আজ ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৩ই জুন, ২০২১ ইং

পরিবহন শ্রমিকদের দিন কাটছে অনাহারে

 মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি: সম্প্রতি সময়ে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে থমকে গেছে গোটা পৃথিবীর পরাক্রমশালী রাষ্টগুলো থেকে উন্নত, উন্নয়নশীল অনুন্নত সহ প্রায় বিশ্বের সকল দেশেই প্রতিদিনই এ ভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছে হাজার হাজার মানুষ । আক্রান্তদের তালিকায় প্রতিদিনই মৃত্যুর তালিকায় নাম লেখাচ্ছে কয়েক হাজার মানুষ। করোনাভাইরাস সংক্রমণে স্তব্ধ হয়ে গেছে পুরো বিশ্ব থেমে গেছে মানুষের জীবন যাত্রা, আকাশ পথ, নৌ পথ, সড়ক পথ, কলকারখানা, দোকান পাট, অফিস আদালত সকল কিছুই বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে এ ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে। গেলো বছরের ডিসেম্বরের শেষের দিকে এ ভাইরাস শনাক্ত হওয়ার পর বাংলাদেশে চলতি বছরের মার্চের ৮ তারিখে প্রথম আক্রান্ত ব্যক্তির সন্ধান মেলার পর থেকেই এ ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে সরকার নানা উদ্যোগ গ্রহন করে যার মধ্যে সকল প্রকার গণ পরিবহন বন্ধের সিদ্ধান্ত অন্যতম । সরকারি নির্দেশনায় ২৬ শে মার্চ থেকে ৫ এপ্রিল পর্যন্ত ১০ দিন বলা হলেও যা পরবর্তী সময়ে আরো সাতদিন বাড়িয়ে এপ্রিলের ১১ তারিখ পর্যন্ত গণ পরিবহন চলাচলের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে সরকার। তবে দেশের কয়েকটি বিভাগে সরকারি নির্দেশনার পুর্বে ১৮ মার্চ থেকে দূরপাল্লার পরিবহন চলাচল বন্ধ করে দেয় পরিবহন মালিক সমিতি। যেখানে একদিন গাড়ির চাকা না ঘুরলে দেশের অর্থনৈতিক ব্যবস্থার উপরে বড় ধরনের ধাক্কা লাগে, ব্যবসা বানিজ্য ধ্বস নেমে যায় , সকল প্রকার পণ্য স্থানান্তর আমদানি রপ্তানি কার্য্যক্রম বন্ধ হয়ে যায়। অথচ এই মহাদুর্যোগে দেশের মোট জনসংখ্যার বড় একটি অংশ প্রায় ৭০ লাখ পরিবহন শ্রমিকের খোজ নিচ্ছেনা কেউ, বেশীর ভাগ শ্রমিকেরই দিন কাটছে অনাহারে । এই শ্রমিকের বড় একটি অংশ গৃহহীন, শিক্ষার আলো স্পর্শ করার সুযোগ হয়না দরীদ্র ঘরে বেড়ে ওঠার কারনে। মাসিক নির্ধারিত বেতন না থাকায় গাড়ির চাকা না ঘুরলে এ শ্রমিকের আয়রোজগার বন্ধ হয়ে যায়। অধিকাংশ শ্রমিকই দিনে আনে দিনে খায় এর উপরে নির্ভর করে চলে। একদিন গাড়ির চাকা না ঘরলে পরের দিনই পরিবার পরিজন নিয়ে অনাহারে কাটাতে হয় বেশীর ভাগ পরিবহন শ্রমিকের। মানিকগঞ্জ, রাজবাড়ি, ফরিদপুর, কুষ্টিয়া ও ঢাকার জেলার কয়েকজন শ্রমিক ও শ্রমিক ইউনিয়নের কয়েকজন শ্রমিক নেতার সাথে কথা বলে জানাগেছে, সু সময়ে রাস্তাঘাটে শ্রমিকের ইউনিয়েন অনেক নেতাই শ্রমিকদের থেকে নানা কায়দায় সংগঠনের নামে টাকা তুলে নিজে পরিবার পরিজন নিয়ে আরাম আয়েশী জীবন যাপন করলেও এ দুরসময়ে শ্রমিকদের খবর নিচ্ছেনা কেউ। ফরিদপুর শ্রমিক ইউনিয়নের এক শ্রমিক জানিয়েছেন, স্বল্প আয়ে পাচ জনের সংসার দিনে এনে দিনে খাই আমরা। আজ নয় দিন ধরে গাড়ি বন্ধ তাই আয় রোজগারও বন্ধ হয়ে গছে। এ সময়ে কেউ বাকিতেও মাল দিচ্ছেনা। কোন বেলা খেয়ে যাচ্ছে আবার কোন বেলা না খেয়ে যাচ্ছে । কিন্তু, মালিক, শ্রমিক নেতাসহ কেউ আমাদের খবর নিচ্ছেনা এমন চলতে থাকলে না খেয়েই মারা যাবো আমরা ভাই। রাজবাড়ি এক পরিবহন শ্রমিক জানিয়েছেন, মালিক পক্ষ থেকে চাল, ডাল, তেল, লবন আটা ময়দা সাহায্য দিয়েছে। কিন্তু বড় সংসার এ সাহায্য দিয়ে কতদিনই বা চলবে। দিনে কামাই করে দিনে খাওয়া মানুষ আমরা। মালিক ব্যতিত কোন শ্রমিক নেতা, বা সরকারের কেউ আমাদের খোজ নিতে আসলনা। আমরা কি খেয়ে বেচে আছি নাকি না খেয়ে মরে গেছি। দেশের এই পরিস্থিতি যদি আমরা সাহায্য সহযোগিতা না পাই তাহলে পরিবার পরিজন নিয়ে না খেয়েই মরতে হবে আমাদের। এদিকে অধিকাংশ শ্রমিক নেতা দাবি জানিয়েছেন, দেশের রপ্তানি খাতে যেমন পোশাক শ্রমিকদের অবদান অপরিসীম। তেমনি দেশের অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে সবচেয়ে বড় অবহেলিত নির্যাতিত এ পরিবহন শ্রমিকের। পোশাক শ্রমিকের ন্যয় সরকার পরিবহন শ্রমিকের ক্ষতি পুষিয়ে উঠতে খাদ্য সহায়তাসহ অর্থ বরাদ্দ দেবে সরকার। এ মহাদুর্যোগে দরিদ্র পরিবহন শ্রমিকের সহায়তায় সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ শিগিরই প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহন করবেন প্রত্যাশা পরিবহন শ্রমিকদের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...