আজ ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৩ই জুন, ২০২১ ইং

করোনা: হলিতিে দুশ্চন্তিার মাঝওে মাঠে দুলছে কৃষকরে স্বপ্ন

হিলি প্রতিনিধি : খাদ্য শষ্য ভান্ডার হসিবেে পরচিতি উত্তররে জনপদ দনিাজপুর। দনিাজপুররে হাকমিপুর (হিলি) উপজলোর র্সবত্র ফসলরে মাঠ যনে এখন সোনালী এক বছিানা। যদেকিে চোখ যায় সদেকিইে সোনালীর সমারোহ। বাতাসে মাঠে মাঠে দুলছে কৃষকরে স্বপ্ন। চারদকিে এ এক নয়নাভরিাম দৃশ্য। পাকতে ধরছেে তাদরে বুনানো স্বপ্নরে ধান। আশায় রয়ছেে কৃষকরা।

কৃষকরে হৃদয়ে সঞ্চারতি হচ্ছে ভন্নি আমজে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় কৃষকরা বোরো আবাদে সুফল পাচ্ছনে। ভালো ফলনরে পাশাপাশি এবার বোরো ধানরে ন্যায্য মূল্য পাবে বলে কৃষকরা আশায় বুক বাঁধছে।

দশেব্যাপী করোনাভাইরাসরে দুশ্চন্তিার মাঝওে র্কমবীর কৃষকরে বশিাল জনগোষ্ঠীর খাদ্য চাহদিা মটোতে দনি-রাত সমানতালে পরশ্রিম করে আসছনে। জমি থকেে এক মুর্হূতরে জন্য বসে থাকার সময় নইে কৃষকরে। রোপা বোরোর আগাছা ও পোকামাকড় দমন, সচে ও বভিন্নি কাজে ব্যন্ত সময় পার করছনে তারা।

এদকিে ফসলরে মাঠ ঘুরে দখো গছেে কৃষকদরে দম ফলোর সুযোগ নইে। ধান গাছ পরর্চিযা ও সচে দয়োসহ প্রায় সারাক্ষণই রয়ছেে ব্যস্ততায়। দ্রুতগততিে বড়েে যাচ্ছে বোরো ধানরে চহোরা। মাঠে মাঠে হাওয়ায় দুলছে ধানরে থোড়। আর আনন্দে দুলছে কৃষকদরে মন। আর ১৫/২০ দনিরে মধ্যইে ধান কাটা মাড়াই শুরু হব।

হাকমিপুর (হিলি) উপজলোর কয়কেজন কৃষকরে সাথে কথা বললে তারা জানান, মাঝমেধ্যে নানামুখী সমস্যায় কৃষকরা দুশ্চন্তিায় পড়ে এটি সত্য। এবার সাথে যোগ হয়ছেে করোনায় চলমান সারাদশেে অঘোষিত লকডাউন। তারপরওে তারা আশাবাদী। র্বতমানে করোনাভাইরাসরে কারণে ফসল ঘরে তোলা নয়িে দুশ্চন্তিায় রয়ছেনে কৃষকরা। সময়মতো শ্রমকি না পলেে তারা ক্ষতগ্রিস্ত হবনে। তবে উত্তররে জলোগুলো থকেে ধানকাটা শ্রমকি না আসলে পড়তে হবে বিপাকে। ধান ঘরে তুলে নয়োর আগ র্পযন্ত যাতে বড় ধরনরে কোনো প্রাকৃতকি র্দুযােগ না হয় সইে প্রত্যাশা করছনে কৃষকরা। সবকছিু ঠকি থাকলে এ বছর তাদরে বোরো ধানরে বাম্পার ফলনরে সম্ভাবনা রয়ছে।

তারা আরো জানান, এবার প্রতটিি গ্রামে প্রায় জমতিে বোরো আবাদ করা হয়েছে। জমরি ধানগুলো সবুজ থকেে সোনালী রং ধারণ করছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে ভালো ফলন হবে বলে আমরা আশা করছি। সাধারণ কৃষকরা যনে আমরা সঠকি দাম পাই সইে বষিয়ে সরকাররে হস্থক্ষপে কামনা করনে।

হাকমিপুর (হিলি) উপজলো কৃষি র্কমর্কতা শামীমা নাজনীন জানান, চলতি বোরো মৌসুমে চাষাবাদরে লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়ছেলি ৭ হাজার ৩২৫ হক্টের জমিতে। র্অজতি হয়ছেে ৭ হাজার ২৩০ হক্টের জমিতে। এর মধ্যে হাইব্রডি জাতরে ধান এক হাজার ৩৪০ হক্টের, দশেি ৩৩০ হক্টের ও উফশী জাতরে ধান ৫ হাজার ৫৬০ হক্টের জমতিে রোপণ করছেে কৃষকরা। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে লক্ষ্যমাত্রা ছাড়য়িে যাবে।

তিনি আরো জানান, করোনাভাইরাসে সৃষ্ট পরস্থিতিতিওে আমি অফসিে নয়িমতি উপস্থতি থকেে উপ-সহকারী কৃষি র্কমর্কতাদরে মাধ্যমে কৃষকদরে পরার্মশ প্রদান করছি। তারা কৃষকদরে বাড়ি বাড়ি গয়িে অধকি ফলনরে জন্য পরমিতি সার ব্যবহার, কীটনাশক, পানি সাশ্রয়, পোকামাকড় দমন এবং র্সাবকি পরর্চিযায় কৃষকদরে নয়িমতি পরার্মশ প্রদান করছে। এর ফলে কৃষকরা সঠকি সময়ে সার ও কীটনাশক তাদরে ফসলি জমতিে প্রয়োগ করতে পেরেছে। আশা করা যাচ্ছে আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে অন্য বছররে চেয়ে এ বছর বাম্পার ফলনরে সম্ভাবনা রয়ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...