আজ ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ ইং

সংখ্যালঘুদের পৈত্রিক সম্পত্তি দখলের অভিযোগ

নিজস্্ব প্রতিবেদক:  গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের পৈত্রিক ভোগকৃত পুকুর ও জমি দখলের অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় কিছু দুষ্কৃতকারীর উপড়। উপজেলার হরিরামপুর ইউনিয়নের হরিরামপুর মৌজার খাজা ডাংগার বিলে এ ঘটনা ঘটে।  সরেজমিনে ঘুরে অভিযোগের সত্যতা জানা যায়। স্থানীয়সুত্রে বলা হয়,হরিশ্চন্দ্র নাথ বর্মন,মনমথ রায় বর্মন,প্রসন্নকুমার বর্মন,দীগেন্দ্র নাথ বর্মন
এবং মৃত রাজেন্দ্র নাথ বর্মন সকলের পিতা মৃত শ্রী দিনেশ চন্দ্র রায় প্রায় ২৮ বছর যাবত পৈতৃক সম্পতি যার দাগ নম্বর ৩৬৬৪/৫৫৯৫ ভোগদখল করে আসছে। যেখানে তাদের মোট জমির পরিমাণ ৬০ শতক। প্রসন্ন কুমার বর্মন বলেন,”আমরা চার ভাই মিলে আমাদের আবাদি জমিতে গত বছর পুকুর খনন করি,এখানে ধান চাষসহ সহ মাছ চাষের জন্য প্রায় ৭ লাখ টাকার প্রকল্প শুরু করি। গতবছর থেকে চলমান সময় পর্যন্ত আমার এই প্রকল্পের লাভ দেখে প্রতিপক্ষ মৃত আমির উদ্দিনের ছেলে আজাহার আলী,আনছার আলী,আহম্মেদ আলী এবং আবেদ আলীসহ স্থানীয় কিছু কুচক্রীমহল আমার প্রকল্পের পুকুর পাড় ঢেলে দেয়,মাছ তুলে নিয়ে যায় এবং আমার প্রকল্প নিজের করে নিতে পেশি শক্তির দাপট দেখায়”। তিনি আরো বলেন,প্রতিপক্ষের এরুপ ঘটনায় তাদের ক্ষতির পরিমান দাঁড়ায় প্রায় ছয় লাখ টাকা। জমি-জমা সংক্রান্ত সকল দলিল দস্তাবেজ নিয়ে দফায় দফায় স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের গন্যমান্য ব্যক্তিদের নিয়ে শালিশি আলোচনা করলে প্রসন্ন কুমার ও তার ভাইদের পক্ষেই রায় দেয় স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ।প্রসন্ন কুমার রায় শালিশি বৈঠকের কাগজ হাতে পেয়েও তারা তাদের পৈত্রিক জমিসহ প্রকল্পের পুকুরে যেতে পারছে না।বিবাদীরা লাঠিশোটা হাতে তাদের জমি ও পুকুরে দিনভর পাহারা দিচ্ছেএবং প্রাননাশের হুমকি দিচ্ছে।এমবস্থায় স্থানীয় সংখ্যালঘুরা জীবন নিয়ে আতংকের মধ্যে দিন কাটাচ্ছে। স্থানীয়রা জানান,একমাত্র পেশিশক্তি ব্যবহার করে প্রসন্ন কুমার ও তার ভাইদের পৈত্রিক সম্পত্তি দখলে পায়তারা করছে কিছু দুষ্কৃতকারী। এসব বিষয়ে এলাকাবাসী আবার,আলোচনা করলে বিবাদী পক্ষ কারো কথায় কর্নপাত না করে , প্রসন্ন কুমারের জমি-পুকুর দখল করে আছে কিছু দুষ্কৃতকারী । এলাকাবাসী প্রকৃত জমির মালিকদের জমি ফেরতসহ সংখ্যালঘুদের জীবনের নিরাপত্তায় প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।
এবিষয় নিয়ে জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে, সম্পত্তি দখলে দুষ্কৃতকারীদের বিরুদ্ধে থানায় একটি অভিযোগ করা হয়েছে বলে অভিযোগকারী সুত্রে জানা যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...