আজ ২রা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৬ই জুন, ২০২৪ ইং

পার্বত্যবাসীর নামে দাতা সংস্থা থেকে টাকা এনে আঙ্গুল ফুলে কলা গাছ অনেক এনজিও দেশের এই ক্রান্তি লগ্নে দেখা মিলছে না পার্বত্যাঞ্চলের উন্নয়নে নামে কাজ করা এনজিও গুলোর

 রাঙ্গামাটি প্রতিনিধি : দেশের এই ক্রান্তি লগ্নে দেখা মিলছে না পার্বত্য অঞ্চলের উন্নয়নে নামে কাজ করা এনজিও গুলোকে। পাহাড়ের উন্নয়নে বিদেশ দাতা সংস্থা গুলো লক্ষ লক্ষ মার্কিন ডলার বরাদ্দ আনলেও পাহাড়ে কর্মরত এনজিও গুলো করোনা ভাইরাস নির্মুলে কোন ধরনের পদক্ষেপ দেখা যাচ্ছে না। শুধুমাত্র সীমিত পরিসরে জাতীয় এনজিও সংস্থা ব্র্যাক এবং স্থানীয় আশিকা উন্নয়ন কেন্দ্র ছাড়া আর কোন এনজিও কর্মকান্ড চোখে না পাড়ায় ক্ষুব্ধ হয়েছেন রাঙ্গামাটির সাধারণ মানুষ।

দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে পাহাড়ের দুর্গম এলাকা গুলোতে ঘুরে দেখা গেছে সরকার, রাজনৈতিক দল এবং সাধারণ মানবতাবাদী মানুষ গুলো যেখানে দুর্গম এলাকার কর্মহীন মানুষের ঘরে ঘরে খাদ্যশষ্য পৌছানোর কাজ করছে সেখানে এনজিও গুলোর কোন খবর নেই। বরং পাহাড়ে মানুষের ভাগ্যোন্নয়নের নামে এনজিও গুলো বিদেশী দাতা সংস্থা গুলোর কোটি কোটি টাকা বরাদ্ধ নিয়ে তারা তাদের পকেটে ভরাচ্ছে।

কোটি কোটি টাকা দিয়ে নিজস্ব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলছে এবং বড় বড় দালান তৈরী করছে। দেশের এই দূর্যোগ মুহুর্তে তাদের পকেট থেকে একটি টাকাও বের হবে না বলে মন্তব্য করেন করেন সাধারণ মানুষ। সরকারী তালিকা অনুযায়ী রাঙ্গামাটি জেলায় কাজ করছে প্রায় ১৩০টিওর বেশী এনজিও। যে এনজিও গুলো পার্বত্য অঞ্চলের মানুষের ভাগ্যোন্নয়নের নামে বিভিন্ন দাতা গোষ্ঠী থেকে বিভিন্ন প্রজেক্ট এনে পাহাড়ের সাধারণ মানুষের ভাগ্যেও উন্নয়ন ঘটাতে না পারলেও নিজেদের ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটিয়েছে। বর্তমানে অনেক এনজিও নিজেদের ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটিয়ে আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হয়ে গেছে।

কিন্তু পাহাড়ের মানুষের ভাগ্য যে তিমিরে ছিলো সেই তিমিরেই রয়ে গেছে। তাদেরকে দু বেলা অন্য জোগার করতে হারভাঙ্গা খাটুনি খাটতে হয়। কিন্তু তাদের দেখিয়ে এনজিও গুলো আজ মানুষ হয়ে গেছে। একেক জনের বড়ো বড়ো দালান, গাড়ী বাড়ী সহ বিভিন্ন স্থাবর অস্থাবর সম্পত্তি ও নামে বেনামে সম্পত্তি রয়েছে। তবে এনজিওর টাকার ভাগ পার্বত্য অঞ্চলের অনেক বড়ো বড়ো বাবুর পকেটেও ঢুকেছে বলে মন্তব্য করেন সচেতন মানুষ।

এনজিও গুলো আছে পার্বত্য অঞ্চলের বড়ো বড়ো সেমিনার সিম্পোজিয়ামে সীমাবদ্ধ। পার্বত্য এলাকার এনজিও নামে যেন টাকার হরিলুট, একই প্রকল্প ৪/৫টি ডোনার এনজিও থেকে নিয়ে একই গ্রামে একটি প্রজেক্ট করে। কিন্তু যে ডোনার আসুক তারা এই প্রজেক্ট ৪/৫টি দাতা সংস্থাকে দেখায় টাকা খরচ করে একবার আর অন্যগুলো নিজেদের পকেট ভরে।

তারা শুধু চেয়ে থাকে কখন দূর্যোগ নামে সেই সুযোগে দাতা সংস্থা গুলোর কাছে চিটি চালাচালি করে বড়ো বড়ো অংকের অর্থ নিয়ে আসবে সেই আসায় বসে থাকবে তাদের পকেট ভরানোর জন্য। কিন্তু দেশের এই ক্রান্তি লগ্নে তারা নিজেদের পকেট থেকে তো টাকা খরচ নামে টাকা নয় ছয় করার তালে রয়েছে। বর্তমানে রাঙ্গামাটিতে কোন দাতা গোষ্ঠীর ফান্ড না থাকায় মাত্র ১০ থেকে ১৫ টি এনজিও কাজ করছে এমন তথ্য পাওয়া গেছে।

রাঙ্গামাটির দুর্গম বন্দুক ভাঙ্গা ইউনিয়নের স্বামী হারা এক বলেন, এই কয়েক দিনে আমাদের পাশে কেউ দাড়ায় নি। ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের মাধ্যমে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আমাদের কাছে খাদ্যশস্য নিয়ে এসেছে। এখানে অনেক এনজিও থাকলেও তারা কেউ আমাদের জিজ্ঞাসাও করেনি আমরা কী ভাবে আছি। তারা আমাদের কাছে এসে শুধু বিভিন্ন সভা সেমিনার করে ছবি তুলে নিয়ে যায় কিন্তু কোন সহযোগিতা পাওয়া যায় না তাদের কাছ থেকে।

বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা আশিকার বিপ্লব চাকমা জানান, করোনা ভাইরাস সম্পর্কে আমরা সচেতনতা মুলক কাজ করছি। বিভিন্ন এলাকায় ব্যানার লাগিয়ে জনগনকে সচেতন করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। তিনি বলেন, পাহাড়ের মানুষ এপ্রিল মে মাসে একটি খাদ্যা সংকটে থাকে। তারা নিজেদের গরু, হাঁস মুরগী কলা বিক্রি করে কোন রকমে চলে। কিন্তু বর্তমানে করোনা ভাইরাসের কারণে রাঙ্গামাটির হাট বাজার গুলো বন্ধ রয়েছে। বর্তমানে সরকারের দেয়া খাদ্য সামগ্রী দিয়ে চলছে। আগামী কিছু দিনের মধ্যে এর প্রভাব পড়বে। তাই আমরা চিন্তা করছি আগামী ১৫ দিনের মধ্যে ১ হাজার পরিবারকে চাল, আলু, লবন, সিদল, বাঙ্গালীদের জন্য সুটকী সহ বিভিন্ন নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য সামগ্রী বিতরণ করবো।

জাতীয় এনজিও ব্র্যাকের রাঙ্গামাটি জেলা সমন্বয়ক মোঃ হাবিবুর রহমান জানান, ব্র্যাক সারা দেশে করোনা নিয়ে কাজ করছে। রাঙ্গামাটি জেলায় ইতিমধ্যে ৫০ হাজারের ও বেশী লিফলেট মানুষের বাড়ী বাড়ী পৌছে দেয়া হয়েছে। এছাড়া রাঙ্গামাটি জেলায় প্রতিদিন সচেতনতামুলক মাইকিং চলছে। এছাড়াও রাঙ্গামাটি শহর সহ ১০ উপজেলায় ৪০টি ব্র্যাকের অফিস রয়েছে প্রতিটি অফিস থেকে ৩ থেকে ৪ টি মাইকিং বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে ঘুরে মাইকিং করছে। তিনি বলেন, আমাদের অফিসের সকলের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সারা দেশের খাদ্য শষ্য বিতরণ কার্যক্রম আমরা হাতে নিচ্ছি। রাঙ্গামাটি থেকেও প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। আগামী কিছু দিনের মধ্যে এর রেজাল্ট চলে আসবে।

আমরা দরিদ্র শ্রেণীর মাঝে খাদ্যশষ্য পৌছে দিতে পারবো। এদিকে রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক এ,কে,এম মামুনুর রশিদ বলেন, পাহাড়ের এনজিও গুলো কি কাজ করে তা এবার খতিয়ে দেখা দরকার হয়েছে। তাদেরকে এই অনুরোধ করার পরও তারা কোন কাজে করতে দেখা যায়নি। এটা বরই দুঃখ জনক। তিনি বলেন, দুর্গম সাজেক শিশুরা পুষ্টিহীনতায় ভুগছে কিন্তু কিছু দিন আগেও একটি এনজিও এসে আমার অফিসে সভা সেমিনার করে ছবি তুলে নিয়ে গেছে। তারা যদি কাজ করে তাহলে সমাজের এই দুরদশা কেন। তিনি বলেন, পুষ্টি নিয়ে যারা কাজ করছে তাদেরকে খবর দিতে রাঙ্গামাটি সিভির সার্জনকে নির্দেশনা প্রদান করেন রাঙ্গামাট জেলা প্রশাসক।

তিনি বলেন তারা কী শুধু ছবি তুলে সেমিনারেই শেষ কাজ নাকি। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন আগামী মাসের এনজিও সমন্বয় সভায় আমি থাকবো তারা কী কী কাজ করে তার পুরো হিসাব আমাকে নিতে হবে। কোটি কোটি টাকা বরাদ্ধ নিয়ে নিজেদের পকেট ভরাবে হতে পারে না। এনজিও গুলো কোথায় কোথায় কাজ করে তার ততারকি করা হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...