-বেনামে ২৬টি মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠার কথা স্বীকার করেন।জিএমবি কিশামত খেজুর দাখিল মাদ্রসার বর্তমান সুপার মওলানা মো. হোসেন আলী ভূয়া কাগজপত্র দিয়ে চাকরী করা আব্দুল মান্নান পিসির সকল কর্মকান্ডের কথা স্বীকার করার পাশাপাশি বলেন মুখ খুললেই তো সমস্যা।জেলা শিক্ষা অফিসার এনায়েত হোসেন জানান, বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে। যদি তাঁর বিরুদ্ধে এ সকল কর্মকান্ডের প্রমাণ পাওয়া যায় তাহলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে তিনি আরও জানিয়েছেন।শুধু এতেই ক্ষান্ত হননি এই মান্নান পিসি তার স্ত্রীকেউ একই ভাবে ক্রয় কৃত বাজারী কারিয়ানা সার্টিফিকেট দিয়ে ডিজিটাল পোষ্ট অফিসের পোষ্ট মাষ্টার হিসেবে নিয়োগের ব্যবস্থা করে সরকারের রাজস্ব ধ্বংস করছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...