আজ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ২২শে মে, ২০২৪ ইং

প্রধানমন্ত্রী মা গো আপনি তো সব দিচ্ছেন তা তো আমরা পাচ্ছি না, হামরা কি না খায়া থাকমো

বিশেষ প্রতিবেদক: করোনা ভাইরাস নামটি পৃথিবীর মানুষের কাছে চির স্মরনীয় হয়ে থাকবে। করোনা ভাইরাসের কারনে সংসার চলাতে হিমসিম খাচ্ছেন পরিবারের উপার্জন কারী সদস্যরা।

সুন্দরগঞ্জ উপজেলার হাজারো  মানুষের আয়ের হার একে বারে নিচে নেমে এসেছে বলে জানান পরিবারের আয় কারী সদ‍স‍্যরা।তারা বলেন ঘরে জমানো টাকা যা ছিলো সেই টাকাও বসে বসে খেয়ে শেষ। করোনার কারনে পারছি না কোথাও কাজে যেতে,পারছিনা কারো কাছে ধার করতে সাবরই তো একই অবস্থা ।এখন এমন অবস্থা হয়েছে যে আমাদের নিজের ছেলে মেয়েদের পাঁচটি  টাকা দিয়ে যে একটা বিস্কুট কিনে দিবো তারও ক্ষমতা নেই। ছেলে মেয়েদের সামনে গেলে নিজে কে অনেক ছোট মনে হয়। আর মনে মনে ভাবি জীবনে কি পাপ করলাম আমরা যে তার খেশারত এভাবে দিতে হচ্ছে আমাদের ।এভাবে বলতেই একজন অসহায় ভাই কেঁদেই ফেললো। এই সব শ্রম জীবি খেটে খাওয়া মানুষ গুলো সব সময় সরকারের দেয়া ত্রান,নগদ অর্থ‍্ থেকে বাদ পড়েই যাচ্ছে।

সরকার যাদের দিয়ে এই সবের পরিচালনা করান তারাই মেরে দেন।আমরা শুধু নামে জনগন, কিন্তু ভোগ করেন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মেম্বার ও বিভিন্ন দলের নেতা কর্মীরা।

আমরা না খেলেও কার কি আসে যায়। এই যে,দেখেন আপনি,ঈদ গেলো ঈদের দিন আমি আমার নিজের ছেলে মেয়েকে কিছুই কিনে দিতে পারিনি।এমন কি পরিবার সহ এক বেলা যে ভালো খাদ‍্য খাবো তাও ভাগ্যে জুটলনা। আমি ভাবি আমার মত বাংলাদেশে হাজার হাজার অভাবি আছে তারও তো এভাবেই পবিত্র ঈদ পালন করলো। না জানি আমার চেয়ে তার ও কত না কষ্টে আছেন। আসলে এ কথাগুলো সরকার পর্যন্ত পৌছেবে কি না জানিনা, শুধুই একটি কথা জানিয়ে রাখতে চাই  আপনাদের মাধ‍্যমে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা <মাগো আপনি সব কিছু ঠিক দিচ্ছেন কিন্তু আমরা পাচ্ছিনা মাগো সমাজ আর সমাজ নেই মাগো। এ সমাজ এখন অন‍্যনায় ভাবে গরিবের প্রতি অবিচার চালিয়ে যাচ্ছে।এই সমাজে কে দিয়ে আর শান্তি আশার সম্ভাবনা নেই মাগো।আর সব দলের নেতা কর্মীরা এখন রাজনীতি করেন নিজের তবিল ভরানোর রাজনীতি । এই সব বলেই কেদেঁই দিলো ভুক্তভোগি মো:ছামিউল ইসলাম ও মো:আহাদ সহ আরো অনেকে।।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর...