আজ ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২০শে অক্টোবর, ২০২১ ইং

র‌্যাবের তৎপরতায় প্রাণ বাঁচল গাজীপুরের অবুঝ শিশুর, আটক ৪

গাজিপুর প্রতিনিধি : গাজীপুরের র‌্যাবের তৎপরতায় একটি অবুঝ শিশু মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষা পেল। মহানগরের বাসন সড়ক এলাকা থেকে অপহৃত শিশু সাব্বির হোসেনকে রাজধানীর উত্তরা থেকে ১৮ ঘন্টার মধ্যে মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করেছে র‌্যাব সদস্যরা। এসময় সংঘবদ্ধ অপহরণকারী চক্রের দুই জোড়া দম্পতিকে আটক করেছে। আটককৃত ২ জন একই বাড়ির ভাড়াটিয়া ছিলো।

র‌্যাব-১, স্পেশালাইজড কোম্পানী পোড়াবাড়ী ক্যাম্প কমান্ডার লে. কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল-মামুন (জি), বিএন জানান, গত ১০ মে রোববার সকাল ৯ টার দিকে মহানগরের বাসন সড়ক এলাকার ভাড়াটিয়া মো. আবু বকর ছিদ্দিক এর একমাত্র শিশু সন্তান মো. সাব্বির হোসেন(৬) নিজ বাসা হইতে অপহৃত হয়। অপহরণের পর ভিকটিম এর পরিবার সম্ভাব্য সকল স্থানে খোঁজাখোজি করে না পেয়ে একই দিন রাত ৮টার সময় বাসন থানায় একটি অপহরণের মামলা দায়ের করেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন। এরই মধ্যে শিশু সাব্বির হোসেনের বাবার মোবাইল ফোনে অজ্ঞাতনামা নম্বর থেকে ফোন আসে এবং তার শিশু সন্তানকে তারা অপহরণ করেছে বলে জানায় এবং তার মুক্তিপণ হিসেবে ৫ লাখ টাকা দাবি করে। অন্যথায় অপহরণকারীরা তার ছেলেকে হত্যা করে লাশ গুম করবে বলে জানায়।

পরবর্তীতে খোঁজাখোজির এক পর্যায়ে রোববার এসি সহাকারী পুলিশ কমিশনার (সদর জোন) মো. সোহরাব হোসেন এবং বাসন থানার ওসি মো. রফিকুল ইসলাম এবং র‌্যাব-১, স্পেশালাইজড কোম্পানী পোড়াবাড়ী ক্যাম্পে পরিবারের পক্ষ থেকে অপহৃত শিশুকে উদ্ধারের জন্য আইনগত সহায়তা কামনা করেন। অভিযোগ প্রাপ্ত হয়ে অপহৃত ভিকটিম উদ্ধার এবং অপহরণকারীদের গ্রেফতারের লক্ষ্যে দ্রুততার সাথে ছায়া তদন্ত শুরু করেন এবং গোয়েন্দা নজরদারী বৃদ্ধি করেন র‌্যাব।

এরই ধারাবাহিকতায় সোমবার ভোর রাত ৩ টার পর. র‌্যাব-১ এর একটি আভিযানিক দল গাজীপুর ও রাজধানীর উত্তরার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে। অবশেষে মুক্তিপণের টাকা লেনদেনের সময় অপহরণকারী চক্রের মূলহোতাসহ ৪ জনকে আটক করা হয়।

তারা হলো- নেত্রকোনা জেলার বেতাতী এলাকার মৃত আলী মর্তুজার ছেলে মো. নাজমুল হুদা শামীম(২৮) একই এলাকার নাজমুল হুদার স্ত্রী মোসা. সুমা আক্তার(২৫)ও জেলার বারহাট্টা থানার চয়াহাল এলাকার মৃত আফজাল হোসেনের ছেলে মো. নয়ন মিয়া(৩৪) এবং একই এলাকার নয়ন মিয়ার স্ত্রী সুরাইয়া আক্তার শিউলি(২৬)। এরা বাসন সড়ক জমির উদ্দিন এর বাড়ির ভাড়াটিয়া) ও মালেকের বাড়ী (নজরুর এর বাড়ির ভাড়াটিয়া)। আটককৃতদের দেয়া তথ্যমতে র‌্যাব রাজধানীর উত্তরা এলাকার একটি ফ্ল্যাটের পরিত্যাক্ত গোপন কক্ষ হইতে মুমূর্ষ অবস্থায় অপহৃত মো. সাব্বির হোসেনকে উদ্ধার করে।

শিশুর পিতা মো. আবু বক্কর সিদ্দিক এর বাড়ি নাটোর জেলার লালপুর থানার দোয়ারিয়া এলাকার বাসিন্দা। তারা বাসন সড়ক (জমির উদ্দিন এর বাড়ির ভাড়াটিয়া)।অপহরণকারী চক্রের ২জন ভিকটিমদের সাথে একই বাড়ীতে ভাড়া থাকত। প্রতিবেশী ভাড়াটিয়া মো. নাজমুল হুদা@শামীম ও তার বন্ধু নয়ন মিয়ার পারস্পারিক যোগসাজসে সাব্বিরকে নিয়ে এক বাসায় লুকিয়ে রাখে এবং তারা স্বাভাবিক কাজকর্ম করে। সন্ধ্যায় তারা ভিকটিমের বাসা পরিবর্তন করে । র‌্যাব অভিযান শুরু করলে রাতে তারা উত্তরার ৯নং সেক্টরের নির্মাণাধীন বাসায় শিশুটিকে লুকিয়ে রাখে এবং ধরা পড়ার ভয়ে হত্যার পরিকল্পনা করে। এসময় তাদেরনিকট থেকে ৪ টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়।

র‌্যাব আরো জানায়, তারা একটি সংঘবদ্ধ অপহরণকারী চক্রের সদস্য। তারা দীর্ঘ দিন ধরে গাজীপুরের বিভিন্ন এলাকায় অপহরণ, চুরি ও ছিনতাইসহ নানাবিধ অপরাধমূলক কাজের সাথে জড়িত। তারা পরস্পর যোগসাজসে মুক্তিপণ আদায়ের উদ্দেশ্যে শিশু সাব্বির কে অপহরণ করেছিল বলে স্বীকার করে। তারা পেশায় গার্মেন্টস কর্মী। তাদের দীর্ঘদিনের স্বপ্ন ছিল যেকোন উপায়ে বিপুল টাকা উপার্জন করে গাজীপুর শহরে একটি ফ্ল্যাট বাসা ক্রয় করে সুন্দর ভাবে জীবন-যাপন করবে।

প্রকাশ থাকে যে, গত এক সপ্তাহে গাজীপুরে পর পর দুইটি শিশু অপহৃত হয় এবং পরবর্তীতে মুক্তিপণের টাকা না পেয়ে অপহরণকারীরা ভিকটিমকে হত্যা করে এবং পরবর্তীতে র‌্যাব ভিকটিম উদ্ধারসহ আসামীদের গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় বিধায় র‌্যাব উক্ত বিষয়ে সবর্দা তৎপর ছিল। গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...