আজ ১০ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৪শে জুন, ২০২১ ইং

করোনায় নারায়ণগঞ্জে একদিনে রেকর্ড সংখ্যক আক্রান্ত ১২৫

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি : নারায়ণগঞ্জে প্রতিদিনই হু হু করে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ রেকর্ড সংখ্যক আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে। একদিনেই ১২৫ জন করোনায় আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

রেকর্ড সংখ্যক আক্রান্ত হলেও মৃত্যুবরণের হার এখনো কম। ২৪ ঘণ্টায় একজনের মৃত্যু হয়েছে। গত রোববার আক্রান্ত হয়েছিল ২২ জন। পরদিন সোমবার আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ২৭। ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত বেড়েছে ৯৮ জন। এ পর্যন্ত মোট আক্রান্ত হয়েছে ১৭৮৩ জন। আর এ পর্যন্ত এ রোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছে ৬৪ জন।

এ সময়ের মধ্যে নতুন করে সুস্থ হয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরেছে ২২ জন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হওয়ার সংখ্যা ৪৭০। এখন পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জে ১ হাজার ৭৮৩ জন মোট আক্রান্ত হয়েছে। জেলায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত মারা গেলো ৬৪ জন।

গত শুক্রবার পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ১৬০৯ জন আর মৃত্যু ছিল ৬১ এবং সুস্থ ছিল ৩৮৬ জন। গত চারদিনে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে ১৭৪ জন। আর মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েছে ৩ জন। মঙ্গলবার (১৯ মে) সকালে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে জানানো হয়েছে নারায়ণগঞ্জে একদিনে সর্বোচ্চ সংখ্যক ১২৫ জন আক্রান্ত হওয়ার পাশাপাশি নতুন করে একজনের মৃত্যু ঘটেছে।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের একাধিক সূত্র বলছে, শিল্প-ব্যবসা বাণিজ্য ও শ্রমিক বান্ধব নারায়ণগঞ্জ অন্যান্য জেলার চেয়ে ঘনবসতি এলাকা। নারায়ণগঞ্জে লকডাউন শিথিল হওয়ায় করোনায় থাবায় যেভাবে মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে এখনই তার লাগাম টেনে ধরতে হবে। এর জন্য আগামী ঈদ পর্যন্ত লকডাইন কড়াকড়ি আরোপ করা ছাড়া এর কোন বিকল্প নেই। বাস্তবতা হচ্ছে করোনা রোগের ভয়াবহতা সম্পর্কে মানুষের নূন্যতম ধারনা নেই। যদি থাকতো তাহলে এভাবে স্রোতের মতো ঘর থেকে বের হয়ে খোলামেলা ভাবে মার্কেট, শপিংমলে কেনাকাটায় উপচে পড়া ভিড় হতো না।

কেনা কাটায় নারীরা অবলীলায় তাদের কোলের সন্তানকে সাথে নিয়ে আসছে। মানছে না স্বাস্থবিধি। এতে যে তার সন্তানকে নিজেই মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে তা একবারের জন্যও ভাবছে না। র্নিলজ্জের মতো পুরুষরা তাদের নারীদের কেনাকাটা করতে ঘর থেকে বের হতে উৎসাহ দিয়ে বাজারে পাঠাচ্ছে। নারীরা না বুঝে বের হয়ে আসছে। যদি তারা পুরাপুরি স্বাস্থ্যবিধি মেনে ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলাচল করতো তা হলে এভাবে আক্রান্ত হওয়ার ঝুকি থেকে বাঁচতে পারতো। আগামীতে নারায়ণগঞ্জবাসীর জন্য বড় ধরনের অশনি সংকেত অপেক্ষা করছে। আক্রান্তের এবং মৃত্যুর সংখ্যা কোন ভাবেই ঠেকানো যাবে কি না তা নিয়ে যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে। আর বাড়তে থাকলে এ সংখ্যা কোথায় গিয়ে ঠেকবে তা কেউ বলতে পারবে না। নারায়ণগঞ্জবাসী নিজেদের থেকে সচেতন না হলে প্রশাসনের পক্ষে এই মহামারী ঠেকানো কোন ভাবেই সম্ভব নয়।

গত ২৪ ঘণ্টায় পুরো জেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১৭৮৩ জন। এর মধ্যে সিটি করপোরেশন এলাকায় ৮৫৩ জন, সদর উপজেলায় (ফতুল্লা, সিদ্ধিরগঞ্জ ও সদর থানা) ৫৬২, বন্দর উপজেলায় ৪৪, সোনারগাঁও উপজেলায় ১১৬, আড়াইহাজার উপজেলায় ৫৬ ও রূপগঞ্জ উপজেলায় ১৫২ জন।

এ পর্যন্ত করোনায় মৃত্যুকরণ করেছে সিটি করপোরেশন এলাকায় ৪৪ জন, সদর উপজেলায় ১৫, বন্দর উপজেলায় ১, সোনারগাঁও উপজেলায় ২ জন, আড়াইহাজার ১ জন ও রূপগঞ্জ উপজেলায় ১। সদর উপজেলায় ১৫, এবং আড়াইহাজার উপজেলায় ১ ও রূপগঞ্জ উপজেলায় ১ জন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...