আজ ১০ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ ইং

গাইবান্ধা থেকে ধান কাটতে ৫৪ কৃষি শ্রমিককে সুনামগঞ্জ ও গাজীপুরে প্রেরণ

গাইবান্ধা প্রতিনিধি : গাইবান্ধায় বোরো ধান পরিপক্ক হওয়ার বেশ আগেই ময়মনসিংহ, গাজীপুর, কুমিল্লা, সিলেট অঞ্চলসহ দেশের অনেক এলাকায় বোরো ধান পরিপক্ক হয়ে উঠেছে। বিশেষ করে হাওড় এলাকায় ধান আগে পাকে। তাই প্রতি বছরই এ সময় গাইবান্ধা থেকে প্রায় ২০/২৫ হাজার কৃষি শ্রমিক ধান কাটতে যায় ওই সব এলাকায়। ধান কাটা শেষ হলে আবার গাইবান্ধায় ফিরে এসে ধান কাটে।

মহাদুর্যোগ করোনার সামাজিক সংক্রমণরোধে ঘোষিত লকডাউনে কৃষি শ্রমিকদের অবাধ যাতায়াত বাধাগ্রস্ত হয়। ঠিক এমন পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা বাস্তবায়নে গাইবান্ধা জেলা প্রশাসন ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের বিশেষ ব্যবস্থাপনায় কৃষি উৎপাদন সচল রাখতে উৎপাদিত ধান কাটা ও মাড়াই কাজের জন্য স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন করোনায় তারুণ্যের সহযোগিতায় মঙ্গলবার কৃষি শ্রমিকের ৪৩ জনের একটি দলকে গাইবান্ধা থেকে সুনামগঞ্জের ধর্মপাশায় পাঠানো হয়। অপরদিকে গাইবান্ধার স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন গণ উন্নয়ন কেন্দ্রের সহযোগিতায় জেলা পুলিশের উদ্যোগে কৃষি শ্রমিকের ১১ জনের আরও একটি দলকে বিশেষ ব্যবস্থায় গাজীপুরে পাঠানো হয়েছে।

এর আগে কৃষি শ্রমিকদের প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয় এবং করোনা পরিস্থিতি নিয়ে শ্রমিকদেরকে স্বাস্থ্য সচেতনতামূলক নির্দেশনা দেয়া হয়। এছাড়াও শ্রমিকদের মধ্যে দুইটি করে উন্নতমানের মাস্ক ও হ্যান্ডওয়াশ বিতরণ করা হয়। পরে দুটি বিশেষ বাসে করে শ্রমিকরা সুনামগঞ্জ ও গাজীপুর যাওয়ার জন্য রওনা হয়।

জানা গেছে, চলতি বোরো মৌসুমে ভয়াবহ করোনা পরিস্থিতিতে জেলায় জেলায় লকডাউন থাকায় শষ্যভান্ডার খ্যাত চলনবিল অঞ্চলে কৃষি শ্রমিকের চরম সংকট দেখা দিয়েছে। দেশে খাদ্য সরবরাহ ঠিক রাখার জন্য দক্ষিণা অঞ্চলের এলাকায় সময়মত ধান কাটা প্রয়োজন। ফলে আসন্ন সম্ভাব্য ঝড়, বৃষ্টি, বন্যা সহ নানা প্রাকৃতিক দুর্যোগে তা ব্যাহত হতে পারে এমন আশংকায় সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য বিভিন্ন জেলায় নির্দেশনা পাঠানো হয়েছে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, এর আগে সোমবার গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা থেকে দুই দফায় নাটোরের চলনবিলে ৪২ জন কৃষি শ্রমিক পাঠানো হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...