আজ ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৯শে আগস্ট, ২০২২ ইং

গাইবান্ধা জেলা রিক্সা ভ্যান শ্রমিক ইউনিয়ন শ্রমিকদের সরকারি ভাতা দেয়ার কথা বলে টাকা নেয়ার অভিযোগ

গাইবান্ধা প্রতিনিধি : করোনা ভাইরাসে কর্মহীন নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য সরকার ইতোমধ্য নানামুখি পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। তারই অংশ হিসেবে শ্রমিকদের জন্য ভাতা দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে সরকার। সেই সুযোগে গাইবান্ধায় রিক্সা শ্রমিক ইউনিয়নের নেতারা শ্রমিকদের সরকারি ভাতা তালিকাভুক্তির নামে টাকা আদায় করছেন বলে অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী শ্রমিকরা। শ্রমিকরা জানায়, করোনা ভাইরাসের সংক্রামণ ঠেকাতে গাইবান্ধা জেলায় গত ১০ এপ্রিল লকডাউন ঘোষণা করেছে জেলা প্রশাসন। ফলে তারা খেয়ে না খেয়ে ঘরবন্দী আছে। এই দু:সময়ে সরকার ছাড়া আর কেউ নাই তাদের পাশে। সরকারি ভাবে সামান্য চাল ডাল আলু সহায়তা পেলেও, অনেকেই সরকারি-বেসরকারি কোনো সংগঠনের খাদ্য সহায়তা ভাগ্যে জোটেনি ফলে তারা সরকারি ভাতা পাওয়ার আশায় প্রতিদিন ঘুরছে সংগঠনের নেতাদের দারে দারে। কিন্তু নেতারা এই ভাতা তালিকাভুক্তিতে জনপ্রতি লাইসেন্স করার দাবি করছেন ৩শ’ টাকা। এ যেন মরার উপর খরার ঘা। আবার অনেকেই তাদের দাবিকৃত টাকা ধার দেনা করে দিয়েছেন।

সরকারি ভাতা তালিকাভুক্তিতে শ্রমিকদের কাছে থেকে টাকা নেওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করে সংগঠনটির সভাপতি শাহ আলম মিয়া বলেন, করোনায় জেলা লকডাউন ঘোষণার পর থেকে রিকশা শ্রমিকরা খুব কষ্টে দিন পার করছে। সংগঠনের পক্ষে এতোগুলো অভাবী মানুষকে খাদ্য সহায়তা দেওয়ার সার্মথ্য নেই। ইতোমধ্য প্রধানমন্ত্রী কর্মহীন শ্রমিকদের জন্য ভাতা দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। কিন্তু এখনও কোনো চিঠিপত্র আমরা পাইনি। তাই তালিকা করার প্রশ্নেই আসেনা। তবে এই ঘোষণা শুনে প্রতিদিনই শ্রমিকরা আসে তাদের নাম তালিকাভুক্তির জন্য। এরমধ্য আবার অনেকেরই লাইসেন্স নেই, কারো কারো হালনাগাদ নবায়নও হয়নি। তাদেরকে জরুরি ভিত্তিতে লাইসেন্স ও নবায়ন করতে বলা হয়েছে।

খোজ নিয়ে জানা গেছে, গাইবান্ধা লকডাউন ঘোষনার ১২ দিন চলছে। ফলে দিন এনে দিন খাওয়া নিম্ন আয়ের মানুষ পড়েছে চরম খাদ্য সংকটে। পাশাপাশি মধ্যবিত্ত পরিবারগুলোও পড়েছে মহাবিপাকে। অবশ্য বিভিন্ন সরকারি, বেসরকারি সংগঠন ও ব্যক্তি এসব নিম্ন আয়ের মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী হিসাবে ত্রাণ বিতরণ অব্যহত রেখেছে। কিন্তু প্রয়োজনের তুলনায় তা একেবারেই অ-প্রতুল।
এ ব্যাপারে ভূক্তভোগী ও সচেতন মহলের দাবী প্রকৃত শ্রমিকদের পূর্বের ভোটার তালিকা অনুযায়ী মাননীয় জেলা প্রশাসক মহোদয়ের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...