আজ ১লা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৫ই জুন, ২০২১ ইং

রংপুরে করোনাকে জয় করল আরো ২ জন

রংপুর প্রতিনিধি : রংপুর ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতাল থেকে সুস্থ্য হয়ে বাড়ি ফিরলেন ঠাকুরগাঁও পৌরসভা এলাকার মর্জিনা আক্তার ববিতা (২০) ও রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মী আনিসুর রহমান (৫০)।
আজ বুধবার বিকেলে তাদেরকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানিয়ে ছাড়পত্র দেয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এনিয়ে রংপুর ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন ৫ জন।
রংপুর ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতাল জানিয়েছে, ঠাকুরগাঁও জেলার পৌরসভার টিকিয়াপাড়া এলাকার বাসিন্দা মর্জিনা আক্তার ববিতার করোনা উপসর্গ দেখা দিলে নমুনা সংগ্রহ করে স্বাস্থ্য বিভাগ। এরপর ববিতা স্বামীর বাড়ি থেকে বাবার বাড়ি পঞ্চগড় সদর উপজেলার কহরুহাট নারায়নপুরে চলে আসেন। পরে পুলিশ ও স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তা তাকে খুঁজে ঠাকুরগাঁওয়ের বাড়িতে আসলে জানতে পায় সে পালিয়ে বাবা বাড়ি পঞ্চগড়ে চলে গেছে। পরে ২২ এপ্রিল ওই নারীকে খুঁজে বের করে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে রংপুর ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। হাসপাতালের চিকিৎসকরা জানতে পারে তিনি সম্প্রতি গর্ভপাত করিয়েছেন এবং রক্ত শূণ্যতায় ভূগছেন। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ গাইনী বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক এনে ববিতাকে রক্ত দেয়াসহ করোনার চিকিৎসা দেন। এরপর দুই বার নমুনা পরীক্ষায় করোনা নেগেটিভ আসলে ববিতাকে বুধবার ছাড়পত্র দেয়া হয়।
এদিকে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ২৭ এপ্রিল ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতালে ভর্তি হন মিঠাপুকুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মী আনিসুর রহমান (৫০)। তিনি জ্বরে ভুগছিলেন। এরপর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আনোয়ারের দু’বার নমুনা পরীক্ষার ফলাফলে করোনা নেগেটিভ আসে। বুধবার তাকেও ছাড়পত্র দেয়া হলে তিনি বদরগঞ্জের বাড়িতে ফিরে যান।
ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতাল তত্তাবধায়ক এস এম নুরুন্নবী জানিয়েছেন, ববিতাকে সংকটাপন্ন অবস্থায় পেয়েছিলেন । একে তো তিনি গর্ভপাত করে ছিলেন, তার উপর তিনি করোনায় আক্রান্ত ছিলেন। সেই সাথে তিনি রক্তশূণ্যতায় ভূগছিলেন। করোনায় আক্রান্ত রোগীদের রক্ত দেয়াটা একটু কঠিন ব্যাপার। প্রশাসনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী গাইনী রোগে আক্রান্ত রোগীদের রংপুর কমিউনিটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়ার কথা থাকলেও তখন পর্যন্ত ওই হাসপাতাল রোগী চিকিৎসায় প্রস্তুত ছিলো না। তাই তাদের হাসপাতালেই ববিতাকে চিকিৎসা দেয়া হয় । তাকে ৩ ব্যাগ রক্তও দেয়া হয়েছে। বর্তমানে তিনি সুস্থ্য হয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...