আজ ৭ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২১শে জুন, ২০২১ ইং

রামপালে করোনা পরিস্থিতিতে বিপাকে বিআরডিবির কর্মকর্তা কর্মচারী ও ঋণ গ্রহীতারা

রামপাল(বাগেরহাট) প্রতিনিধি : রামপালে করোনা পরিস্থিতির কারনে বিআরডিবি থেকে ঋণ গ্রহীতা মৎস্যজীবীরা বিপাকে পড়েছে। করোনা পরিসিইতর কারনে একদিকে যেমন মাছের দাম কমেছে তেমনি পরিবহন ব্যাবস্থা সল্প াকার কারনে স্থানীয় মৎস্য ব্যাবসায়ীরা সব ধরনের মাছ কিনছে না। এতে মাছ বিক্রয় করতে না পেরে তারা ঋণের টাকা পরিশোধে ব্যার্থ হচ্ছে। এদের কারনে বেতন ভাতা নিয়েও বিপাকে পড়েছেন বিআরডিবির কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা। এই পরিস্থিতিতে বিষয়টি নিয়ে উর্দ্ধতন মহলের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন তারা। সূত্রে প্রকাশ,জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ষাটের দশকে ড. আখতার হামিদ খান কতৃক উদ্ভাবিত পল্লী উন্নয়নের সফল কর্মসূচী দ্বি স্তর সমবায় পদ্ধতিকে জাতীয় পর্যায়ে সমন্বিত পল্লী উন্নয়ন কর্মসূচী আইআরডিপিআর” কে স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে সারা দেশে চালু করেন। কিন্তু দ্বি স্তর সমবায় কাঠামোর আওতায় ইউসিসিএর মাধ্যমে আইআরডিপি/বিআরডিবির নিজস্ব কর্মকান্ড সহ বর্তমানে ১৫ টি প্রকল্প চালু আছে। এ যাবত পর্যন্ত সরকাওে মোট ১১৫টি প্রকল্প বাস্তবায়ন হয়েছে। দ্বি স্তর সমবায় কাঠামোর আওতায় উপজেলা কেন্দ্রীয় সমবায় সমিতির কর্মচারীদেও মাধ্যমে গ্রামীন প্রান্তিক ও ক্ষুদ্রচাষী,দরিদ্র জনগোষ্ঠীর আর্থ সামাজিক অবস্থার উন্নয়নের লক্ষ্যে সমিতি গঠন,পুঁজি গঠন,আধুনিক চাষাবাদেও জন্য সেচ ও কৃষি উপকরন সরবরাহ,কর্মসংস্থান সৃষ্টি,আয় বৃদ্ধি ও দক্ষতা উন্নয়নমূলক প্রশিক্ষন, ঋণ সহায়তা প্রদান সহ নানাবিধ কাজ করলেও প্রকল্পের ব্যায় খাত থেকে কর্মচারীরা কোনো আর্থিক সহায়তা পাচ্ছেন না। ঋণ গ্রহীতা চেয়ারম্যান মোড় এলাকার মাছ ব্যাবসায়ী শেখ রফিকুল ইসলাম বলেন, লোন নিয়ে ঘেরে মাছ ছেড়েছি। এখন করোনার কারনে কেউ মাছ কিনতে চায় না। আর কিনলেও তার দাম অনেক কম। তাই পরিবার পরিজন নিয়ে খুব সমস্যার মধ্যে আছি। এ অবস্থায় লোনের টাকাও দিতে পারছি না। এখন সরকার যদি বিআরডিবির মাধ্যমে সহায়তা করে তবে আমরা বাঁচতে পারবো। ঋণ গ্রহীতা একই এলাকার কাকড়া ব্যাবসায়ী শেখ ফরিদুল ইসলাম বলেন,এতদিন তো লোনের টাকা দিতে কোনো অসুবিধা ছিলো না। এখন করোনার কারনে দেশের বাইরে কাকড়ার চাহিদা অনেক কম তাই দামও কম। একদিকে করোনার কারনে অন্য কাজ কর্ম বন্ধ তাই খুবই দূর্বিসহ অবস্থায় আছি । এখন লোনের কিস্তি কিভাবে দেবো তার জন্য খুব শংকায় আছি। রামপাল বিআরডিবির প্রধান পরিদর্শক ও বাংলাদেশ ইউসিসিএ কর্মচারী ইউনিয়ন এর সাধারন সম্পাদক শেখ ফেরদাউস জানান, কোভিড নাইনটিন এর কারনে সারা বাংলাদেশে মাঠ পর্যায়ে ঋণ আদায় বন্ধ রয়েছে। এ অবস্থায় দেশব্যাপী ইউসিসিএ কর্মচারী ইউনিয়নের ২১৩০ জন সদস্য খুবই মানবেতর জীবনযাপন করছে। এদের প্রতি সরকারের সুদৃষ্টি কামনা করেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...