আজ ৭ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২১শে জুন, ২০২১ ইং

হাসপাতালের কোয়ারেন্টাইন থেকে পালালো যুবক বান্দরবানে স্বেচ্ছাসেবি কিশোরের ৩ মাসের কারাদ্বণ্ড প্রতিবাদের ঝড় যোগাযোগ মাধ্যমে

বান্দরবান প্রতিনিধি: বান্দরবান সদর হাসপাতালের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন থেকে পালিয়েছে আবসার (৩১) নামে এক যুবক। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অপরাধে মাহমুদুর রহমান মাহিন নামে এক কিশোরকে ৩ মাসের কারাদ্বণ্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। সোমবার’রাতেই ঐ কিশোরকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে জেলা জুড়ে। প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে। স্বাস্থ্য বিভাগ ও স্থানীয় সূত্রমতে, চট্টগ্রামের চকবাজার এলাকা থেকে বান্দববান আসা আবসার (৩১) নামে এক যুবককে বান্দরবান সদর হাসপাতালে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়। এসময় তার গার্জিয়ান হিসেবে বান্দরবানের এক স্থানীয় বাসিন্দা মাহমুদুর রহমান মাহিনের নাম ও মোবাইল নাম্বার রেজিস্টারে লিপিবদ্ধ করে ওই যুবক। খবর পেয়ে যুবকের সাথে দেখা করতে হাসপাতালে যান কিশোর।পরে রাত সাড়ে আটটার দিকে হাসপাতালের স্টাফরা খবর নিতে গিয়ে দেখে কোয়ারেন্টিনের ঐ যুবক রুমে নেই। এসময় গার্জিয়ান মাহিনকে ফোন দেয় হাসপাতাল কর্তপক্ষ। তখন কিশোর স্বেচ্ছাসেবি ছেলেটি জানিয়ে দেন সে কিছুই জানেনা। উল্টো ঐ যুবকের জন্য নিজের বাসা থেকে কাপড় চোপড় নিয়ে হাসপাতালে আসছে। পরে সেও এসে দেখে ওই যুবক হাসপাতাল থেকে পালিয়েছে। ঘটনার পর হাসপাতাল কর্তপক্ষ প্রশাসনকে খবর দিলে প্রশাসনের পক্ষ থেকে তদন্ত করা হয়। এতে তদন্তে ওই যুবককে পালিয়ে যেতে গার্জিয়ান মাহিনের সংশ্লিষ্ঠতা খুজে পাওয়ায় ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে কোয়ারেন্টিন থেকে ওই যুবককে পালিয়ে যেতে সাহায্য করার অপরাধে মাহিনকে ৩ মাসের জেল ও নগদ ২০ হাজার টাকা অর্থদন্ড প্রদান করে কারাগারে প্রেরন করা হয়। বান্দরবান হাসপাতালের করোনা আইসোলেশন বিভাগের প্রধান ডা.প্রত্যুষ পল বলেন, হাসপাতালের কোয়ারেন্টিন থেকে এক যুবক পালিয়ে গেছে। বিকালে আনা যুবকটি রাতেই সবার চোখ এড়িয়ে পালিয়ে গেছে। পালিয়ে যাওয়ার পর আমরা তার গার্জিয়ান হিসেবে মাহিন কে বিষয়টি জানালে সেও জানেনা বললো। তারপর আমরা প্রশাসনকে জানিয়েছি।

পরে প্রশাসন পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহন করেছে। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকারী সদর উপজেলা নির্বাহি অফিসার (ইউএনও) হাবিবুল হাসান বলেন, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কোয়ারেন্টাইন থেকে রোগী পালিয়ে যাবার খবর দেন। হামপাতালে যাবার পর কর্তৃপক্ষ বলেন রোগী পালানের সঙ্গে এই ছেলেটি জড়িত। তাকে আমরা হাতেনাতে আটক করেছি। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের তথ্য প্রমানের ভিত্তিতে সাজা দেওয়া হয়েছে। এদিকে কোয়ারেন্টাইন থেকে যুবক পালানোর ঘটনায় লকডাউনের শুরু থেকে কর্মহীন অসহায় মানুষের সেবায় স্বেচ্ছাসেবি হিসাবে কাজ করা কিশোর মাহিন’কে হামপাতাল কর্তৃপক্ষ নিজের দায় এড়ানোর জন্য ফাঁসিয়েছেন বলে অভিযোগ স্বেচ্ছাসেবি সংগঠন গুলোর। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ঝড় তুলছে স্বেচ্ছাসেবিরা।

মাহিনের মুক্তির দাবীতে স্বোচ্ছার হচ্ছে স্বেচ্ছাসেবি সংগঠনের প্রতিনিধিরা। পৌরসভার মেয়র মো: ইসলাম বেবী বলেন, বিষয়টি খুবই দু:খ জনক। স্বেচ্ছাসেবি হিসাবে ছেলেটি দীর্ঘদিন ধরে কাজ করছে। যুবক পালিয়েছে, সেটির দায় একজন স্বেচ্ছাসেবি কিশোরকে জড়ানো হলো শোনলাম। ঘটনাটি কতটুকু সত্য সেটিও যাছাই করা দরকার ছিলো মনে করি। উল্লেখ্য করোনা পরিস্থিতিতে বাইরের জেলা থেকে কেউ এলে তাদেরকে হোম কোয়ারেন্টিনে অথবা প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে কঠোর নির্দেশনা রয়েছে। বান্দরবান সদর হাসপাতালে এ পর্যন্ত অনেকই কোয়ারেন্টিনে ছিল তারা সুস্থ্য হয়ে বাড়ী ফিরে গেছে। বান্দরবান হাসপাতালের কোয়ারেন্টিন থেকে পালিয়ে যাওয়ার ঘটনাও এটি নতুন নয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...