আজ ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২০শে অক্টোবর, ২০২১ ইং

ছাত্রলীগের সাবেক সহ সভাপতি তাপসের হত্যাকারীদের গ্রেফতারের দাবীতে সংবাদ সম্মেলন

পটুয়াখালী প্রতিনিধি :পটুয়াখালীর বাউফলে কালাইয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি ও যুবলীগ সদস্য তাপস চন্দ্র দাসের হত্যাকারীদের গেপ্তার বিলম্ব করায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আর্কষণের জন্য সাংবাদিক সম্মেলন করেছেন বাউফল উপজেলা আওয়ামীলীগ।

মঙ্গলবার (২৬ মে) বিকাল চারটায় দলীয় কার্যালয় জনতা ভবনে অনুষ্ঠিত ওই সাংবাদিক সম্মেলনে উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবদুল মোতালেব হাওলাদারের পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন পৌর আওয়ামীলীগ সভাপতি ইব্রাহিম ফারুক।

সাংবাদিক সম্মেলনে নিহত তাপস দাসের বড় ভাইর পঙ্কজ দাস কান্নায় ভেঙে পড়েন। তিনি বলেন, মেয়রের নির্দেশে পুলিশের সামনে আমার ভাইকে হত্যা করা হয়েছে। পুলিশ আমাকে পিটিয়ে সরিয়ে দিয়েছে। আমি আমার ভাইকে বাঁচাতে পারিনি। তিনি সাংবাদিকের কাছে তার ভাই হত্যার বিচার দাবী করেন।

সাংবাদিক সম্মেলনে ইব্রাহিম ফারুক বলেন, দীর্ঘবছর পর্যন্ত ডাকবাংলোর সামনে আওয়ামীলীগের পক্ষে রাজনৈতিক, সামাজিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা গেট (তোরণ) নির্মাণ করা হয়ে থাকে। সম্প্রীতি আম্পানে গেটটি ক্ষতিগ্রস্থ হয়। পুনঃনির্মাণের কাজ চলছিল। গত রবিবার (২৪ মে) বেলা সোয়া দুইটার দিকে পৌর জুয়েল তাঁর সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে গেট নির্মাণে বাঁধা দেয়। এসময় প্রতিবাদ করলে জুয়েলের নির্দেশে তার লালিত সন্ত্রাসীরা রামদা ছোরা চাকুসহ হামলা চালায়। এতে তাপস দাসসহ প্রায় ১৫জন দলীয় নেতাকর্মী আহত হয়। গুরতর তাপস দাসসহ অন্যান্যদের বাউফল হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক তাপস ও আরেক যুবলীগ সদস্য ইমামকে বরিশাল শেরেই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। রাত সাড়ে আটটার দিকে তাপসের অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের ফলে মৃত্যুবরণ করে।
ইব্রাহীম ফারুক বলেন, হত্যা মামলার আসামী মেয়র জুয়েল পুলিশের নাকের ডগায় পৌর কার্যালয়ে সাংবাদিক সম্মেলন করেছেন। এটা কি করে সম্ভব?

সংবাদ সম্মেলনে ইব্রাহিম ফারুক এই খুনের সাথে জড়িত ব্যক্তিদের দ্রুত প্রেপ্তার করে এবং নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে সুষ্ঠু বিচার দাবী করেন।

সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন- উপজেলা পরিষদ ভাইস-চেয়ারম্যান মোসারেফ হোসেন খাঁন, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমন্ডার সামসুল আলম মিয়া, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও কনকদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান শাহীন হাওলাদার, উপজেলা যুবলীগ সাধারন সম্পাদক ও কালাইয়া ইউপি চেয়ারম্যান এস.এম ফয়সাল আহম্মেদ মনির।

জানা যায়, তাপস হত্যার ঘটনায় বাউফল পৌর মেয়র জিয়াউল হক জুয়েলসহ ৩৯জনকে আসামী করে একটি মামলা ধায়ের করা হয়েছে।

এবিষয়ে বক্তব্য নেওয়ার জন্য বাউফল থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমানের সরকারি মুঠোফোনে কল দেওয়া হলে তিনি কল রিজিভ না করে কেটে দেন।
সহকারি পুলিশ সুপার (বাউফল সার্কেল) বলেন,‘ আসামীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। ইতিমধ্যে দু’জনকে গেপ্তার করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...